February 19, 2020, 12:32 pm

শিরোনাম :
জামালগঞ্জে একই কর্মমস্থলে ৩০বছর ধরে ওয়ার্ডবয় করেন অর্থোপেডিক বিশেষজ্ঞর কাজ শার্শা উপজেলা প্রশাসনের সৎ ও কর্মদক্ষ কর্মকর্তা খোরশেদ আলম চৌধুরী তরুণদের আইকন ঝিনাইদহ গণপূর্ত বিভাগের নতুন নির্বাহী প্রকৌশলীর যোগদান, ফুলেল শুভেচ্ছা লালপুরে তথ্য আপা সংস্থার উঠান বৈঠক চৌমুহনীতে ভূমি জবর দখলকারী নোটারী আইনজীবি আলামুর রহমানের বিরুদ্ধে এলাকাবাসীর মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল শিক্ষার্থী রুমি হত্যাকাণ্ডে জরিতদের গ্রেফতার ও শাস্তির দাবিতে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন মোরেলগঞ্জে মনোনয়নপত্র জমা দিলেন আওয়ামীলীগ প্রার্থী এ্যাড. আমিরুল আলম মিলন ভোলা বোরহানউদ্দিনে ডিবিপুলিশের অভিযানে এক গাঁজা ব্যাবসায়ী আটক ভোলা বোরহানউদ্দিনে একদল সাহসী পুলিশের অভিযানে এবার ১৪ পিচ ইয়াবাসহ এক ব্যবসায়ী আটক ভোলা বোরহানউদ্দিনে জুয়া ও মাদকের আস্তানা পরিদর্শন করতে আসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ রাসেলুর রহমান

১৭৫ কোটি ডলারের রেমিট্যান্স ১০ দিনে

Spread the love

১৭৫ কোটি ডলারের রেমিট্যান্স ১০ দিনে

ডিটেকটিভ নিউজ ডেস্ক

ঈদুল আজহাকে কেন্দ্র করে চলতি আগস্টের প্রথম ১০ দিনে প্রায় ১৭৫ কোটি ডলারের সমপরিমাণ রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। টাকার অঙ্কে যার পরিমাণ প্রায় ১৪ হাজার ৭৮৭ কোটি টাকা। বিপুল অঙ্কের এ রেমিট্যান্সের বেশিরভাগই মধ্যপ্রাচ্য থেকে এসেছে। বন্ধের দিনগুলো বাদ দিলেও আগস্ট মাস শেষ হতে আরো ১০ দিন বাকি। সবমিলিয়ে এমাসে ১৮০ কোটি ডলার রেমিট্যান্স ছাড়ানোর প্রত্যাশা সংশ্লিষ্টদের। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, প্রতিবারের মতো এবারও রেমিট্যান্স গ্রহণের শীর্ষে ইসলামি ব্যাংক। ব্যাংকটি ৯ আগস্ট পর্যন্ত রেমিট্যান্স পেয়েছে ১৪ কোটি ৩৭ লাখ ডলার। এ ছাড়া ১০ আগস্ট পর্যন্ত অগ্রণী ব্যাংকের মাধ্যমে রেমিট্যান্স এসেছে ১০ কোটি ডলার। ডাচ-বাংলা ব্যাংক পেয়েছে ৬ কোটি ২৯ লাখ ডলারের রেমিট্যান্স। এ সময় ৫ কোটি ৬৩ লাখ ডলারের রেমিট্যান্স পেয়েছে সোনালী ব্যাংক। জনতা ব্যাংক পেয়েছে ৩ কোটি ১৪ লাখ ডলার। সাউথইস্ট ব্যাংকের রেমিট্যান্সও প্রায় ৩ কোটি ডলার। এ ছাড়া সরকারি ব্যাংকের মধ্যে অগ্রণী ব্যাংক ১০ কোটি ডলার রেমিট্যান্স সংগ্রহ করতে পেরেছে। ব্যাংক সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ঈদুল আজহায় কোরবানি ছাড়াও, নানা কেনাকাটায় নগদ অর্থের চাহিদা বেড়ে যায়। এ ছাড়া ২ শতাংশ হারে প্রণোদনা দেওয়ার ঘোষণায় প্রবাসীরা বেশি করে অর্থ প্রেরণ করছেন। তাছাড়া ব্যাংকগুলো রেমিট্যান্স সংগ্রহে আরো তৎপর হয়েছে। সবমিলিয়ে ২০১৯-২০২০ অর্থবছর শুরু হয় রেমিট্যান্স প্রবাহের সুখবর দিয়ে। অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে ১৬০ কোটি ডলারের রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। রেমিট্যান্সের এ অঙ্ক মাসের হিসাবে বাংলাদেশের ইতিহাসে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ এবং গত বছরের জুলাইয়ের চেয়ে ২১ দশমিক ২০ শতাংশ বেশি। এর আগে রোজা ও ঈদ সামনে রেখে মে মাসে ১৭৫ কোটি ৫৮ লাখ ডলার রেমিটেন্সে আসে, যা ছিল মাসের হিসাবে বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ। তার আগে ১ মাসে সর্বোচ্চ রেমিট্যান্স এসেছিল চলতি বছরের জানুয়ারিতে, ১৫৯ কোটি ৭২ লাখ ডলার।বাংলাদেশের অর্থনীতির অন্যতম চালিকাশক্তি হলো রেমিট্যান্স। বর্তমানে ১ কোটির বেশি বাংলাদেশি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অবস্থান করছেন। স্থানীয় বাজারে ডলারের তেজিভাব এবং হুন্ডি ঠেকাতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নানা পদক্ষেপের কারণে বেশ কয়েক মাস যাবৎ রেমিট্যান্স বাড়ছে বলে মনে করছেন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তারা।

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ