February 20, 2020, 8:23 am

শিরোনাম :
সিরাজগঞ্জে রাস্তার কাজে অনিয়মের সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে ঠিকাদারের সন্ত্রাসী বাহিনীর হামলায় ৫ সাংবাদিক আহত মোবাইল অপারেটর গ্রামীণফোনের ১০০ কোটি টাকা নেয়নি বিটিআরসি দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে পুলিশের সাথে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই ডাকাত সদস্য নিহত বিডি ক্লিন মৌলভীবাজারে উদ্যোগে ‘ক্লিন ক্যাম্পাস , গ্রীন ক্যাম্পাস’ প্রতিযোগীতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান চসিক নির্বাচনে নগরীর ২৩ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন বতর্মান কাউন্সিলর মোহাম্মদ জাবেদ সেই ১০০০ বছর পর এলো চোখ ধাঁধানো তারিখ মান্না-শাকিব দুজনই অমানুষিক পরিশ্রম করেছেন-সাদেক বাচ্চু ভারতের তামিলনাড়ু রাজ্যের কোয়েম্বাটুরে বাস-ট্রাকের সংঘর্ষে কমপক্ষে ১৮ জন যাত্রী নিহত শেষ হচ্ছে ব্রিটিশ রাজপরিবারের সদস্য প্রিন্স হ্যারি -মেগান মার্কেল রাজকীয় জীবন যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জিতলে নিজের কোম্পানি বিক্রি করবেন মাইকেল ব্লুমবার্গ

রংপুরের পীরগঞ্জে শ্বশুরবাড়িতে জামাই হত্যা-পরকীয়ার বলি হারুন ফকির

Spread the love

রংপুরের পীরগঞ্জে শ্বশুরবাড়িতে জামাই হত্যা-পরকীয়ার বলি হারুন ফকির
পীরগঞ্জ, রংপুর, প্রতিনিধি


রংপুরের পীরগঞ্জ ১৩ নং রামনাথপুর ইউনিয়নে বড মজিদপুর এলাকায়  হত্যা করে হারুন ফকির (৩৮) নামের এক ব্যক্তি কে কাঁঠাল গাছের সাথে ঝুলিয়ে  রাখা হয়েছে।
প্রতিবেশী সূত্রে জানা গেছে হারুন ফকির এর স্ত্রী হাসনা বেগম (৩০) পিতা আবুল হোসেন, গ্রাম বড মজিদপুর পীরগঞ্জ রংপুর। বিগত প্রায় দু’বছর আগে অন্য কোন এক ছেলের সাথে দুই সন্তানের জননী থাকা অবস্থায় পালিয়ে গিয়েছিল।  পরবর্তীতে ভুল স্বীকার করে ক্ষমা চেয়ে আবার হারুন ফকির এর সংসার করতে থাকে । পরে আরো এক সন্তানের জননী হবার পর আবারো একই ভাবে  গত ২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯ সকলের অজান্তে স্বামী হারুন ফকির এর বাড়ি গাইবান্ধা জেলার সাদুল্লাপুর থানাধীন ধাপের হাট এলাকার হিঙ্গারপাড়া গ্রাম থেকে, চাচাতো ভাই নাহিদ এর সাথে রাতের আঁধারে হাসনা বেগম পালিয়ে যায়।
অনেক খোঁজাখুঁজি করার পর  হাসনা বেগমের স্বামী জানতে পারে, তার স্ত্রী পিত্রালয়ে অবস্থান করছে। এ বিষয়ে ফোনে শ্বশুরবাড়ির  লোকজনের সাথে কথা হয় হারুন ফকির এর। এক পর্যায়ে শ্বশুরবাড়ির  লোকজন এবং হাসনা বেগমের চাচাতো ভাই নাহিদ হারুন ফকিরকে তার শ্বশুর বাড়িতে আসতে বলে, তার স্ত্রীর সাথে বিবাদের মীমাংসা শেষে তার সাথে পাঠিয়ে দিবে।
এমন আশ্বাসের প্রেক্ষিতে হারুন ফকির ৩০সেপ্টেম্বর, শ্বশুর বাড়িতে যায়। এলাকাবাসীর ধারণা রাতে সম্ভবত হারুনের সাথে ঝগড়াঝাঁটির একপর্যায়ে হাসনা বেগমের পরিবারের লোকজন হারুনকে মার ডাং করলে সেখানেই হারুনের মৃত্যু ঘটে, পরে নিজেরা বাঁচার জন্য ফাঁসিতে ঝুলে মারা গেছে কিংবা আত্মহত্যা করেছে বলে চালিয়ে দেওয়ার জন্য বাড়ির পিছনে একটি আম গাছে গলায় গামছা দিয়ে বেঁধে ঝুলিয়ে রাখে। প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ জানায় লাশের গায়ে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।
মরদেহ উদ্ধার এর বিষয়টি নিশ্চিত করেন পীরগঞ্জ থানার পুলিশ পরিদর্শক(তদন্ত) মাসুমুর রহমান, তিনি বলেন প্রাথমিকভাবে লাশের গায়ে আঘাতের চিহ্ন দেখে মনে হচ্ছে তাকে হত্যা করা হয়েছে, তবে পোস্টমর্টেম রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত নিশ্চিত করে কিছু বলা যাচ্ছে না, তিনি আরো বলেন জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হারুন ফকির এর শ্বশুর আবুল হোসেন ও স্ত্রী হাসনা বেগম কে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মামলার প্রস্তুতি চলছে। হারুন ফকির এর বাড়ি গাইবান্ধা জেলার সাদুল্লাপুর থানার ধাপের হাট এলাকার হিংগারপাড়া গ্রামে। তার পিতার নাম এমাত উদ্দিন। হারুন ফকির একজন কাঁচামাল ব্যবসায়ী সে রংপুর ধাপের হাট ও গাইবান্ধা থেকে ট্রাক বোঝাই করে কাঁচামাল ঢাকার উদ্দেশ্যে পাঠাতো।

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ