October 21, 2019, 5:50 am

প্রধান সড়কে রিকশা না চালানোর আহ্বান ডিএনসিসি মেয়রের

Spread the love

প্রধান সড়কে রিকশা না চালানোর আহ্বান ডিএনসিসি মেয়রের

ডিটেকটিভ নিউজ ডেস্ক

সড়কে শৃঙ্খলা ফেরানোর লক্ষ্যে রাজধানীর প্রধান সড়কগুলোতে রিকশা না চালানোর আহ্বান জানিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম। পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী, ডিএনসিসির আওতাধীন এলাকার মধ্যে নির্ধারিত সড়কগুলোতে রিকশা না চালানোর জন্য মালিক ও চালকদের প্রতি এ আহ্বান জানিয়েছেন মেয়র। গতকাল শনিবার রাজধানীর গুলশানে নগর ভবনে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী, রিকশা মালিক সমিতিসহ সংশ্লিষ্টদের নিয়ে আয়োজিত এক সভায় এ আহ্বান জানান মেয়র। এসময় মেয়র আতিক বলেন, দেশ যতো এগিয়ে যাচ্ছে, উন্নত হচ্ছে, ততো জনসংখ্যার হার বাড়ছে। আমরা ডিজিটাল হওয়ার চেষ্টা করছি, কিন্তু আমরাই এতোদিন ম্যানুয়াল ছিলাম। আমাদেরকে এমন পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের জন্য মেকানিক্যাল সিস্টেমে যেতে হবে। তাই একটি সড়কে ম্যানুয়াল এবং মেকানিক্যাল সিস্টেম একই সঙ্গে চলতে পারে না। এজন্য আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, যেসব সড়কে যান্ত্রিক পরিবহন চলে সেসব সড়কে রিকশা চলতে দেওয়া হবে না। এর কারণে শুধু যে যানজট হচ্ছে তা নয়, দুর্ঘটনারও শঙ্কা থাকে। রিকশা শুধু নির্দিষ্ট কিছু সড়কে চলাচলের জন্য নিষিদ্ধ হচ্ছে, ফলে নগরবাসীর ভোগান্তির কোনো কারণ হবে না আশ্বাস দিয়ে মেয়র বলেন, আমরা পুরো শহর থেকে রিকশা তুলে দিচ্ছি, তা কিন্তু নয়। আমরা শুধুমাত্র বলছি, শহরের প্রধান সড়কগুলোতে রিকশা যেন না চলে। এতে কেউ কেউ বিভ্রান্তি ছড়ানোর চেষ্টা করছেন যে, শহর থেকেই রিকশা তুলে দেওয়া হচ্ছে। পাশাপাশি আমরা অবৈধ রিকশা চলাচল সম্পূর্ণ বন্ধের ঘোষণা দিয়েছি এবং বৈধ রিকশাগুলো (রেজিস্ট্রেশন প্রাপ্ত) ডিএনসিসির প্রধান সড়কের সংযুক্ত ৭৪ নেটওয়ার্কিং সড়কে চলবে। রিকশা চলাচলে নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি ফুটপাত থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে ডিএনসিসি নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের মাধ্যমে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করবেন বলেও জানান আতিক। তিনি বলেন, জনদুর্ভোগ এড়াতে রিকশা চলাচল বন্ধের পাশাপাশি রোববার থেকে ডিএনসিসির সব এলাকায় যেখানেই ফুটপাত দখল থাকবে সেখানেই আমাদের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা অভিযান পরিচালনা করবেন। ৭ জুলাই থেকে রাজধানীর দু’টি রুটের তিনটি সড়কে বন্ধ হচ্ছে রিকশা চলাচল। এগুলো হচ্ছে গাবতলী থেকে আসাদগেট নিউমার্কেট হয়ে আজিমপুর ও সায়েন্স ল্যাবরেটরি থেকে শাহবাগ পর্যন্ত এবং কুড়িল থেকে বাড্ডা রামপুরা হয়ে সায়েদাবাদ পর্যন্ত।

বিশৃঙ্খলা হলে দায় নিতে হবে মেয়রকে: এদিকে সিটি করপোরেশনের ঘোষণা অনুযায়ী আজ রোববার থেকে রাজধানীর কয়েকটি প্রধান সড়কে রিকশা চলাচল বন্ধ করা হলে এর জন্য কোনও বিশৃঙ্খলা হলে তার দায় মেয়রকেই নিতে হবে বলে সতর্ক করে দিয়েছেন জাতীয় রিকশা-ভ্যান শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক ইনসুর আলী। গতকাল শনিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে জাতীয় রিকশা-ভ্যান শ্রমিক লীগ আয়োজিত মানববন্ধনে তিনি এ সতর্ক করেন। তিনি বলেন, যদি আগামীকাল (রোববার) রিকশা চলাচল বন্ধ করা হয় আর তাতে যদি কোনও বিশৃঙ্খলা হয় তার দায় মেয়রকেই নিতে হবে। কারণ, আমরা বারবার বলেছি চালকদের লাইসেন্স দেন। আজ পর্যন্ত ঢাকা সিটি করপোরেশন চালকদের কোনও লাইসেন্স দেয় নাই। অবৈধ রিকশা বন্ধের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমাদের কথা পরিষ্কার, অবৈধ রিকশা উচ্ছেদ করতে হবে। অবৈধ রিকশা উচ্ছেদ না করা পর্যন্ত কোনও রাস্তা রিকশা মুক্ত করা যাবে না। আর যদি আগামীকাল (রোববার) থেকে কোনও রাস্তা বন্ধ করা হয় তাহলে মেয়রকে বলবো আজকের মধ্যেই যতগুলো নিবন্ধিত লাইসেন্স আছে তা বাতিল করেন। আমরা রিকশা চালাবো না। আপনি রাস্তা বন্ধ করবেন অথচ ব্যাটারিচালিত রিকশা উচ্ছেদ করবেন না, এটা হতে পারে না। আমরা হতে দেবো না। ইনসুর বলেন, যেখানে অনুমোদনবিহীন ব্যাটারিচালিত রিকশা চলছে তাদের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নাই অথচ আমরা ট্যাক্স দিচ্ছি তারপরও আমাদের বিরুদ্ধে কথা বলবে, রাস্তা বন্ধ করবেন এটা আমরা হতে দিতে পারি না। যদি নিতান্তই রিকশা বন্ধ করেন, তাহলে একটা সময় নির্ধারণ করা। যে এত তারিখ পর্যন্ত তোমাদের সময় দিলাম। মানববন্ধনে জাতীয় রিকশা ভ্যান শ্রমিক লীগের সভাপতি আজহার আলীসহ সংগঠনের কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ