May 27, 2020, 5:44 pm

শিরোনাম :
সুন্দরগঞ্জে পৃথক বজ্রপাতে ঘরবাড়ি ভষ্মিভ‚ত:৭ গরুর মৃত্যু বরিশালের মুলাদীতে বজ্রপাতে কৃষকের মৃত্যু করোনা আতংকে শিশুসহ অবরুদ্ধ একটি পরিবার শিকারীদের ফাঁদে ধ্বংস হচ্ছে উপকুলের বন্যপ্রানী চিলমারীতে ব্রক্ষপুত্রের ডানতীর রক্ষা প্রকল্পের ভাঙ্গন এলাকাবাসীর মানব বন্ধন করোনায় আক্রান্ত হয়ে দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ২২ জনের মৃত্যু হয়েছে,আক্রান্ত ১৫৪১ রাজশাহীর তানোরে হত্যা মামলায় পলাতক ১ আসামীকে গ্রেফতার করেছে থানা পুলিশ! পাবনায় বেরোবির এক শিক্ষার্থীর রহস্যজনক মৃত্যু! পটুয়াখালীতে ঘূর্ণিঝড় ‘আম্পান’ এ ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধ পরিদর্শনের লক্ষ্যে জেলা প্রশাসক রামপালে আম্পানের তান্ডবে সপ্তাহ ধরে ২ শত পরিবার পানি বন্দি অর্ধশতাধীক মৎস্য ঘের ভেসে কোটি টাকার ক্ষতি

মেলান্দহে হত্যার হুমকি দিয়ে এক কিশোরকে খ্রিষ্টান ধর্মে দীক্ষিত, আটক ১

Spread the love

শামীম আলম , জামালপুর থেকেঃ

জামালপুরের মেলান্দহে ভয়ভীতি প্রলোভন ও স্বজনদের হত্যার হুমকি দিয়ে কিশোর স্কুল ছাত্র ইয়াছিন ইসলাম আকাশ (১৪) কে জোর করে ইসলাম থেকে ধর্মান্তরিত করার উদ্দেশ্যে খ্রিষ্টান ধর্মে দীক্ষিত করার ঘটনা ঘটেছে। ঘটনাটি ঘটেছে মেলান্দহ উপজেলার শ্যামপুর গ্রামে। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে জহুরুল ইসলাম ওরফে জহির (৬৫) কে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃত জহির ইসলামপুর উপজেলার কুলকান্দি গ্রামের বাবর আলীর ছেলে। সে আশির দশক থেকে খ্রিষ্টান ধর্মে দীক্ষিত হয়। স্থানীয় ও পরিবার সূত্রে জানা গেছে, ইয়াছিন ইসলাম আকাশ শ্যামপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির শিক্ষার্থী। আকাশের পিতা সাইফুল ইসলাম তার মা আনজুয়ারা বেগমকে রেখে অন্যত্র বিয়ে করে ময়মনসিংহের বিদ্যাগঞ্জে বসবাস করছেন। এনিয়ে পারিবারিক কলহ শুরু হয়। এরপর থেকেই আকাশকে লালন পালন করে আসছেন তার নানা দিনমজুর আমজাদ হোসেন (৬৫)। এদিকে আকাশের মা আনজুয়ারা বেগম ঢাকায় একটি গার্মেন্টসে চাকরি করেন। কিছুদিন যাবৎ জহির নামে এক খ্রিষ্টান ব্যাক্তি আকাশের খোজখবর নিতে থাকে। একপর্যায়ে চলতি মাসের প্রথম দিকে জহির আকাশকে স্কুল থেকে ডেকে ডেফলা ব্রিজে নিয়ে যায়। সেখানে জহির আকাশকে খ্রিষ্টান ধর্ম গ্রহণের প্রস্তাব দেয়। খ্রিষ্টান ধর্ম গ্রহণ না করলে আকাশের পিতা মাতা নানাসহ আত্মীয়-স্বজনদের হত্যার হুমকি দেয় জহির। খ্রিষ্টান ধর্ম গ্রহণ করলে অর্থ বিত্ত প্রদানেরও প্রলোভন দেখানো হয় আকাশকে। এতে সে খ্রিষ্টান ধর্মে দীক্ষিত হতে সম্মত হয়। তাৎক্ষণিকভাবে আকাশকে জামালপুরে নিয়ে অপরিচিত স্থানে একদিন একরাত রেখে দেয়া হয়। সেখানে আকাশকে বাইবেল হাতে দিয়ে শপথ বাক্য পাঠ করিয়ে খ্রিষ্টান ধর্মে দীক্ষিত করা হয়। এরপর আকাশের বুকে ও হাতের কব্জিতে ক্রুশ বিদ্ধ অঙ্কন করা হয়। এ ঘটনাটি কেউ জানতে পারলে আকাশের স্বজনদের হত্যা করা হবে এমন হুমকি দিয়ে এক লাখ টাকা, ‘‘কোন পথে’’ নামক একটি ধর্মীয় বইসহ ক্রুশবিদ্ধ লকেট গলায় পরিয়ে তাকে বাড়িতে পাঠিয়ে দেয় হয়। কয়েকদিন পরেই আকাশ নিজে থেকেই জহিরকে টাকা ও লকেট ফেরত দিয়ে খিষ্টান ধর্ম পালনে অস্বীকৃতি জানায়। এতে আকাশ ও তার স্বজনদের হত্যার হুমকী প্রদর্শন করে জহির। এরপর থেকেই আকাশ মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়ার একপর্যায়ে তার স্কুলের শিক্ষকদের নিকট ঘটনাটি প্রকাশ করলে এলাকায় হইচই পড়ে যায়। স্থানীয় আলেমগণ ও এলাকার শত শত মানুষ আকাশের বাড়িতে ভীড় জমায়। এ ঘটনায় এলাকায় তীব্র ক্ষোভ বিরাজ করছে। মেলান্দহ জামেয়া হুছাইনিয়া আরাবিয়া মাদ্রাসার অধ্যক্ষ ও জেলা ইত্তেফাকুল ওলামার সভাপতি আলহাজ মুফতী শামসুদ্দিন বলেন, এভাবে কোমলমতি শিশু-কিশোরদের অপহরণ প্রলোভন ও হত্যার হুমকি দিয়ে জোর জবরদস্তির মাধ্যমে খ্রিষ্টান বানানোর তীব্র নিন্দা জানাই, সেই সাথে অভিযুক্তের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করছি। মেলান্দহ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল করিম খান জানান, এ ঘটনায় আকাশের মা আনজুয়ারা বেগম বাদি হয়ে মামলা দায়ের করেছেন। অভিযুক্ত জহিরকে মঙ্গলবার আটক করা হয়েছে। নিরাপত্তা ও তদন্তের স্বার্থে স্কুল ছাত্র ইয়াছিন ইসলাম আকাশকে পুলিশী হেফাজতে নেয়া হয়েছে।

প্রাইভেট ডিটেকটিভ/১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯/ইকবাল

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ