July 20, 2019, 6:45 am

শিরোনাম :
মোরেলগঞ্জে মসজিদের উন্নয়নে দশ লাখ টাকা দিলেন এমপি মোরেলগঞ্জে নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে শিক্ষক বদলির অভিযোগ উঠেছে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ভয়ঙ্কর সব অপরাধে জড়িত হাজার হাজার বিদেশী নাগরিক এদেশে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে আগে নিজেদের সচেতন হতে হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী দুর্নীতি দুর্নীতিই, এটা অন্যভাবে দেখার উপায় নেই: ওবায়দুল কাদের সংখ্যালঘুদের অধিকার রক্ষার পাশাপাশি উগ্রবাদ প্রতিরোধে সচেষ্ট বাংলাদেশ: পররাষ্ট্রমন্ত্রী বন্যার্ত কেউই সরকারি ত্রাণ থেকে বঞ্চিত হবে না: ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী বন্যা পরিস্থিতির অবনতি: শেরপুর-জামালপুর মহাসড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন গাইবান্ধায় হু হু করে বাড়ছে বন্যার পানি, নিহত ২ দেশের প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশেষায়িত ল্যাব হবে: আইসিটি প্রতিমন্ত্রী

রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধানের পথ খুলে দিক

Spread the love
রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধানের পথ খুলে দিক
নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠক
 
রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যরা বাংলাদেশের পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছে।
নিউইয়র্কে রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকের প্রাক্কালে ঢাকায় অবস্থিত নিরাপত্তা পরিষদের নয় সদস্য দেশের কূটনীতিকদের সঙ্গে গত বুধবার বৈঠকে বসেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।
বৈঠকে এ ইস্যুতে সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর সমর্থন চাওয়া হলে তাদের পক্ষ থেকে ইতিবাচক সাড়া দেওয়া হয়। জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের সদস্য সংখ্যা ১৫। ঢাকায় ছয়টি দেশের দূতাবাস না থাকায় তাদের এ বৈঠকে ডাকা হয়নি।
বৈঠকে নিরাপত্তা পরিষদের পাঁচ স্থায়ী সদস্য যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া, যুক্তরাজ্য, চীন ও ফ্রান্স এবং চার অস্থায়ী সদস্য মিসর, ইতালি, জাপান ও সুইডেনের রাষ্ট্রদূতরা যোগ দেন। স্মর্তব্য, বাংলাদেশ নিরাপত্তা পরিষদের সদস্য না হলেও রোহিঙ্গা সমস্যা নিয়ে আহৃত জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে বাংলাদেশকে অংশ নেওয়ার আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। ওই বৈঠকে বাংলাদেশের প্রতিনিধি রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া পাঁচ দফা প্রস্তাব উত্থাপন করবেন। জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্যরা ভেটো ক্ষমতার অধিকারী। কোনো প্রস্তাব মনঃপূত না হলে ভেটো ক্ষমতাসম্পন্ন যে কোনো দেশ তা নাকচ করে দিতে পারে। নিরাপত্তা পরিষদের পাঁচ সদস্যের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্সের অবস্থান বাংলাদেশের পক্ষে। চীন ও রাশিয়া মিয়ানমারের জঙ্গিবাদী তত্পরতা দমনে সে দেশের অবস্থানকে সমর্থন করে।
রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধানে এ দুই দেশের নমনীয় ভূমিকা বাংলাদেশের জন্য খুবই জরুরি। নিরাপত্তা পরিষদের বিতর্কে মিয়ানমারের ওপর চাপ বাড়াতে সব সদস্য একাট্টা হলে তা রোহিঙ্গাদের সসম্মানে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে অবদান রাখবে। চীন ও রাশিয়ার সঙ্গে বাংলাদেশের যেমন গভীর সম্পর্ক রয়েছে, তেমনি মিয়ানমারের সম্পর্কও ঘনিষ্ঠতর। মিয়ানমারে ওই দুই দেশের বিপুল বিনিয়োগ থাকায় তাদের পক্ষে সরাসরি মিয়ানমারের বিরোধিতা করা সম্ভব নয়। দুই দেশ যাতে রোহিঙ্গা ইস্যুতে ভেটো না দেয় তা নিশ্চিত করার জন্য বাংলাদেশ নানামুখী তত্পরতা চালাচ্ছে।   পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে নিরাপত্তা পরিষদভুক্ত দেশগুলোর কূটনীতিকদের আশ্বাসকে এক্ষেত্রে একটি বড় অর্জন হিসেবে দেখা হচ্ছে।
Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ