August 21, 2019, 4:55 pm

রুবেল বিশ্বকাপ স্মরণীয় করার আশায়

Spread the love

রুবেল বিশ্বকাপ স্মরণীয় করার আশায়

ডিটেকটিভ স্পোর্টস ডেস্ক

 

গত বিশ্বকাপে রুবেল হোসেনের অনন্য বোলিংয়ে ইংল্যান্ডকে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছিল বাংলাদেশ। পেন্ডুলামের মতো দুলতে থাকা ম্যাচে লক্ষ্যভেদী ইয়র্ককারে স্টুয়ার্ট ব্রড, অ্যান্ডারসনকে বোল্ড করে অসাধারণ জয় এনে দেন ডানহাতি এই পেসার। যা অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডে অনুষ্ঠিত ২০১৫ বিশ্বকাপে বাংলাদেশের সাফল্যের ‘ট্রেডমার্ক’ ছবি হয়ে আছে এখনো।

আসন্ন বিশ্বকাপেও বাংলাদেশ দলে আছেন রুবেল। অভিজ্ঞ এই পেসার বল হাতে এবারও স্মরণীয় করতে চান বিশ্বকাপ। ইংল্যান্ডের কন্ডিশনে বিশ্বকাপে বোলারদের চ্যালেঞ্জটাই বেশি দেখছেন তিনি। তবে অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে নিজের সেরাটা নিংড়ে দেয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন দ্রæতগতির এই পেসার। সাইড স্ট্রেইনের কারণে প্রিমিয়ার লিগে খেলতে পারছেন না রুবেল। রিহ্যাব চলছে তার।

গতকাল মিরপুর স্টেডিয়ামে বিশ্বকাপ নিয়ে নিজের পরিকল্পনা সম্পর্কে ২৯ বছর বয়সী এই পেসার বলেছেন, ‘মানুষের জীবনে ভালো এবং খারাপ সময় থাকে। তবে আলহামদুলিল্লাহ এই বিশ্বকাপটি যেন স্মরণীয় হয়ে থাকে সেটাই আমার চাওয়া। আমি আপ্রাণ চেষ্টা করবো যেন বিশ্বকাপে যখন ম্যাচ খেলার সুযোগ পাবো। ম্যাচটিতে যেন আমি ভালো বোলিং করতে পারি, দলের জন্য যেন ভালো কিছু করতে পারি।’রুবেলের এটি হবে তৃতীয় বিশ্বকাপ। প্রায় ১০ বছর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে খেলার অভিজ্ঞতা কাজে লাগাতে এবং বোলিংয়ে নিজের দায়িত্ব মেটাতে প্রস্তুত তিনি। টুর্নামেন্টের সেরা বোলারের তালিকায় নিজের নাম দেখতে চান বাংলাদেশের এই পেসার। তিনি বলেছেন, ‘আমি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অনেকদিন থেকে খেলছি। অবশ্যই আমার স্বপ্ন থাকবে বিশ্বকাপে পাঁচজনের মধ্যে থাকতে পারি।’

বিশ্বকাপে বোলারদের চ্যালেঞ্জ দেখছেন রুবেল। গতকাল তিনি বলেছেন, ‘এটি বোলারদের জন্য চ্যালেঞ্জিং। আমাদের এই ধরনের কন্ডিশনে কিভাবে বোলিং করতে হবে, কিভাবে ব্রেক থ্রো নিয়ে আসতে হবে সেটা জানতে হবে, আর আমরা বোলাররা যদি একটি দলকে কম রানের ভেতরে বা উইকেট অনুযায়ী ভালো একটি রান ব্যাটসম্যানদের জন্য দিতে পারি তাহলে সেটি ভালো হবে।’

ইংলিশ কন্ডিশনে বোলিংয়ের অভিজ্ঞতাও সাহায্য করবে রুবেলকে। তিনি বলেছেন, ‘ইংল্যান্ডের কন্ডিশনে আসলে আমরা অনেক খেলেছি। আমরা খুব ভালোভাবেই জানি যে ওখানকার কন্ডিশনে আমাদের কি করতে হবে, বিশেষ করে বোলারদের। কারণ ঐ ধরনের কন্ডিশনে কিছুকিছু উইকেট থাকে যেখানে বোলারদের হেল্প থাকে, আবার কিছু উইকেট ব্যাটিং সহায়ক থাকে। আসলে আমাদের সেটি মানিয়ে নিতে হবে।’

বাংলাদেশের পেস আক্রমণে তাসকিন আহমেদ না থাকায় দ্রæতগতির বোলার মূলত রুবেল। মাশরাফি, মুস্তাফিজ, সাইফউদ্দিন, আবু জায়েদ রাহীদের পেস খুব বেশি নয়। রুবেলও বলছেন ইংল্যান্ডে গতিময় পেসার দরকার হবে। গতকাল তিনি বলেছেন, ‘ঐ ধরনের কন্ডিশনে জোরে বোলিং করা একটি বড় বিষয়। কারণ জোরে বোলার দরকার হয়। তবে আমি নিজের কাছে নিজেই চ্যালেঞ্জ হিসেবে নেই সবসময়।’

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ