August 21, 2019, 7:08 pm

শিরোনাম :
মানুষের কল্যাণে কাজ করতে গিয়ে বারবার মৃত্যুর সম্মুখীন হয়েছি: প্রধানমন্ত্রী গ্রেনেড হামলার দায় খালেদা জিয়া এড়াতে পারেন না: তথ্যমন্ত্রী জন্মাষ্টমী ঘিরে কঠোর নিরাপত্তা পরিকল্পনা ডিএমপি’র একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলায় নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা উচ্চ আদালতে তারেকের সর্বোচ্চ সাজার আবেদন করা হবে: ওবায়দুল কাদের চট্টগ্রামে কাভার্ড ভ্যান থেকে ৫০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার, আটক ৩ গ্রেনেড হামলা মামলার আপিল শুনানি ২-৪ মাসের মধ্যে: আইনমন্ত্রী গ্রেনেড হামলায় জড়িতদের বিচারে উদ্যোগ নেবে সরকার: মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী গ্রেনেড হামলার সুষ্ঠু তদন্ত হয়নি, জোর করে তারেকের নাম বলানো হয়েছে: রিজভী ডেঙ্গুতে আক্রান্তের সংখ্যা কমলেও আতঙ্ক কমছে না

বিনিয়োগ বাড়ানোর মুদ্রানীতি আসছে

Spread the love

বিনিয়োগ বাড়ানোর মুদ্রানীতি আসছে

ডিটেকটিভ নিউজ ডেস্ক

নতুন অর্থবছরের প্রথমার্ধের (জুলাই-ডিসেম্বর) মুদ্রানীতি ঘোষণা করা হবে ৩১ জুলাই বুধবার।

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে টানা তৃতীয় মেয়াদের সরকারের দ্বিতীয় এই মুদ্রানীতি ‘সম্প্রসারণমূলক’ হবে বলে আভাস মিলেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তাদের কথায়।

বিশেষ করে বিনিয়োগে স্থবিরতা কাটাতে বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবাহ বাড়ানোর উদ্যোগ নেয়া হবে নতুন মুদ্রানীতিতে।

গত অর্থবছরের দ্বিতীয়ার্ধের (জানুয়ারি-জুন) মুদ্রানীতিতে বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবাহের প্রবৃদ্ধি ধরা হয়েছিল ১৫ দশমিক ৫ শতাংশ।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যাচ্ছে, ৩০ জুন শেষ হওয়া ২০১৮-১৯ অর্থবছরে বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবাহের প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১১ দশমিক ২৯ শতাংশ। যা খুবই হতাশাজনক।

গত কয়েক বছরে বেসরকারি খাতে ঋণ বিতরণে এত কম প্রবৃদ্ধি লক্ষ্য করা যায়নি। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে প্রবৃদ্ধি ছিল ১৬ দশমিক ৯৪ শতাংশ। তার আগের দুই বছরে (২০১৬-১৭ ও ২০১৫-১৬) ছিল যথাক্রমে ১৫ দশমিক ৬৬ এবং ১৬ দশমিক ৭৮ শতাংশ।

অন্যদিকে শিল্প স্থাপনের জন্য প্রয়োজনীয় মূলধনী যন্ত্রপাতি (ক্যাপিটাল মেশিনারি) আমদানিতেও দেখা দিয়েছে মন্দা। গত অর্থবছরে মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানির এলসি (ঋণপত্র) খোলার পরিমাণ কমেছে ৩০ শতাংশ; তার আগের বছরে (২০১৭-১৮) যেখানে ২৯ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছিল।

নতুন মুদ্রানীতিতে বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবাহ বাড়ানোর দিকেই সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম।

রোববার  তিনি বলেন, সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে নতুন মুদ্রানীতি ঘোষণা করা হবে। বেসরকারি খাতের ঋণ প্রবাহের গতি-প্রকৃতি বিবেচনা করা মুদ্রানীতির অন্যতম উদ্দেশ্য।

“যেহেতু বেসরকারি খাতে ঋণের প্রবাহ কম; সেহেতু এ ক্ষেত্রে গতি আনতে নতুন মুদ্রানীতিতে অবশ্যই পদক্ষেপ নেয়া হবে।”

সেইসঙ্গে মূল্যস্ফীতি সহনীয় রেখে ৮ দশমিক ২ শতাংশ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনের জন্যও মুদ্রানীতিতে দিক-নির্দেশনা থাকবে বলে জানান কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক সিরাজুল ইসলাম।

ঋণ বিতরণ কম হওয়ায় ২০১৮-১৯ অর্থবছরের দ্বিতীয়ার্ধের (জানুয়ারি-জুন) মুদ্রানীতিতে তার আগের (জুলাই-ডিসেম্বর) মুদ্রানীতির চেয়ে বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবাহ কমিয়ে আনা হয়।

গত অর্থবছরের জুলাই-ডিসেম্বর মেয়াদের মুদ্রানীতিতে বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবাহের লক্ষ্য ধরা ছিল ১৬ দশমিক ৮ শতাংশ। জানুয়ারি-জুন মেয়াদে তা কমিয়ে  ১৫ দশমিক ৫ শতাংশ ধরা হয়।

২০১৯-২০ অর্থবছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য ধরা হয়েছে ৮ দশমিক ২ শতাংশ। আর মূল্যস্ফীতি ৫ দশমিক ৫ শতাংশে আটকে রাখার প্রত্যাশা করা হয়েছে।

গত ২০১৮-১৯ অর্থবছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য ধরা হয়েছিল ৭ দশমিক ৮ শতাংশ। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো-বিবিএস আট মাসের (জুলাই-ফেব্রুয়ারি) হিসাব ধরে যে তথ্য দিয়েছে তাতে লক্ষ্যের বেশি ৮ দশমিক ১৩ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জনের কথা বলা হয়েছে।

মূল্যস্ফীতি বাজেটে ঘোষিত নিয়ন্ত্রণের মধ্যেই ছিল। জুন মাস শেষে হড় মূল্যস্ফীতির হার দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ৪৭ শতাংশ; লক্ষ্য ছিল ৫ দশমিক ৬ শতাংশে আটকে রাখার।

রোববার বাংলাদেশ ব্যাংকের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ৩১ জুলাই বুধবার বেলা সাড়ে ১১ টায় বাংলাদেশ ব্যাংকের মূল ভবনের ৫ম তলায় জাহাঙ্গীর আলম কনফারেন্স হলে ২০১৯-২০২০ অর্থবছরের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের মুদ্রানীতি সম্বলিত ‘মনিটারি পলিসি স্টেটমেন্ট’  প্রকাশ করা হবে।

এতে সভাপতিত্ব করবেন গভর্নর ফজলে কবির।

বরাবরের মতো এবারও নতুন মুদ্রানীতি ঘোষণার আগে অর্থনীতিবিদ, ব্যবসায়ী, ব্যাংকার ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করে বাংলাদেশ ব্যাংক।

বাজেট বাস্তবায়নে সরকারের ঘোষিত আর্থিক নীতিকে সঠিক পথে পরিচালিত করতে প্রতি অর্থবছরে দুটি মুদ্রানীতি ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ