September 17, 2019, 2:11 am

প্রতিকি ছবি

রামপালে গ্রামীন রাস্তা নির্মানে দুই পক্ষের মত বিরোধ

Spread the love

শেখ মোঃ নাজমুল হুদা,রামপাল(বাগেরহাট) প্রতিনিধিঃ

প্রতিকি ছবি

রামপাল উপজেলায় একটি গ্রামীন রাস্তা নির্মান কে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের মধ্যে মত বিরোধ তৈরী হয়েছে। রাস্তাটি একটি পক্ষ বন্ধ করে দেওয়ার হুমকি দিয়েছে। স্থানীয় লোকজন বলছে প্রায় ২শ বছরের ওই পুরাতন রাস্তাটি বন্ধ করে দিলে অন্তত ১৫/২০ টি পরিবারের লোকজনের চলাচল বন্ধ হয়ে যেতে পারে। এ নিয়ে আদালতে একটি মামলাও হয়েছে।অভিযোগ সূত্রে ইউপি চেয়ারম্যান ও স্থানীয় লোকজনের সাথে কথা বলে জানাগেছে উপজেলার বাইনতলা ইউনিয়নের বারুইপাড়া মৌজায় প্রায় ২শত বছরের একটি পুরাতন রাস্তাদিয়ে লোকজন আশা যাওয়া করছেন। ওই এলাকার নাসির উদ্দিন গাজীর অভিযোগ স্থানীয় জাহিদ মীর সহ অন্যরা তার জমির মধ্য বালি ভরাট করে রাস্তা নির্মান করেছে। বাধা দিলেও তা মানা হয়নি। নাসির গাজীর আভিযোগ ২৩১০ দাগের উপর রাস্তা করা হলেও ওই দাগে তাদের ৫ শতক জমি রয়েছে। ওই জমির মধ্য দিয়ে উত্তর দক্ষিন লম্বা লম্বি বালি ভরাট করে রাস্তা নির্র্মান করা হয়েছে। স্থানীয় বেশ কয়েকজন বয়োজষ্ঠ্যে ব্যক্তি সাথে কথা বললে তারা জানান অনেক আগে এলাকার মুরব্বীরা জমি এ্যায়াজ বদল করে ওই রাস্তা করেন। সেই থেকে প্রায় ২শ বছর ধরে এই রাস্তা দিয়ে লোকজন চলাচল করছে। অভিযোগের ভিত্তিতে সরেজমিনে ঘুরে দেখে গেছে পাশে সরকারী রেকর্ডীয় রাস্তা থাকলেও তা কয়েকজন প্রভাবশালী ব্যক্তি দখলে নিয়ে ভোগ দখল করে রেখেছেন। স্থানীয় জাহিদমীর নামের এক ব্যক্তি উদ্যোগী হয়ে ২শ বছরের ওই পুরাতন রাস্তাটি সংস্কারের উদ্যোগ নিয়ে ইউ.পি চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ ফকির সরকারী বরাদ্দে ওই রাস্তায় বালি ভরাট করে চলাচলের উপযোগী করে দেয়। লোকজন এখন ওই রাস্তাদিয়ে সহজেই চলাচল করছে। এব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ ফকিরের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন প্রায় ২শ বছরের ওই রাস্তা দিয়ে মানুষ চলাচল করে। আমি খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়রের নির্দেশে বালি ভরাট করে দিয়েছি। এখন নাসির গাজি রাস্তার ওই জায়গা তাদের দাবী করে বাধা দিচ্ছে। স্থানীয় লোকজন জানান ওই রাস্তা নতুন করে নির্মান করা হয়নি। পুরাতন রাস্তা সংস্কার করা হয়েছে। অভিযোগকারী নাসির গাজীর দাবী রেকর্ডীয় রাস্তা থাকলেও তা বেদখল হয়ে যাওয়ায় জোর করে আমার জায়গা দিয়ে রাস্তা করা হচ্ছে। তিনি আরও বলেন আমি এ নিয়ে আদালত এবং উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) এর কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছি। এব্যাপারে জাহিদ মীরের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন ওই জায়গা আমাদের পৈত্রিক জায়গা যা আমরা দীর্ঘদিন ভোগ দখলে আছি।

প্রাইভেট ডিটেকটিভ/২৯ মার্চ ২০১৯/ইকবাল

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ