August 6, 2020, 10:26 am

শিরোনাম :
গোয়াইনঘাটে সিলেট জেলা ও মহানগর জমিয়তের ত্রাণ বিতরণ ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে সরিষাবাড়ীতে মেয়র রোকনের বিরুদ্ধে মামলা কেশবপুর ইউনিয়ন পরিষদের কার্যালয় দূরবর্তী, পরিত্যক্ত ঘরে স্থানান্তরে জনগণের চরম দূর্ভোগ পূর্বের ভবনে স্থানান্তরের দাবি চৌদ্দগ্রামে ব্যবসায়ীকে মারধর ও দোকান ভাংচুরের অভিযোগ বিচারের আশায় দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন ভুক্তভোগি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১৫ আগস্ট শাহাদাত বার্ষিকী পালন উপলক্ষে ভার্চুয়াল সভা কৃষি ও অকৃষি উভয়খাতে উদ্যোক্তা তৈরীতে ব্যাংকগুলোকে এগিয়ে আসার আহ্বান ড. মো: আব্দুর রাজ্জাক এমপির বোয়ালমারীতে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ১৮ বাড়ি ভাংচুর, লুটপাট, আটক ১ মহামারী মরন ব্যাধী করোনা আপডেট- দেশে একদিনে মৃত্যু ৩৩,শনাক্ত ২৬৫৪ কলাপাড়ায় বৃক্ষ রোপন কর্মসূচীর উদ্বোধন করলেন এমপি মুহিব চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের নতুন প্রশাসক হলেন প্রবীণ রাজনীতিবিদ খোরশেদ আলম সুজন

পীরগঞ্জে শিক্ষক কর্তৃক এক বিধবা নারীর সর্বনাশ স্ত্রীর মর্যাদার দাবিতে মাতাব্বরদের দ্বারে দ্বারে

Spread the love

মোস্তফা মিয়া,পীরগঞ্জ রংপুর প্রতিনিধিঃ
রংপুরের পীরগঞ্জে বিদ্যালয়ের এক লম্পট প্রধান শিক্ষক কর্তৃক প্রতিবেশী বিধবা ভতিজিকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ৩ বছর ধরে স্ত্রীর ন্যয় অবৈধ মেলামেশার অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্ত্রীর মর্যাদার বিচারের দাবিতে বিধবা ভতিজি এখন স্থানীয় মাতাব্বরদের দ্বারে দ্বারে ঘুরছে। এ ঘটনাটি ঘটিয়েছে উপজেলার ১নং চৈত্রকোল ইউনিয়নের খালিশা মিশন দ্বিমূখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাহাবুবার রহমান।
এলাকাবাসী ও অভিযোগ সূত্রে জানাযায়, উক্ত শিক্ষকের প্রতিবেশি ভাই কোব্বাত মিয়ার একমাত্র রুপসি কন্যা মুন্নুজা বেগম (৩০) এর স্বামীর মৃত্যু পর বিধবা অবস্থায় বাবার বাড়ীতে ৩ বছর যাবৎ অবস্থান করছে। তার বাবা উক্ত বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্য হওয়ার সুবাদে এ লম্পট শিক্ষক সময়ে অসময়ে তাদের বাড়ীতে অবাধে যাতায়ত করত। এর এক পর্যায়ে সুযোগ বুঝে লম্পট শিক্ষক বিধবা ভাতিিজ বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে পরিবারের লোকদের অগোচরে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে এবং উক্ত বাড়ীসহ বিভিন্ন স্থানে ৩ বছর ধরে স্ত্রীর ন্যায় তার সাথে অবৈধ ভাবে মেলামেশা করে আসছিল। এরই এক পর্যায়ে ২৬ মে দিনের বেলা মুন্নুজার বাবা মা বাড়িতে না থাকার সুযোগে অই লম্পট শিক্ষক সহ অনৈতিক কাজে লিপ্ত হলে প্রতিবেশী এক নারী বিষয়টি দেখে ফেলে এবং শিক্ষক মাহাবুব সটকে পড়ে। পরে বিষয়টি এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে মুন্নুজা ও তার পরিবারের লোকজন স্থানীয় মাতাব্বরদের নিকট স্ত্রীর মর্যাদার বিচার চেয়ে দ্বারে দ্বারে ঘুরেও কোন প্রতিকার পাচ্ছে না বলে জানায় বাবা কোব্বাত মিয়া। তারা আরও জানান যে, উল্টো স্থানীয় মাতাব্বর গন মোটা অর্থের বিনিময়ে উক্ত অসহায় বিধবার পরিবারকেই শাসিয়ে যাচ্ছেন। উপায় না পেয়ে গত ১৩ জুলাই পীরগঞ্জ থানায় একটি অভিযোগ দিয়েছে বিধবা মুন্নুজা। লম্পট শিক্ষক মাহাবুবের সাথে কথা হলে সে জানায়, এ ঘটনা সত্য না, আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা ষড়যন্ত্র করা হয়েছে।এ ব্যাপারে পীরগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) মাসুম এর সাথে কথা হলে তিনি জানান, হ্যা আমরা এ ধরনের একটি অভিযোগ পেয়েছি। কিন্তু নির্যাতিত বিধবা অভিযোগ দেয়ার পরে আবার ২ দিনের সময় চেয়ে বাড়ীতে চলে যায়। তবে যে কোন মুহুর্তে প্রশাসনের আইনি সহায়তা চাইলে সহায়তা করা হবে।অপর দিকে বিধবা মুন্নুজার সাথে কথা হলে তিনি জানায়, আমি থানায় যাওয়াতে শিক্ষক মাহাবুবের লোকজন আমাকে মোবাইলে বার বার হুমকি দেয়ার কারনে ভয়ে চলে এসেছি। পাশাপাশি আমাকে বলা হয় যে, থানা থেকে চলে আসলে আমাকে স্ত্রীর মর্যাদা দিবে সে। কিন্তু আমি ফেরত আসার পর আবারও আমার সাথে প্রতারনা করছে সে, এখন আর মাতাব্বর রাও পাত্তা দিচ্ছে না।এলাকাবাসি বিষয়টি খতিয়ে দেখে দ্রুত লম্পট শিক্ষক মাহাবুবের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যাবস্থা গ্রহনের দাবি জানিয়েছেন আইন প্রয়োগকারী সংস্থার নিকট।
পীরগঞ্জে পুকুর থেকে গৃহবধুর লাশ উদ্ধার
মোস্তফা মিয়া,পীরগঞ্জ রংপুর প্রতিনিধিঃ
রংপুরের পীরগঞ্জের বড় দড়গাহ্ ইউনিয়নের ছোট মির্জাপুর (পাঠাই টারি) গ্রামে গৃহবধুর রহস্যজনক মৃত্যু হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। গত বৃহস্পতিবার সকাল ৮টায় পুকুর থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করেছে পীরগঞ্জ থানা পুলিশ। নিহত গৃহবধু উক্ত গ্রামের আতিকুর ইসলামের স্ত্রী খাদিজা বেগম (২৫) বলে জানাযায়।এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানাযায়, গত বুধবার রাত্রি আনুমানিক ১০ টা থেকে পরিবারের লোকজন গৃহবধু খাদিজা বেগম কে খুজে পাচ্ছিলনা। পরদিন সকালে বাড়ীর পিছনের একটি পুকুরে প্রতিবেশীরা তার লাশ ভাসতে দেখে পরিবারের লোকসহ পুরিশে খবর দিলে পুলিশ এসে সকাল ৮টায় নিহত গৃহবধুর লাশ উদ্ধার পুর্বক মর্গে প্রেরন করে। উদ্ধার কৃত লাশ নিয়ে এলাকায় নানা কৌতুহলের সৃষ্টি হয়েছে। কারন নিহতের লাশ উঠানোর পর নাক মুখ দিয়ে রক্তক্ষরন সহ শরীরের নানা স্থানে আঘাতে দাগ ফুটে উটেছে।নিহত গৃহবধুর বাবা মিঠাপুকুর উপজেলার খামার হরিপুর গ্রামের হাফিজার রহমান এর দাবি তার কন্যাকে শশুর বাড়ির লোকজন অথবা প্রতিবেশীর কেউ পিটিয়ে হত্যার পর লাশ পুকুরে ফেলে দিয়েছে।এ ব্যাপারে পীরগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) মাসুম এর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, ময়না তদন্তে রিপোর্ট হাতে না পাওয়া পর্যন্ত আমরা কিছুই বলতে পারবো না।এলাকাবাসীর ধারনা ঘটনাটি সম্পুর্ন রহস্যজনক, তাকে হয় পরিবারের লোকজন নয়তো অন্য কেহ হত্যার পর পুকুরে ফেলে দেয়া হয়েছে। উল্লেখ্য নিহত খাদিজা বেগমের ২টি পুত্র সন্তান রয়েছে, ১জনের বয়স ৩ বছর এবং অপর ছেলের ৫ মাস।এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত গৃহ বধুর বাবার বাড়ীর লোকজনদেও পক্ষ থেকে একটি হত্যা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলচিল।

প্রাইভেট ডিটেকটিভ/১৭ জুলাই ২০২০/ইকবাল

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ