April 3, 2020, 11:47 pm

শিরোনাম :
নোভেল করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করোনিয় বার্তা জনসাধারনের কাছে পৌঁছে দিচ্ছেন আই, এইচ, সেবা প্রতিষ্ঠান যশোর হাসপাতালে করোনা পরীক্ষা করার জন্য মেশিন দিলেন শাহীন চাকলাদার আলফাডাঙ্গায় ৪ শতাধিক নিম্নআয়ের মানুষের মাঝে ত্রাণ বিতরণ কর্মহীন মানুষের মাঝে আলফাডাঙ্গা স্বেচ্ছাসেবকলীগের ত্রাণ বিতরণ সুন্দরগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত তাহিরপুরে জানখালি নদী থেকে ড্রেজারে বালু উত্তোলণ: হুমকির মুখে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কুয়াকাটায় বাকিতে না দেওয়ায় কৃষককে মারধর করে তরমুজ লুট করেছে সন্ত্রাসীরা উপকুলে করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় মাঠে নেই এনজিও সংস্থা গুলো কলাপাড়ায় করোনা সন্দেহে দুই জনের নমুনা সংগ্রহ,লক ডাউনে দু’টি বাড়ি রাজারহাটের ইউএনও যোবায়ের হোসেন যেন মানবতার ফেরিওয়ালা

স্পিনার নাসির সিলেটের নায়ক

Spread the love

স্পিনার নাসির সিলেটের নায়ক

ডিটেকটিভ স্পোর্টস ডেস্ক

আবারও সেই মন্থর উইকেট। বল যেখানে গ্রিপ করল দারুণভাবে। তবে যত বাজে উইকেট, চিটাগং ভাইকিংসের ব্যাটিং হলো তার চেয়েও বাজে। সিলেট সিক্সার্সের তিন স্পিনারের বলে যেন তারা চোখে দেখল সর্ষে ফুল। সিলেট অধিনায়ক নাসির হোসেন স্পিন আক্রমণেও শিরোমনি।

বিপিএলে রোববারের প্রথম ম্যাচে চিটাগং ভাইকিংসকে ১০ উইকেটে হারিয়ে সিলেট সিক্সার্স বাঁচিয়ে রাখল শেষ চারের আশা।

ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে নাসির নিলেন ৫ উইকেট। দারুণ সঙ্গ দিলেন নাবিল সামাদ ও শরিফউল্লাহ। চিটাগং গুটিয়ে গেল ৬৭ রানেই, যা এবারের বিপিএলে সর্বনিম্ন দলীয় স্কোর। সিলেট জিতেছে ১১.১ ওভারে।

আগের দিনও মিরপুর প্রথম ম্যাচে ধুঁকেছে ব্যাটসম্যানরা। রংপুর রাইডার্সের ৯৭ রান তাড়ায় শেষ ওভারে গিয়ে জিতেছে কুমিল্লা। এদিন উইকেট ছিল আলাদা, তবে আচরণ প্রায় একইরকম। আগের দিনের মত অতটা অসমান বাউন্স যদিও ছিল না, তবে ভীষণ মন্থর।

চিটাগংয়ের পথ হারানোর শুরু প্রথম ওভার থেকেই। শুরুটা যদিও হয়েছিল দারুণ। টস জিতে বোলিং নিয়ে শুরুর ওভার করতে এলেন নাসির। ম্যাচের প্রথম বলেই লুক রনকি মারলেন ছক্কা!

তবে পরের বলই অক্কা। লাইন মিস করে বোল্ড রনকি। প্রথম ওভারেই শেষ বলে বিদায় সৌম্য সরকারের। মন্থর উইকেটেও শুরুতেই ড্রাইভ করতে গিয়ে দিলেন ফিরতি ক্যাচ।

সেই শুরু। নিজের পরের তিন ওভারে নাসির নিয়েছেন তিন উইকেট। মাঝে শরিফউল্লাহ ফেরান সিকান্দার রাজাকে। চিটাগং উইকেট হারাতে থাকে নিয়মিত। মন্থর উইকেটে সোজা ব্যাটে খেলার বদলে তারা খেলেছে ক্রস ব্যাটে। খেলেছে উচ্চাভিলাষী শট। খেসারত দিতে হয়েছে সেটির।

চার ওভারের টানা স্পেলে নাসির শেষ করেন ৫ উইকেট নিয়ে। বাকি কাজ শেষ করেন শরিফউল্লাহ ও নাবিল সামাদ।

সাতে নেমে ইরফান শুক্কুরের ১৫ রানই দলের সর্বোচ্চ। দুই অঙ্ক ছুঁয়েছেন আর কেবল দুই জন।

৩১ রানে ৫ উইকেট নাসিরের। ৩ ওভারে ৭ রানে ৩ উইকেট বাঁহাতি স্পিনার নাবিল সামাদের। ৪ ওভারে ২৩ রানে দুটি অফ স্পিনার শরিফউল্লাহর। নাসিরের মতো বাকি দুজনেরও ক্যারিয়ার সেরা বোলিং।

উইকেটের আচরণ বুঝে রান তাড়ায় কোনো তাড়াহুড়ো করেনি সিলেট সিক্সার্স। আন্দ্রে ফ্লেচার ও মোহাম্মদ রিজওয়ানের উদ্বোধনী জুটিই জয় এনে দেয় দলকে।

৩৪ বলে ৩২ রানে অপরাজিত ফ্লেচার। এবারের আসরে প্রথমবার খেলতে নামা পাকিস্তানি উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান রিজওয়ান অপরাজিত ৩৩ বলে ৩৬ রানে।

এই জয়ে ১১ ম্যাচে ৯ পয়েন্ট সিলেটের। শেষ ম্যাচে যাদ তারা জেতে এবং রংপুর যদি হেরে যায় শেষ দুই ম্যাচে, তাহলে সেরা চারে থাকবে সিলেট। তবে দুই ম্যাচের একটি জিতলেও সেরা চারে উঠবে রংপুর।

 

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

চিটাগং ভাইকিংস: ১২ ওভারে ৬৭ (রনকি ৬, সৌম্য ০, রিস ১২, ফন জিল ১১, রাজা ১, তানবীর ৫, শুক্কুর ১৫, এমরিট ২, সানজামুল ৯, নাঈম ৩, তাসকিন ১*; নাসির ৫/৩১, তানভির ০/৬, শরিফউল্লাহ ২/২৩, নাবিল ৩/৭)।

সিলেট সিক্সার্স:  ১১.১ ওভারে ৬৮/০ (রিজওয়ান ৩৬*, ফ্লেচার ৩২*, সানজামুল ০/১৩, নাঈম ০/২৬, রিস ০/১৪, তানবীর ০/১৫)

ফল: সিলেট সিক্সার্স ১০ উইকেটে জয়ী

ম্যান অব দা ম্যাচ: নাসির হোসেন

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ