October 15, 2019, 7:03 pm

রাশিয়ার মধ্যস্থতায় আলোচনায় অংশ নিতে অস্বীকৃতি সিরিয়ার বিদ্রোহীদের

Spread the love

রাশিয়ার মধ্যস্থতায় আলোচনায় অংশ নিতে অস্বীকৃতি সিরিয়ার বিদ্রোহীদের

ডিটেকটিভ আন্তর্জাতিক ডেস্ক

সিরীয় সংকট নিরসনে রাশিয়ার মধ্যস্থতায় আলোচনার জন্য আসন্ন সোচি সম্মেলনে অংশ নিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে সিরিয়ার বিদ্রোহী সংগঠনগুলো। তাদের অভিযোগ, রাশিয়া জাতিসংঘ সমর্থিত জেনেভা শান্তি প্রক্রিয়াকে উপেক্ষা করছে। দেশটি সিরিয়ায় যুদ্ধাপরাধ করছে বলেও অভিযোগ তাদের। সিরিয়ার প্রায় ৪০টি বিদ্রোহী সংগঠনের পক্ষ থেকে দেওয়া এক বিবৃতিতে উদ্ধৃত করে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স খবরটি জানিয়েছে। আগামী ২৯-৩০ জানুয়ারি রাশিয়ার ব্ল্যাক সী রিসোর্টে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে সোচি সম্মেলন। সম্মেলনে ওই সম্মেলনে তুরস্ক ও ইরানের সমর্থন নিয়ে সিরিয়া সংক্রান্ত একটি সংলাপের প্রস্তাব দেয় রাশিয়া। অবশ্য, সিরিয়ার সরকারবিরোধী পক্ষ আগেই জানিয়েছিল, সোচি সম্মেলনের আলোচ্যসুচি নিয়ে তাদের আগ্রহ নেই। সিরিয়ায় রাজনৈতিক রূপান্তর আনার পরিকল্পনা,সিরিয়ার শরণার্থীদের ফেরা নিশ্চিত করা এবং সরকার নিয়ন্ত্রিত কারাগারে বন্দিদের প্রসঙ্গ যুক্ত করে যদি আলোচ্যসূচি নির্ধারণ করা হয়,তবেই কেবল তারা সোচি সম্মেলনে যোগ দেবে বলে জানানো হয়েছিল। গত সোমবার সিরিয়ার প্রায় ৪০টি বিদ্রোহী সংগঠন এক বিবৃতির মধ্য দিয়ে ওই আলোচনা প্রত্যাখ্যানের ঘোষণা দেয়। যারা বিবৃতিটি দিয়েছে তাদের কেউ কেউ আবার জেনেভা শান্তি আলোচনায়ও অংশ নিয়েছিল। তাদের দাবি, সংকটের রাজনৈতিক সমাধানের জন্য মস্কো সিরিয়ার সরকারকে চাপ দিচ্ছে না। সিরিয়ায় সাত বছর ধরে চলা গৃহযুদ্ধের অবসানে বেশ কয়েক দফায় সরকার ও বিরোধীদের মধ্যে আলোচনার পরও কোনও সমাধানে পৌঁছানো যায়নি। জাতিসংঘের মধ্যস্ততায় এরইমধ্যে কয়েক দফা আলোচনা হলেও সবগুলোই ব্যর্থতায় পর্যবসিত হয়। অন্তর্বর্তী সরকারে সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদের ভবিষ্যত ভূমিকা কী হবে তা নিয়ে মতানৈক্য থাকায় বিরোধীরা গত কয়েক মাসে ফলপ্রসূ আলোচনার সক্ষমতা হারিয়ে ফেলেছিল। তবে অক্টোবর-নভেম্বর মাসে আবারও শান্তি আলোচনা শুরু করার ব্যাপারে গত আগস্টে আশাবাদ প্রকাশ করেছিল জাতিসংঘ। সেই অনুযায়ী, গত ২৮ নভেম্বর থেকে আবারও বৈঠক শুরু হয়েছে। আগামি ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত চলবে এই জেনেভা আলোচনা। বিবৃতিতে বলা হয়, ‘সিরীয়দের ভোগান্তি দূর করার জন্য সামান্যতম পদক্ষেপও নেয়নি রাশিয়া। যেকোনও বাস্তব সমাধানের পথে নিজেদের জামিনদার দাবিকারী এই দেশটি সিরিয়ার সরকারকে চাপ দেয়নি। সিরিয়ায় সাত বছর ধরে চলা গৃহযুদ্ধের অবসানে বেশ কয়েক দফায় সরকার ও বিরোধীদের মধ্যে আলোচনার পরও কোনও সমাধানে পৌঁছানো যায়নি। জাতিসংঘের মধ্যস্ততায় এরইমধ্যে কয়েক দফা আলোচনা হলেও সবগুলোই ব্যর্থতায় পর্যবসিত হয়। অন্তর্বর্তী সরকারে সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদের ভবিষ্যত ভূমিকা কী হবে তা নিয়ে মতানৈক্য থাকায় কোনও আলোচনা সফলতার মুখ দেখেনি। বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ‘রাশিয়া একটি আগ্রাসী দেশ যেটি সিরীয়দের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধ সংঘটন করেছে। এটি সামরিকভাবে সরকারপক্ষের পাশে দাঁড়িয়েছে এবং রাজনৈতিকভাবে সমর্থন দিয়েছে। সাত বছরেরও বেশি সময় ধরে দেশটি (রাশিয়া) সিরীয় প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদ সরকারের বিরুদ্ধে জাতিসংঘের নিন্দাকেও প্রতিরোধ করে আসছে।’

 

 

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ