August 14, 2019, 5:05 am

শিরোনাম :
বিরামপুরে ডেঙ্গু প্রতিরোধে ২৪ ঘন্টায় কোরবানীর পশু’র বর্জ্য অপসারণ পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে হিলি সীমান্তে বিজিবি-বিএসএফ মিষ্টি বিনিমিয় বগুড়া সদরের ধলমোহিনী পুকুরে বিষ প্রয়োগে মাছ নিধন, ৪/৫ লক্ষ টাকার ক্ষতি সারিয়াকান্দি যমুনা নদীতে নৌকাডুবি ঘটনায় ২জনের মূত্যু নিখোঁজ আরো অনেকেই ইয়েমেনে ওয়ালটনের এসি রপ্তানি শুরু বাদামি ডিম কি বেশি স্বাস্থ্যকর? বিশ্বজুড়ে স্মার্টফোন বিক্রি কমছে চর্বিযুক্ত খাবার সুন্দর ত্বকের জন্য দৈনিক যুগান্তর পত্রিকার সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি ও দৈনিক আজকের সিরাজগঞ্জ পত্রিকার সম্পাদক, সিরাজগঞ্জ রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি মো. জেহাদুল ইসলামের ওপর হামলা তালায় ঘুমন্ত স্বামী এসিড দগ্ধ:স্ত্রীকে আসামীকে করে মামলা

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে জলবসন্তের প্রাদুর্ভাব

Spread the love

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে জলবসন্তের প্রাদুর্ভাব

ডিটেকটিভ নিউজ ডেস্ক

কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের মধ্যে বসন্ত রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। এ পর্যন্ত প্রায় ২০ হাজার রোহিঙ্গা রোগে আক্রান্ত হয়েছে। এলাকাবাসী জানায়, মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা ১১ লাখের বেশি রোহিঙ্গা উখিয়া ও টেকনাফের প্রায় ৩২টি ক্যাম্পে আশ্রয় নিয়েছে। এসব ক্যাম্পে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের মধ্যে এইডস, ডিপথেরিয়ার মতো মরণব্যাধি রয়েছে। এ ছাড়া হাম, যক্ষ্মাসহ নানা রোগেও আক্রান্ত হচ্ছে রোহিঙ্গারা। এবার নতুন করে ক্যাম্পে জলবসন্ত ছড়িয়ে পড়ছে। ছোঁয়াচে এই রোগ ভয়াবহ হতে পারে বলে আশঙ্কা করছে রোহিঙ্গারা। বালুখালী ক্যাম্পের ব্লক-৯-এর লালু মাঝি জানান, হঠাৎ করে ক্যাম্পের কয়েকটি ঘরে জলবসন্ত রোগ দেখা দেয়। পরে এই রোগ ১৫টি ঘরে ছড়িয়ে পড়ে। বসন্ত রোগ ছড়িয়ে পড়ার কারণে আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়ছে। আশঙ্কা করা হচ্ছে, বসন্ত রোগের প্রাদুর্ভাব ভয়াবহ হতে পারে। তবে কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের প্রভাষক ডা. জাহেদুল মোস্তফা জানান, বসন্ত রোগ নিয়ে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। এটি এখন মরণব্যাধি রোগ নয়। সামান্য চিকিৎসা আর সচেতন হলেই এ রোগ থেকে সহজে রেহাই পাওয়া যায়। এদিকে কক্সবাজারের সিভিল সার্জন ডা. মো. আবদুল মতিন জানান, গত ২২ ডিসেম্বর ক্যাম্পে প্রথম বসন্ত রোগ দেখা দেয়। এরপর থেকে এখন পর্যন্ত প্রায় ২০ হাজার রোহিঙ্গা বসন্ত রোগে আক্রান্ত হয়। তবে এর মধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছে অনেকে। এই রোগ নিয়ে আতঙ্ক না হতে সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করে চিকিৎসক বলেন, বসন্ত রোগে এ পর্যন্ত কারো মৃত্যু হয়নি। এ রোগ যাতে ছড়িয়ে না পড়ে, এজন্য সতর্ক থাকতে হবে। তিনি আরো বলেন, বসন্ত রোগ নিয়ন্ত্রণে ও রোগীদের সুস্থ করে তুলতে চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীরা কাজ করছেন। আগামি এক মাসের মধ্যে এ রোগ নিয়ন্ত্রণে আসবে বলে জানান তিনি।

ক্যাম্পের বাইরেও ছড়িয়েছে রোহিঙ্গারা: নির্ধারিত ক্যাম্প ছাড়িয়ে কয়েক হাজার রোহিঙ্গা কক্সবাজারের টেকনাফ ও উখিয়া উপজেলার ১০ ইউনিয়নেও অবস্থান করছে। গত বছর মার্চের শুরুতে জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক হাইকমিশনের (ইউএনএইচসিআর) দেওয়া হিসাব মতে, ক্যাম্পবহির্ভূত রোহিঙ্গারা সীমিত ছিল কেবলই টেকনাফের শামলাপুর, নয়াপাড়া, লেদা ও জাদিমুড়া এলাকায়। কিন্তু বর্তমান হিসাবে দেখা যায়, রোহিঙ্গারা টেকনাফ ও উখিয়ার ১১ ইউনিয়নের ১০টিতেই ছড়িয়ে পড়েছে। গত ৯ জানুয়ারি ইন্টার-সার্ভিস কো-অর্ডিনেশন গ্রুপ (আইসিএসজি) প্রকাশিত প্রতিবেদনের সর্বশেষ জরিপ মতে, হোস্ট কমিউনিটি তথা স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে মিলেমিশে বসবাসকারী রোহিঙ্গার সংখ্যা ৬ হাজার ৮২৭। পৃথক একটি ডাটাসেটে মিলেছে ছড়িয়ে পড়া এ রোহিঙ্গারা কোনো কোন এলাকায় বর্তমানে অবস্থান করছে। উপজেলা ও ইউনিয়ন হিসাবে দেখা যায়, কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের ১১ ইউনিয়নের ১০টিতেই রোহিঙ্গারা হোস্ট কমিউনিটিতে অবস্থান করছে। সংখ্যার বিচারে টেকনাফ উপজেলার পরিস্থিতি বেশি উদ্বেগজনক। হ্নিলা ইউনিয়নে রোহিঙ্গাদের ১২৮ পরিবার (সদস্য ), সাবরাংয়ে ৪৯৭ পরিবার (সদস্য ১৯৩৬), টেকনাফ পৌরসভায় ১২২ পরিবার (সদস্য ৫৪৯), হোয়াইকংয়ে ১১৬ পরিবার (সদস্য ৫১৪), টেকনাফ ইউনিয়নে ১৭০ পরিবার (সদস্য ৬৯০) ও বাহারছড়ায় ১৫ পরিবার (সদস্য ৬৫) স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে মিলিতভাবে বসবাস করছে। উপজেলার একটিমাত্র ইউনিয়নে রোহিঙ্গাদের আনুষ্ঠানিক উপস্থিতি নেই, তা হচ্ছে সেন্ট মার্টিনস। উখিয়া উপজেলার হিসাবে দেখা যায়, পাঁচ ইউনিয়নের সবক’টিতেই রোহিঙ্গাদের উপস্থিতি রয়েছে। হলদিয়া পালংয়ে রোহিঙ্গাদের ৩৬ পরিবার (সদস্য ১৫৮), জালিয়া পালংয়ে ২২৬ পরিবার (সদস্য ৯৮২ ), পালং খালিতে ১১৫ পরিবার (সদস্য ৫১৩), রাজা পালংয়ে ১৬১ পরিবার (সদস্য ৬৯৭ ) ও রতœা পালংয়ে ২৭ পরিবার (সদস্য ১৩৬) বাংলাদেশি পরিবারগুলোর সঙ্গেই অবস্থান করছে। রিফিউজি-রিলিফ রিপ্যাটরিয়েশন কমিশন (আরআরআরসি) ও ইউএনএইচসিআর তাদের জরিপ ‘লোকেশন অব রোহিঙ্গা রিফিউজি ইন কক্সবাজার’-এ উপরের এ উপাত্ত দিয়ে বলেছে, ১২ ডিসেম্বর ২০১৮ পর্যন্ত তথ্য তাদের প্রতিবেদনে এসেছে। ক্যাম্পে লাখ লাখ রোহিঙ্গা, বাইরেও হাজার হাজার- স্থানীয় বাসিন্দারা তাদের কীভাবে দেখছে? এ প্রশ্নের উত্তর বেরিয়ে এসেছে রোহিঙ্গাদের নিয়ে কর্মরত এনজিওগুলোর পরিচালিত জরিপে। আশ্রিত রোহিঙ্গাদের সার্বিক ত্রাণ কার্যক্রম সমন্বয়ের জন্য গঠিত ইন্টার-সার্ভিস কো-অর্ডিনেশন গ্রুপ (আইসিএসজি) চলতি সপ্তাহেই প্রকাশ করেছে মাল্টি-সেক্টরাল নিডস অ্যাসেসমেন্ট ইন হোস্ট কমিউনিটিজ- প্রিলিমিনারি ফাইন্ডিংস শিরোনামের একটি বিশদ প্রকাশনা। রোহিঙ্গাদের এ অনিবার্য উপস্থিতি কক্সাবাজারের ব্যাপক সংখ্যক বাসিন্দার নিরাপত্তা, পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে তাদের কী কী প্রয়োজন এসব চিহ্নিত করার চেষ্টা করা হয়েছে প্রতিবেদনে। জরিপ চালিয়ে তারা বোঝার চেষ্টা করেছে রোহিঙ্গাদের প্রতি স্থানীয় বাসিন্দাদের মনোভাবও। রোহিঙ্গারা যেহেতু একা আসেনি, বাংলাদেশের মানুষের জন্য তারা নিয়ে এসেছে নানা সমস্যাও। স্থানীয় বাসিন্দাদের অনেকেই যে তাদের সর্বান্তকরণে মেনে নেয়নি তা যথার্থভাবেই ধরা পড়েছে প্রতিবেদনে। জরিপে অংশ নেওয়া বাংলাদেশিদের একজনও বলেনি তারা রোহিঙ্গাদের খুব বেশি পছন্দ করে। উখিয়ার ২০ শতাংশ বাসিন্দা বলেছে, রোহিঙ্গাদের কারণে তারা খুবই অসুখী। টেকনাফে এ হার ১৪ শতাংশ। রোহিঙ্গাদের কারণে অসুখী- এ জবাব দিয়েছে উখিয়া ও টেকনাফ দুই উপজেলারই ৩০ শতাংশ উত্তরদাতা। রোহিঙ্গাদের পেয়ে সুখী- এ উত্তর দিয়েছে উখিয়ার ১২ ও টেকনাফের ১৬ শতাংশ উত্তরদাতা। সুখী বা অসুখী কোনোটাই নয়- এমন উত্তরদাতা এসেছে উখিয়ায় ৩৮ এবং টেকনাফে ৪০ শতাংশ। গত বছর ভয়াল ডিপথেরিয়া যখন ছড়িয়ে পড়ে রোহিঙ্গা শিবিরে, তখন বাদ যায় নি আশপাশের বাংলাদেশিরাও। গত ৩১ জানুয়ারি বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা প্রকাশিত বুলেটিন মতে, স্থানীয় বাংলাদেশিদের মধ্যে ২০২ ডিপথেরিয়া কেইস-পেশেন্ট পাওয়া যায়। তাদের মধ্যে ৩০ জনের মধ্যে নিশ্চিতভাবে পিসিআর পাওয়া যায়। ৬৩ জনের ক্ষেত্রে বলা হয় মোটামুটিভাবে নিশ্চিত যে তাদের ডিপথেরিয়া হয়েছে। ১০৯ জনকে সন্দেহের তালিকায় রাখা হয়। ডিপথেরিয়ায় বেশ কিছু রোহিঙ্গার মৃত্যু ঘটলেও স্থানীয় কোনো রোগীর এতে প্রাণহানি হয়নি বলে জানানো হয় বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিবেদনটিতে। মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে আসা রোহিঙ্গাদের নিয়ে ত্রাণ সংস্থাগুলোর শেষ হিসাবটি এ রকম। ২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের পর মোট রোহিঙ্গা এসেছে ৯ লাখ ৯ হাজার ২০৭। কুতুপালং ও বালুখালি বর্ধিত ক্যাম্পে রয়েছে ৬ লাখ ২৮ হাজার ৫৪৬ জন। অন্যান্য ক্যাম্পে রয়েছে ২ লাখ ৭৩ হাজার ৮৩৪ জন রোহিঙ্গা। এর বাইরে ৬ হাজার ৮২৭ রোহিঙ্গা অবস্থান করছে, তাদের ভাষায় হোস্ট কমিউনিটি তথা কক্সবাজারের স্থানীয় বাংলাদেশি সমাজের সঙ্গে।

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ