November 20, 2019, 12:15 pm

শিরোনাম :
গতানুগতিক কাজ বাদ দিয়ে ইনোভেটিভ হতে হবে-কৃষিমন্ত্রী ড. মো: আব্দুর রাজ্জাক এমপি “শিবগঞ্জে বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের জন্মদিন পালন ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত চিলমারীতে লবন সংকটের গুজবে দাম বৃদ্ধি, দিশেহারা সাধারণ মানুষ পরিবহন আইন বাতিলের দাবিতে জামালপুরে ধর্মঘট করছে পরিবহন শ্রমিকরা যশোরের বাঘারপাড়ায় পূর্ব শত্রুতার জেরে রাতের আঁধারে কৃষকের ধানে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা ঝিকরগাছার বাঁকড়ায় লবণ নিয়ে গুজব ও হঠাৎ মূল্য বৃদ্ধি প্রাইভেট ডিটেকটিভ পত্রিকার সম্পাদকের ছোট ভাই একেএম মাহফুজার রহমান ওরফে আল কামালের ইন্তেকাল নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠন হিযবুত তাহরীরের সক্রিয় সদস্য আটক লবণের দাম বৃদ্ধির গুজবে রাজশাহীর তানোরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার হাট-বাজার মনিটরিং রাজশাহীর তানোরে পুলিশের অভিযানে ওয়ারেন্ট ভুক্ত ও মাদক ব্যাবসায়ীসহ আটক ২

বোয়ালমারীতে সরকারি খাল অবৈধ ভাবে ইজারা দিলেন ছাত্রলীগ নেতা

Spread the love

 

কামরুল সিকদার, বোয়ালমারী (ফরিদপুর) থেকে ।।

 

ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলার ময়না ইউনিয়নের ঠাকুরপুর খাল জেলেদের নিকট অবৈধভাবে ইজারা দিলেন সাবেক ছাত্রলীগ নেতা রিপন মোল্যা ও ওদুদ মোল্যা। খালে আড়াআড়ি বাধ দিয়ে মাছ শিকার করা হচ্ছে।

জানা যায়, উপজেলার ময়না ইউনিয়নের ঠাকুরপুর ময়না বিল থেকে একটি সরকারী খাল চন্দনা বারাশিয়া নদীতে এসে পড়েছে। বর্ষা মৌসুমে ওই খাল দিয়ে বিলের পারি প্রবেশ করে ও শুকনা মৌসুমে বিলের পানি নদীতে ফের নেমে আসে। খালটি সকলের জন্য উন্মুক্ত থাকায় প্রতি বছরই খাল থেকে মৎস্য আহরণ করে খাদ্য চাহিদা পূরণ করতো স্থানীয় বাসিন্দারা। এ বছর খালটি ৪০ হাজার টাকায় স্থানীয় জেলে ইমান উদ্দিনের নিকট ইজারা দিয়েছে ময়না ইউনিয়নের সাবেক ছাত্রলীগ সভাপতি মো. রিপন মোল্যা এবং ঠাকুরপুর গ্রামের ওদুদ মোল্যা। খাল ইজারা দেওয়ায় খালের দুই পাড়ের বাসিন্দারা এ নিয়ে অসন্তোাষ প্রকাশ করেছে।

বাধ নির্মাণকারী ইমান উদ্দিন বলেন, আমি আ’লীগ নেতা রিপন মোল্যা ও ওদুদ মোল্যার নিকট থেকে ৪০হাজার টাকায় খালটি এক বছরের জন্য ইজারা নিয়েছি। সে কারণে খালে বাধ দিয়ে মাছ শিকার করছি।

এ ব্যাপারে রিপন মোল্যার সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি টাকা নেওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, খালের মাছ বারোজনে মেরে খায়। এ বছর ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নের জন্য জেলেদের নিকট ৪০ হাজার টাকায় ইজারা দিয়েছি। এ টাকা একটি মন্দির ও ৫টি মসজিদে দান করা হয়েছে।

ওদুদ মোল্যা বলেন, দুইটি গ্রামের মধ্যদিয়ে বয়ে যাওয়া খালটি এ বছর দুই গ্রামের লোকজন বসে খাল ইজারা দিয়ে মসজিদ ও মন্দিরে টাকা দেওয়ার কথা হয়। সেই মোতাবেক খালটি ইজারা দিয়ে ঠাকুরপুর-বান্দুগ্রামের একটি মন্দির ও ৩টি মসজিদে ২০ হাজার ও ময়না গোরস্থান মাদ্রাসা ও মসজিদে ২০হাজার টাকা দান করা হয়েছে।

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা সুদীপ বিশ্বাস বলেন, এ খালে বাধ দেওয়া নিয়ে আমি বেশ ঝামেলায় আছি। বাধ নির্মাণকারীরা উপজেলা চেয়ারম্যানের কাছে এসেছিল। শুনেছি খালটি ৪০ হাজার টাকা বিক্রি করে বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে দান করেছে।

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ