September 20, 2020, 12:30 pm

শিরোনাম :
সাহেদের অস্ত্র মামলার রায় ২৮ সেপ্টেম্বর আরো ২৬ জনের মৃ ত্যু, শনাক্ত ১৫৪৪ মসজিদে ডুকে সু-কৌশলে ঈমামের মোবাইল চুরির অপচেষ্টা রাজশাহীতে ৯২ বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার’ ০১ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার রাজশাহীর কাটাখালীতে ইয়াবাসহ ০১ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার লাখো মুসল্লির অশ্রুসিক্ত ভালোবাসায় আল্লামা শফী হুজুরের জানাযা সম্পন্ন রংপুর বদরগজ্ঞে পুলিশের গায়েবি মামলায় সাংবাদিক কারাগারে কেশবপুরে নছিমন ও মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে আহত ৪ বেনাপোল বাদে সব দিয়ে স্থলবন্দর দিয়েই ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানি শার্শার সাতমাইলে ৪৯ বোতল ফেনসিডিল সহ এক যুবক আটক কলাপাড়ায় বিষাক্ত গ্যাস ট্যাবলেট খেয়ে শিক্ষার্থীর মৃত্যু কুয়াকাটা অপরাধীদের নিরাপদ জোন হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে পুলিশের অভিযানে রাজশাহীর তানোরে গ্রেফতারি পরোয়ানা ভুক্ত পলাতক আসামী গ্রেফতার সরিষাবাড়ীতে বিনামুল্যে চক্ষু শিবির ও ছানি অপারেশন ক্যাম্পিং চাঁপাইনবাবগঞ্জের সোনামসজিদ স্থলবন্দর দিয়ে অবশেষে ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি শুরু ছাগল চাপা-পড়ায় মোটরসাইকেল বাহিনীর বেধড়ক মারপিটে ট্রাক ড্রাইভার নিহত বান্দরবান নাইক্ষ্যংছড়িতে মা-ভাইয়ের সাথে অভিমান করে কিশোরের আত্মহত্যা লালবাগ থানা এলাকাথেকে ইয়াবাসহ আটক ০১ আরো ৩২ মৃত্যু, শনাক্ত ১৫৬৭ আহমদ শফীর দাফন সম্পন্ন

সন্তানকে বালিশ চাপা ও গরম পানি ঢেলে হত্যার দায় স্বীকার বাবা ও সৎ মা

Spread the love
রংপুর ব্যুরো ঃঃ
 
উত্তরাঞ্চলের নীলফামারীর ডিমলা উপজেলায় উদ্ধার হওয়া বাক্সবন্দী (স্টিলের ট্রাঙ্ক) অর্ধগলিত লাশটি ১২ বছরের শিশু জিহাদের। সে দিনাজপুর জেলার বিরলে বসবাসকারী জিয়াউর রহমানের ছেলে। ঘটনার ৬৩ দিন পর  মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে তার পরিচয় ও হত্যা রহস্য উদঘাটন করার কথা জানিয়েছে পুলিশ ব্যুরো অব  ইনভেস্টিগেশন

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, সতমায়ের সঙ্গে বনিবনা না হওয়ায় গত ১৪ জুলাই ঘুমন্ত জিহাদকে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যার পর গরম পানি ঢেলে শরীর ঝলসে দেওয়া হয়। পরে লাশ ওই বাক্সে বন্দী করে একটি পিকআপে ১৫ জুলাই রাতে নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার ডোমার-ডিমলা সড়কে বালাপাড়া ইউনিয়নের রামডাঙ্গা ফরেস্ট এলাকায় ফেলে রাখা হয়। পরদিন পুলিশ বাক্স খুলে ওই লাশ উদ্ধার করে।

এঘটনায় নিহত শিশুর বাবা জিয়াউর রহমান (৩৫), তার দ্বিতীয় স্ত্রী (জিহাদের সতমা) আলেয়া মণি (১৯) ও শ্বশুর আইয়ুব আলীকে (৫৫) গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পাশপাশি ওই লাশ বহনের পিকআপটি (ঢাকা মেট্রো ন-১১-৯৬০৭) আটক করে মালিক ও চালক ইসমাইল হোসেনকেও (২৬) গ্রেপ্তার করা হয়।

পুলিশ জানায়, শিশু জিহাদের সঙ্গে সতমা আলেয়া মণি এবং তার বাবা জিয়াউর রহমানের বনিবনা না হওয়ায় তারা একত্রে পরিকল্পিতভাবে গত ১৪ জুলাই রাতে ঘুমন্ত জিহাদকে বালিশ চাপা দিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। পরদিন (১৫ জুলাই) সকাল বেলা হত্যার ঘটনা গোপন করতে তার বাসায় ব্যবহৃত একটি স্টিলের ট্র্যাংকে বাবা জিয়াউর রহমান, সতমা আলেয়া মনি ও নানা আইয়ুব আলী একটি বেডশীট ও কাঁথায় শিশু জিহাদের লাশ পেচিয়ে ট্রাংকের ভিতরে ঢুকায়। আইয়ুব আলী পার্শ্ববর্তী মীম ভ্যারাইটিজ  স্টোর হতে দুইটি চাইনিজ তালা কিনে এনে ট্রাংকটি তালাবদ্ধ করে। এরপর রাতে লাশভর্তি ট্রাংকটি অপসারণের জন্য বিরল হাসপাতালের গেটের সামনে হতে একটি নীল রঙের ছোট পিকআপ ভ্যান ১৩ হাজার টাকায় ভাড়া করে নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার ওই স্থানে ফেলে আসে।

গত সোমবার রাতে বিরল উপজেলা শহরের ভাড়া বাসার তৃতীয় তলায় অভিযান চালিয়ে নিহত শিশুর বাবা, সতমা এবং নানাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এসময় তাদের ওই ভাড়া বাড়ি থেকে একটি ইলেক্ট্রিক ওয়াটার হিটার জব্দ করা হয়। যার মাধ্যমে জিহাদকে হত্যার পর পানি গরম করে মৃতদেহে ঢেলে দেওয়া হয়েছিল।

গত ১৬ জুলাই ওই লাশ উদ্ধার হলেও ২০ জুলাই মামলাটির তদন্তভার রংপুর পিবিআই গ্রহণ করে। এ ব্যাপারে রংপুর পিবিআই’র পুলিশ সুপার এবিএম জাকির হোসেন জানান, ক্লুলেস এই মামলায় আগে থেকে অনেক কিছু জানলেও নিশ্চিত হতে সময় লেগেছে। তদন্ত কাজ সম্পন্ন করে সোমবার রাতে প্রথমে নিহত শিশুর বাবা ও সতমাকে গ্রেপ্তারের পর তাদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী বাকিদের গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃতরা পিবিআই’র হেফাজতে রয়েছে উল্লেখ করে তিনি জানান, বুধবার সকালে তাদের আদালতে হাজির করা হবে।

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ