September 17, 2019, 1:30 pm

প্রতিকি ছবি

মহিপুরে ৬ষ্ঠ শ্রেণীর শিক্ষার্থীকে ঘর থেকে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ

Spread the love

পটুয়াখালী প্রতিনিধিঃ

প্রতিকি ছবি

পটুয়াখালীর মহিপুর কো-অপারেটিভ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেনীর শিক্ষার্থীকে গত বুধবার গভীর রাতে বালুরমাঠে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করার অভিযোগ উঠেছে।ধর্ষিতার বাবা নজিরপুর গ্রামের মো. জামাল বৃহস্পতিবার রাতে ধর্ষণের অভিযোগে মহিপুর থানায় একটি মামলা করেছেন। ওই মামলায় মহিপুর থানা সদর ইউনিয়নের কমরপুর গ্রামের শাহ- আলম চৌকিদারের ছেলে অভিযুক্ত রাকিবুল (২০)সহ তিনজনকে আসামী করা হয়। শুক্রবার ভোরে ধর্ষিতাকে পুলিশ উদ্ধার করে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেছেন। ধর্ষকসহ অপর আসামীদের এখনও গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ ।মামলার বিবরনী ও পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে কমরপুর গ্রামের শাহ আলম চৌকিদারের ছেলে রাকিবুল ধর্ষিতার দাদীর মোবাইল ফোনে কল দিয়ে কথা বলত। শিক্ষার্থী ও রাকিবুলের সাথে এর মধ্যেই প্রেমের সম্পর্ক জড়িয়ে পড়ে । এর ধারাবাহিকতায় গত বুধবার রাত ২ টার দিকে ফোন দিয়ে ঘর থেকে বাইরে ডেকে নিয়ে যায়।নজিরপুর গ্রামের বালুরঘাট নামক স্থানে নিয়ে গিয়ে মামলার প্রথম আসামী রাকিবুল জোরপূর্বক ওই শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ করে। অপর দুই আসামী বাবু (২২)ও ওবায়দুল (২৪) ধর্ষণে সহযোগিতা করে এবং ওবায়দুল ধর্ষণের পর ওই রাতে তার বাড়িতে নিয়ে রাখে। বৃহস্পতিবার দুপুর ১১ টার দিকে ওই ছাত্রীকে বাড়ির যাবার উদ্যেশে অটো বাইকে তুলে দেয়া হয়। এসময় ধর্ষণের ঘটনা কাউকে না বলার হুমকি দেয় ওবায়দুল।ধর্ষিতার বাবা জামাল বলেন, বুধবার রাত থেকে মেয়েকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিলনা। বৃহস্পতিবার দুপুরে মেয়ে বাড়ি ফিরে এসে তার দাদীসহ পরিবারের সদস্যদের জানিয়েছে রাকিবুল তাকে ডেকে নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেছে। ওই দিনই স্থানীয় ইউপি সদস্য বিউটি ও রানীর সহযোগিতায় মহিপুর থানায় মামলা করেছি। মহিপুর থানার ওসি (তদন্ত) মাহবুব আলম জানিয়েছেন, ধর্ষণের অভিযোগে থানায় মামলা হয়েছে। ধর্ষকসহ অপর আসামীদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

প্রাইভেট ডিটেকটিভ/৩০ আগস্ট ২০১৯/ইকবাল

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ