July 13, 2019, 6:42 am

শিরোনাম :
তাহিরপুরে বন্যা কবলিত ৫ শতাধিক পরিবারকে আওয়ামিলীগ নেতা নিজাম উদ্দিনের আর্থিক সহায়তা প্রদান গোয়াইনঘাটে বন্যার্তদের মাঝে চাল বিতরণ ১৪ বছরপর কারামুক্ত সেই জাহাঙ্গীরের হাতে কর্মসংস্থানে অনুদানের চেক তুলে দিলেন সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক বন্যা কবলিত ৬’শতাধিক পরিবারের মধ্যে শুকনো খাবার বিতরন করেন সুনামঞ্জ পুলিশ সুপার সন্ত্রাস মাদকের পক্ষে নৌকা মার্কায় ভোট দিন -উপজেলা চেয়ারম্যান সফিক পুন্ড্র মাল্টিমিডিয়ার আয়োজনে দেশীয় ফল উৎসব অনুষ্ঠিত পানির নীচে রাজারহাট মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠ তানোরে আদিবাসী সম্প্রদায়ের সাথে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত যশোরে এমবিবিএস ডাক্তার করলেন সিজার বেনাপোল কাস্টমস এর এনজিও কর্মী সাদ্দামসহ সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত-২

শেখ হাসিনার ট্রেনে গুলি: ৯ জনের মৃত্যুদণ্ড, ২৫ জনের যাবজ্জীবন

Spread the love

শেখ হাসিনার ট্রেনে গুলি: ৯ জনের মৃত্যুদণ্ড, ২৫ জনের যাবজ্জীবন

ডিটেকটিভ নিউজ ডেস্ক

পাবনার ঈশ্বরদীতে ১৯৯৪ সালে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও তৎকালীন বিরোধী দলের নেতা শেখ হাসিনার ট্রেনে গুলির মামলায় ৯ জনের ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন আদালত। গতকাল বুধবার বেলা ১১টা ৫৭ মিনিটে পাবনার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক রুস্তম আলী এ রায় ঘোষণা করেন। এ ছাড়া রায়ে ২৫ জনের যাবজ্জীবন, ১২ জনের ১০ বছর করে সশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দেওয়া হয়েছে। রাষ্ট্রপক্ষের সিনিয়র আইনজীবী গোলাম হাসনায়েন ও আহাদ বাবু বিষয়টি জানান। ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- মাহাবুবুর রহমান পলাশ, শামছুল আলম, মোখলেছুর রহমান বাব্লু, একেএম আখতারুজ্জামান, জাকারিয়া পিন্টু, মোস্তাফা নুরে আলম শ্যামল, শহিদুল ইসলাম অটল, শামসুজ্জামান ও মুজিবুর রহমান। গত সোমবার পাবনার অতিরিক্ত দায়রা জজ আদালত-১ এ মামলায় কারাগারে থাকা বিএনপির ৩০ নেতা-কর্মীর উপস্থিতিতে উভয়পক্ষের আইনজীবীরা তাদের যুক্তি তুলে ধরেন। উভয়পক্ষের বক্তব্য শুনে বিচারক রোস্তম আলী এ মামলার রায়ের জন্য গতকাল বুধবার দিন ধার্য করেন। এদিকে মামলার রায়ের আগে পলাতকদের মধ্যে হুকুমদাতাসহ আরও দু’জন গত মঙ্গলবার আত্মসমর্পণ করেন। তারা হলেন- ঈশ্বরদী পৌরসভার সাবেক মেয়র ও পৌর বিএনপির সাবেক সভাপতি মকলেছুর রহমান বাবলু এবং বিএনপি নেতা আবদুল হাকিম টেনু। পাবনার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ প্রথম আদালতের ভারপ্রাপ্ত বিচারক রুস্তম আলীর আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করলে তিনি জামিন নামঞ্জুর করে তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ১৯৯৪ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর খুলনা থেকে ট্রেনে ঈশ্বরদী হয়ে সৈয়দপুরের দলীয় কর্মসূচিতে যাচ্ছিলেন তৎকালীন বিরোধীদলের নেত্রী শেখ হাসিনা। তাকে বহনকারী ট্রেনটি ঈশ্বরদী রেলওয়ে জংশন স্টেশনে প্রবেশের মুহূর্তে ওই ট্রেন ও শেখ হাসিনার কামরা লক্ষ্য করে গুলি চালায় দুর্বৃত্তরা। স্টেশনে যাত্রাবিরতি করলে আবারও ট্রেনটিতে হামলা চালানো হয়। এ ঘটনায় পরবর্তীতে দলীয় কর্মসূচি সংক্ষিপ্ত করে শেখ হাসিনা দ্রুত ঈশ্বরদী ত্যাগ করেন। পরে ঈশ্বরদী রেলওয়ে জিআরপি থানার ওই সময়কার ওসি বাদী হয়ে তৎকালীন ছাত্রদল নেতা ও বর্তমানে ঈশ্বরদী পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জাকারিয়া পিন্টুসহ সাতজনকে আসামি করে মামলা করেন। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করার পর পুলিশ মামলাটি পুনঃতদন্ত করে। তদন্ত শেষে নতুনভাবে স্থানীয় বিএনপি, যুবদল ও ছাত্রদলের নেতাকর্মীসহ ৫২ জনকে এ মামলার আসামি করা হয়। এদিকে মামলা করার পর ওই বছর কোনো সাক্ষী না পেয়ে আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন জমা দেয় পুলিশ। কিন্তু আদালত ওই প্রতিবেদন গ্রহণ না করে অধিকতর তদন্তের জন্য তা সিআইডিতে পাঠান। পরে তদন্ত করে আদালতে চার্জশিট দাখিল করে সিআইডি।

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ