October 14, 2019, 12:48 am

রাজশাহীর তানোরে পুলিশের সহযোগীতায় চুরি যাওয়া ৪টি গরুর মধ্যে ২টি গরু উদ্ধার আটক -১

Spread the love

আব্দুর রাজ্জাক রাজু, (রাজশাহী) তানোর প্রতিনিধি :

রাজশাহীর তানোর থানা পুলিশের সহযোগীতায় চুরি যাওয়া ৪টি গরুর মধ্যে ২টি গরু উদ্ধার করা হয়েছে। থানায় দায়ের করা বাদীর অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, তানোর থানাধীন পাঁচন্দর উত্তরপাড়া গ্রামের মৃত: ছমির উদ্দিনের ছেলে বাদী মোঃ আয়েস উদ্দিন এর বাড়ির গোয়াল ঘরের পেলেনসিটির তৈরি দরজার লোহার বালা কেটে গত ২১শে সেপ্টেম্বর ২০১৯ইং গভীর রাত্রে ৪টি গরু চুরি হয়ে যায়। চুরির পরে আয়েস উদ্দিন বিভিন্ন ভাবে গরু গুলো খোঁজাখুজি করেন এবং স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনকে মৌখিক ভাবে জানিয়ে রাখেন।

তার ওই ধারাবাহিকতায় গত সোমবার ৩০শে সেপ্টেম্বর ২০১৯ইং মুন্ডুমালা পশুর হাটে গিয়েও গরুর খোঁজখবর নিতে থাকেন। একপর্যায়ে বেলা আনুমানিক সাড়ে ৪টার দিকে পশুর হাটে চুরি যাওয়া একটি গরু বিক্রি করতে দেখা যায় এবং সেই ব্যাক্তির নাম ঠিকানা জিজ্ঞাসা করা হয়। সে তাহার নাম মোঃ মুকুল (৪৫) পিতা- মৃত: জাবের মিস্ত্রী গ্রাম- রাজারামপুর চাতরা, থানা- গোদাগাড়ী, জেলা- রাজশাহী বলে জানায়। তখন মুন্ডুমালা পশুর হাটে ডিউটিরত পুলিশ এসে মুকুলকে জিজ্ঞেস করলে সে হাটে উপস্থিত লোকজনের সামনে জানায়, গরুটি ২৯শে সেপ্টেম্বর ২০১৯ইং রাজশাহীর সিটির হাট থেকে ক্রয় করেছে। আরো জানায় ক্রয়কৃত ব্যাক্তির কাছে আরো গরু আছে, এরপর মুকুলের নিকট থেকে প্রাপ্ত গরুটি ডিউটিরত পুলিশ তাদের হেফাজতে গ্রহণ করে। তারপরে অন্যান্য পুলিশ সদস্যগন মুকুলকে সাথে নিয়ে চোরাই গরু বিক্রেতা মামলায় বর্নিত অভিযুক্ত আসামী মোঃ তমির উদ্দিন (৫০) পিতা- মৃত: সমসের আলী, গ্রাম- তেতুলিয়াডাঙ্গা নগরপাড়া, থানা- কর্ণহার, জেলা- রাজশাহী এর বাড়িতে অভিযান চালায়। অভিযানে তার বসত বাড়ীর গোয়াল ঘর থেকে স্থানীয় লোকজনের সামনে ১টি গরু উদ্ধার করেন। উদ্ধারকৃত গরু ও মুন্ডুমালা পশুহাট থেকে আটোকৃত দুটি গরুর ব্যাপারে উপস্থিত ব্যাক্তিদের সামনে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে পুলিশের নিকট গরু গুলোর বিষয়ে কোন সন্তোষজনক উত্তর দিতে পারেনি।

পরবর্তীতে অবশিষ্ট চুরি যাওয়া আরো দুই’টি গরু উদ্ধারের জন্য বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুজি করে কিন্তু গরু ২টির কোন খোজ পাওয়া যায়নি। এদিকে মুন্ডুমালা পশুর হাটে গরু বিক্রেতা মুকুলের ব্যাপারে পুলিশ প্রশাসন ও আয়েস উদ্দিন বিভিন্ন মাধ্যমে অনুসন্ধান করে বুঝতে পারেন সে প্রকৃতপক্ষে একজন গরু ব্যাবসায়ী। তিনি সত্যিকার অর্থেই গরুটি সিটির হাটে কিনেছেন তাই মুকুলের বিরুদ্ধে বাদী কোন প্রকার অভিযোগ করেন নাই, বরং মুকুলকে উক্ত অভিযোগে ৩ নং সাক্ষী করেন।

এবিষয়ে তানোর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) খায়রুল ইসলাম বলেন, গরু ৪টি হারানোর ব্যাপারে পূর্বে লিখিত কোন অভিযোগ পাইনি তারা মৌখিক ভাবে আমাদের জানিয়ে ছিল। তার প্রেক্ষিতেই সোমবার মুন্ডুমালা পশুর হাটে একটি গরু আটোক করা হয় এবং ওই ব্যাক্তির দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে কর্ণহার থানাধীন এলাকা থেকে আরো একটি গরু উদ্ধার করা হয়েছে। মঙ্গলবার ১ অক্টোবর সন্ধার দিকে আমি লিখিত অভিযোগটি পেয়েছি, বাদি সেখানে ৩ জন সাক্ষীর মাধ্যমে ১ জনকে আসামী করেন ও অজ্ঞাত আসামীও রয়েছে। আমরা ২টি গরু উদ্ধার করেছি, অবশিষ্ট ২টি গরু উদ্ধারের চেষ্টাও চলছে। আটককৃত আসামীকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে এবং এর সাথে আর কারা জড়িত আছে সে ব্যাপারেও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ