May 26, 2020, 2:15 am

শিরোনাম :
হাফিজ আখতারকে অভিনন্দন জানাতে তার বাড়িতে ভাইস চেয়ারম্যান কয়েছ ঈদের দিন ও করোনার ক্লান্তিলগ্নে কাউন্সিলর প্রার্থী রাসেদের সেবা কার্যক্রম অব‍্যাহত আখাউড়া থানার উপ-পুলিশ পরিদর্শক এসআই তাজুল ইসলাম আখাউড়া বাসীসহ বাংলাদেশের সর্বস্তরের মানুষকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ঈদের দিনে করোনায় আক্রান্ত হয়ে দেশে মৃত্যুর সংখ্যা ৫০০ ছাড়াল অভিনেতা আজম খানের আটটি নাটক এবার ঈদে প্রচারিত হচ্ছে ঈদে আনন্দ করুন ঘরে বসেই-প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কক্সবাজারে চার রোহিঙ্গাসহ আরো ৪৯ জনের করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত আখাউড়ায় নিরীহ অসহায় ও ভাসমান মানুষের মাঝে সাধ্যমত ঈদ সামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছেন স্বেচ্ছাসেবী সাথী আক্তার পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষে ঈদের শুভেচ্ছা জানান ক্রাইম পেট্রোল বিডি ভৈরব জোনাল অফিস পরিচালক মোঃ সিজান খাঁন সোহাগ

মৌলভীবাজার শেরপুরে মানা হচ্ছে না নির্দেশনা,মার্কেটে উপচে পড়া ভিড়

Spread the love
রিপন মিয়া,মৌলভীবাজার সদর প্রতিনিধিঃ
মৌলভীবাজার সদর উপজেলার শেরপুরে সীমিত আকারে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও শপিং মলগুলো গত  ১০ মে থেকে খোলা হয়েছে। মার্কেট খোলার সঙ্গে সঙ্গে উপচে পড়া ভিড় দেখা গেছে। কিন্তু ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের অধিকাংশই স্বাস্থ্যবিধি মানছে না। ফলে স্বাস্থ্য ঝুঁকি নিয়েই কেনাকাটা করছেন লোকজন। সরেজমিনে দেখা গেছে, সীমিত পরিসরে মার্কেট খোলার পর মার্কেট, বিপণি বিতান এমনকি অলিগলিতে উপচে পড়া ভিড় দেখা গেছে।  এত মানুষের ভিড়ে আতঙ্ক ও উৎকণ্ঠার মধ্যে রয়েছে সচেতন মহল। গত কিছুদিন যাবত এ বিষয়ে ফেইসবুকে বিভিন্ন ধরনের পোস্টের মাধ্যমে প্রতিবাদ করা হচ্ছে , তাদের দাবি, এভাবে ঘর থেকে মানুষ বের হয়ে সামাজিক দূরত্ব আর স্বাস্থ্যবিধি পরিপন্থীভাবে চললে করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে করোনা আক্রান্তের পাল্লাও ভারী হবে। জায়গায় জায়গায় সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতে পুলিশ, সেনাবাহিনী টহল থাকলেও সাধারণ মানুষ তা মানছেন না।বিশেষজ্ঞদের মতে মে মাস করোনা আক্রান্তের জন্য পিক টাইম। আর জুন থেকে এটা ধীরে ধীরে কমতে থাকবে।  আরও যদি একমাস দেশে লকডাউন থাকতো তাহলে প্রাথমিকভাবে এই ভয়াবহতা বা বিপর্যয় থেকে আমরা কাটিয়ে উঠতে পারতাম। কিন্তু এখন যে পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। লকডাউন যখন ছিল তখনই সেটাই মানুষ পালন করেছে শিথিলভাবে। আর এখন লকডাউন শিথিল করা হয়েছে তাতে মানুষ যেভাবে চলছে তাতে মনে হচ্ছে করোনা একটি গুজব।আর একটি মাস লকডাউন থাকলে আমরা সুফলটা পেতাম।স্থানীয় বাসিন্দা ও নাম প্রকাশে অনেকেই  বলেন,  ‘লকডাউন শিথিল করার মানে স্বেচ্ছায় মৃত্যুকে ডেকে নিয়ে আসা। কারণ এমনিতেই সাধারণ মানুষ সামাজিক দূরত্ব মেনে চলছে না। দোকান, আর শপিং মলে মানুষ গা ঘেঁষে চলাচল করছে। তাতে করোনা মহামারির আকার ধারণ করবে। সরকার যদি এই মুহূর্তে কঠোর পদক্ষেপ না নেয় তাহলে আমাদের মৌলভীবাজার জেলাসহ সারা দেশ মৃত্যুপুরীতে রূপান্তির হবে।
প্রাইভেট ডিটেকটিভ/১৮ মে ২০২০/ইকবাল
Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ