June 4, 2020, 6:49 pm

শিরোনাম :
মহামারী মরন ব্যাধী করোনায় দেশে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৩৫, সর্বমোট ৭৮১ চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলায় বিএনপি থেকে আয়ামী লীগে যোগ দেয়া সেই আমিনুল ইসলাম ডেঙ্গুজ্বরে মৃত্যু টাঙ্গাইল শহরের পূর্ব আদালতপাড়া পুকুরের চোরাবালি থেকে ২ গাভী উদ্ধার করল ফায়ার সার্ভিস কক্সবাজারের চকরিয়ায় পাওনা টাকা চাওয়ায় বৃদ্ধকে এ কেমন নির্যাতন! বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলার দড়িরচর খাজুরিয়া দাখিল মাদ্রাসার কেরানি ও মসজিদের ইমামকে জুতার মালা পরিয়ে লাঞ্ছনা ঢাকা-বরিশাল নৌরুট: রোটেশনে উধাও স্বাস্থ্যবিধি মহামারী মরন ব্যাধী করোনা সংক্রমণ ভয়াবহ রূপ নেয়ার শঙ্কা মহামারী মরন ব্যাধী করোনায় বিপর্যস্ত অর্থনীতি জিডিপির গতি বৃদ্ধিই বড় চ্যালেঞ্জ আগামী তিন বছর ৮ শতাংশের উপরে প্রবৃদ্ধি অর্জনের লক্ষ্য ভারতে রাস্তায় নামছে বেসরকারি বাস আগের ভাড়াতেই সুস্থ আছেন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন আমি কেবলমাত্র আল্লাহকে জবাব দিতে বাধ্য – অভিনেত্রী জাইরা ওয়াসিম

সেক্স ট্যুরিজম ও ‘গ্রীষ্মকালীন স্ত্রী’

Spread the love

সেক্স ট্যুরিজম ও ‘গ্রীষ্মকালীন স্ত্রী’

ডিটেকটিভ আন্তর্জাতিক ডেস্ক

 

কি শিরোনাম দেখে খটকা লাগছে, ভাবছেন গ্রীষ্মকালীন আবার স্ত্রী হয়! হ্যাঁ হয়। অর্থের লোভ দেখিয়ে মিশরের শত শত কিশোরীকে ধনী পর্যটকদের ‘সাময়িক’ বিয়ে করতে বাধ্য করা হচ্ছে৷ দেশটিতে বিবাহবহির্ভূত সম্পর্ক নিষিদ্ধ হওয়ায় পর্যটকদের যৌন চাহিদা মেটাতে চলছে এমন বিয়ে৷ এদের পরিচয় ‘গ্রীষ্মের স্ত্রী’ হিসেবে৷

২০০৮ সালের গ্রীষ্মকাল৷ দরজায় কেউ একজন কড়া নাড়লো৷ হুরাইরার বয়স তখন কেবল ১৫ বছর৷ দরজা খুলেই বাইরে এক পুরুষকে তার বাবা ও সৎ মায়ের সঙ্গে কথা বলতে দেখলেন তিনি৷ তার সামনেই হলো সব কথাবার্তা৷ মাত্র ১,৭৫০ ইউরো (প্রায় ১ লাখ ৬৩ হাজার টাকা) ‘যৌতুকের’ বিনিময়ে সৌদি আরব থেকে আসা সেই ব্যক্তিকে তার বিয়ে করতে হবে৷

 

মাত্র ২০ দিন মেয়াদী সেই বিয়েতে ক্রমাগত ধর্ষণের শিকার হতে হয়ে হুরাইরাকে৷ এর পর গ্রীষ্মকালীন ছুটি শেষ৷ হুরাইরাকে আবার বাবা-মায়ের কাছে ফেরত দিয়ে সৌদি নাগরিক নিজ দেশে ফেরত চলে যান৷ আর কখনও সে ব্যক্তির সঙ্গে দেখা হয়নি হুরাইরার৷

 

ডয়চে ভেলের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মিশরে যৌনকর্মীদের ডাক নাম ‘গ্রীষ্মকালীন স্ত্রী’। হুরাইরাও ছিলেন তাদের একজন৷ প্রতি বছরই উপসাগরীয় অঞ্চলের বিভিন্ন দেশ থেকে এমন ‘স্ত্রী’ বেছে নিতে মিশরে আসেন পর্যটকেরা৷ এর বিনিময়ে মেয়ের পরিবারকে যে অর্থ দেয়া হয় তা তাদের জন্য অনেক কিছু৷

 

হুরাইরা বলছিলেন, ‘সব কিছু খুব লোভনীয় লাগছিল৷ আমার পরিবার আমাকে নতুন কাপড় আর উপহারের লোভ দেখায়৷ আমি তখন খুব ছোট ছিলাম৷ শেষ পর্যন্ত আমি রাজী হয়ে যাই।’ হুরাইরার পরিবার তার বিয়ের ‘যৌতুকের’ টাকা দিয়ে একটি ফ্রিজ আর ওয়াশিং মেশিন কেনে৷

 

হুরাইরার বয়স এখন ২৮৷ এর মধ্যে তার ৮ বার বিয়ে হয়েছে, প্রতিবারই অল্প কিছু দিনের জন্য৷ নিজের অতীত নিয়ে তিনি লজ্জিত এবং নিজের আসল নামও প্রকাশ করতে চান না৷ বাইরে বের হলে নিজেকে সব সময় আড়াল করে রাখেন কালো নেকাবে৷

 

প্রথম বিয়ের সময় রাজধানী কায়রো থেকে ২০ কিলোমিটার দূরে অউসিম গ্রামে ছোট এক বাড়িতে বাবা, সৎ মা এবং ছয় সৎ ভাই-বোনের সঙ্গে থাকতেন হুরাইরা৷

 

কিন্তু তখন হুরাইরা যেমন ভেবেছিলেন, খুব দ্রুত সেসব স্বপ্ন মিথ্যা প্রমাণ হতে থাকে৷ তিনি বলেন, ‘আমি তখন খুব সহজ সরল ছিলাম, ভালোবাসায় বিশ্বাস করতাম৷ বিয়ের প্রথম রাত খুব ভয়াবহ ছিল৷ এর পর থেকে আমি মানসিক সমস্যায় ভুগি৷’

 

কিন্তু এসব জানিয়েও পরিবারকে পরের বিয়েগুলোর আয়োজন করা থেকে ঠেকানো যায়নি৷ পরের গ্রীষ্মেই আবার এক পর্যটককে বিয়ে করতে হয় হুরাইরার৷ এবার তার ‘স্বামী’ একজন কুয়েতি৷ কুমারী না হওয়ায় এবার তার ‘যৌতুক’ কেবল ৬০০ ইউরো৷

 

মিশরে যৌনকর্মী ও মানবপাচার নিয়ে বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থার সঙ্গে কাজ করেন আইনজীবী আহমেদ মোসেলহি৷ হুরাইরার গল্প মিশরে জন্য নতুন কিছু নয় বলে মনে করেন তিনি৷

 

তিনি বলেন, ‘অনেক মেয়ে পরিবারকে সাহায্য করতে চায়৷ এ জন্য অনেকে স্বেচ্ছায় এসব বিয়েতে রাজী হয়৷ টাকা আসতে থাকলে এক পর্যায়ে তাতে আসক্তি তৈরি হয়৷’

 

এর পর তিনি জানালেন ভয়াবহ এক হিসাব৷ কায়রোর আশপাশের এলাকাগুলোতেই পরিবারগুলোতে আট বা তারও বেশি সন্তান রয়েছে৷ প্রতিটি মেয়েই এমন ‘গ্রীষ্মকালীন বিয়ের’ মাধ্যমে একটি গাড়ি বা বাড়ির একটি তলা বানানোর সমান অর্থ আয় করতে সক্ষম৷

 

কায়রোর আশপাশের এলাকায় দরিদ্র লোকের বাস৷ চার ভাগের এক ভাগ মানুষ দিনে দুই ডলারেরও (প্রায় ১৫০ টাকা) কম খরচে চলতে হয়৷ সেক্স ট্যুরিজম এই চরম দরিদ্রদের জীবনে নতুন আশা সৃষ্টি করছে৷ কেউ কেউ মেয়ের কুমারীত্ব, বয়স, চেহারা এবং বিয়ের স্থায়িত্ব বিবেচনা করে এক লাখ ইউরো (প্রায় ৯৫ লাখ টাকা) পর্যন্ত খরচ করতে রাজী হয়৷

 

এসব বিয়েতে হোটেল কক্ষ বা অ্যাপার্টমেন্টসহ নানা প্যাকেজও রয়েছে৷ ইসলামে বিবাহবহির্ভূত সম্পর্ক নিষিদ্ধ৷ যুক্তি হিসেবে বলা হয়, এর মাধ্যমে একদিকে কাগজ-কলমে ‘বৈধ’ বিয়েতে ‘স্বামী-স্ত্রীর’ ধর্মীয় বিধানও অমান্য হয় না, দেশের আইনেও বিচার করাটা বেশ কঠিন হয়৷

 

হুরাইরা এখন আর এই ব্যবসায় জড়িত না৷ এখনও তিনি তার বাবা ও সৎ মায়ের সঙ্গেই বাস করেন৷ তিনি বলেন, ‘আমি আর তাদের ভয় করি না কিন্তু প্রচণ্ড ঘৃণা করি, বিশেষ করে আমার বাবাকে৷ তিনি কীভাবে এসব হতে দিলেন!”

 

এখন সত্যিকার একটি বিয়ের জন্য সঠিক মানুষের সন্ধান করছেন হুরাইরা৷ কিন্তু বাস্তবতা বলছে, হুরাইরার ভাগ্যে কী হবে তা প্রায় নিশ্চিত৷ হুরাইরার মতো ‘গ্রীষ্মকালীন স্ত্রী’দের সমাজে সম্মানের চোখে দেখা হয় না৷ মিশরের রক্ষণশীল সমাজে কোনো পুরুষই এমন মেয়েকে বিয়ের যোগ্য মনে করে না৷

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ