February 25, 2020, 3:00 pm

শিরোনাম :
মুজিববর্ষের অঙ্গীকার হিসেবে সবার জন্য নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্য নিশ্চিত করতে সকলে একসাথে কাজ করার জন্য কৃষিমন্ত্রী ড.মোঃ আব্দুর রাজ্জাক এমপির আহবান কলাপাড়ায় সততা সংঘের সমাবেশ অনুষ্ঠিত নাভারন হাইওয়ে পুলিশের দুর্নীতি নাভারন-সাতক্ষিরা সড়কটি বৃষ্টির দিনে মানুষের কাছে বিষফোঁড়ায় পরিণত সুন্দরগঞ্জে গৃহবধূর আত্মহত্যা গাইবান্ধায় ১৫০ ইট ভাটা অবৈধভাবে চলছে ! কুয়াকাটায় ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে ৮টি খাবার হোটেলকে জরিমানা শার্শার বাগআঁচড়ায় শরীরে অভিনব কায়দায় রাখা ফেন্সিডিল সহ ১যুবক আটক আদমদীঘিতে কৃষক মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত পাবনার চাটমোহর উপজেলার শ্রেষ্ঠ চিকিৎসক হলেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. রুহুল কুদ্দুস ডলার নতুন প্রধানমন্ত্রী নিয়োগে সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে সব এমপিদের সাক্ষাৎকার নিচ্ছেন মালয়েশিয়ার রাজা আবদুল্লাহ রিয়াদউদ্দিন

বন্যাপীড়িত গাইবান্ধায় বাণিজ্য মেলা নিয়ে বিভিন্ন মহলে ক্ষোভের সৃষ্টি

Spread the love

 

গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি

গেল বন্যায় গাইবান্ধা ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে জেলা জুড়ে সাধারণ মানুষ ও ব্যবসায়ীদের সহ জেলা ব্যাপক অভাব অনটন চলছে এর মধ্যে বন্যাপীড়িত গাইবান্ধায় শুরু হয়েছে মাসব্যাপী ভাড়া করা বাণিজ্য মেলা। স্থানীয় স্বাধীনতা প্রাঙ্গণে এই মেলা চলছে। গাইবান্ধা চেম্বার অফ কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ এই বাণিজ্য মেলার আয়োজক। তবে এই মেলায় স্থানীয় কোনো ব্যবসায়ীর সম্পৃক্ততা নেই। এই মেলায় স্থানীয় কোনো ব্যবসায়ীর স্টলও নেই। গাইবান্ধার বহিরাগত ব্যক্তিরা চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ এর নামে এই বাণিজ্য মেলার আয়োজন করেছে বলে স্থানীয়রা অভিযোগ তুলছে।

জানা গেছে, গাইবান্ধায়ও সেভাবেই বাণিজ্য মেলার আয়োজন করা হয়েছে। জেলা জাসদের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা শাহ শরিফুল ইসলাম বাবলু সাংবাদিকদের বলেন, ৪ থেকে ৫ লাখ টাকার জন্য বাইরের লোকদের বাণিজ্য মেলার অনুমতি দিয়েছে চেম্বার অফ কমার্স। বাণিজ্য মেলায় যে সব স্টল দেয়া হয়, চেম্বার নেতারা সেইসব ব্যবসা করেন না। তাই তারা সাধারণ ব্যবসায়ীদের কি ক্ষতি হয় তা বোঝেন না। গাইবান্ধার ছোট ছোট ব্যবসায়ীরা বছর বছর চেম্বারে চাঁদা দিয়ে যায়, কিন্তু তাদের স্বার্থ দেখে না চেম্বার নেতারা। তিনি বলেন, তারা দোকান নিয়ে আসে, একমাস ব্যবসা করে চলে যায়।

ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী মাসুদ আহম্মেদ বলেন, কোনো জায়গায় বাণিজ্য মেলার আয়োজন করা হয়ে থাকে স্থানীয় ব্যবসায়ী ও তাদের উৎপাদিত পণ্য প্রমোট করার জন্য। সে মেলা সেখানকার অর্থনীতিতে অবদান রাখে। কিন্তু গাইবান্ধায় স্থানীয় ব্যবসায়ীদের বাদ বহিরাগতদের বাণিজ্য মেলা করার সুযোগ দিয়ে এখানকার কী উন্নতি হবে?
স্থানীয় সংবাদ কর্মী ময়নুল ইসলাম বলেন, স্মরণকালের ভয়াবহ বন্যায় গাইবান্ধার মানুষদের জন্য এ মেলার আয়োজন কতটা যুক্তিযুক্ত? আবার এই মাসজুড়ে স্কুল ও কলেজগুলোতে চলবে টেস্ট ও সমাপনি পরীক্ষা। এতে করে মারাত্মকভাবে শিক্ষার্থীদের পড়াশুনার ক্ষতির আশংকা করছেন অভিভাবকরা। এই মেলায় কেনাকাটার সাথে ছোট বড় সবার জন্য রয়েছে টাকার বিনিময়ে বিনোদনেরও ব্যবস্থা। মেলায় প্রবেশের জন্য আবার রয়েছে ১০ টাকার টিকিট। এদিকে, মাস দেড়েক আগে ভয়াবহ বন্যায় গাইবান্ধার ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়েছে। মানুষ এখনও সে ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে পারেনি। এমতাবস্থায় বাণিজ্য মেলার আয়োজন করায় বিভিন্ন মহলে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

 

 

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ