November 17, 2019, 5:29 am

প্রতিকি ছবি

পিরোজপুরের স্বরূপকাঠীতে বলাৎকার ঘটনা ধামাচাপা দিতে ব্যাস্ত জন প্রতিনিধি

Spread the love
অনিমেশ হালদার,পিরোজপুর জেলা প্রতিনিধিঃ

প্রতিকি ছবি

পিরোজপুরের স্বরূপকাঠী উপজেলার সারেংকাঠী গ্রামের ৫ম শ্রেণীর এক ছাত্রকে বলাৎকারের ঘটনা স্থাণীয় ভাবে কান ধরিয়ে ধামাচাপা দেয়ার অভিযোগ উঠেছে ইউপি সদস্য শহিদুল মৃধার বিরুদ্ধে। ভুক্তভোগী ৫ম শ্রেণী পড়ুয়া ওই শিশু জানায়, পাশের বাড়ির মালেক হাওলাদারের নাতী মুন্না (১৭) গত ২৬ আগষ্ট বিকাল অনুমান ৫টায় তাকে নিয়ে মামা বাড়ি(মুন্নার) চিলতলা গ্রামে জরুরী কাজে যায়। কিন্তু মামা বাড়িতে কেউ নাথাকায় মুন্না প্রথমে তার হাত বেধে ও পরে মুখে কাপড় গুজে দিয়ে বলাৎকার করে। এসময় সে দৌড়ে পালাতে চাইলে আছাড় খেয়ে পায়ে জখমও হয়। কিন্তু লোকজনের মধ্যে চলে আসায় মুন্না তকে দ্বিতীয়বার ধরার চেষ্টা করেনি। বিষয়টি পরিবারে জানালে হত্যারও হুমকি দেয় মুন্না। এব্যাপারে লাঞ্চিত শিশুটির পিতা জানায়, বিষয়টি সারেংকাঠীর মেম্বর( সারেংকাঠী – ০৫নং ওয়ার্ড) শহিদুল মৃধাকে জানালে তিনি কাল ক্ষেপন করে গেল রবিবার(৭ সেপ্টেম্বর) স্থাণীয় ভাবে হাওলাদার বাড়িতে বিচার বসিয়ে অভিযুক্ত মমুন্নাকে সাতবার কান ধরিয়ে বিচার সমাপ্তি করেন যে বিচার আমরা প্রত্তাক্ষান করেছি। এবিষয়ে অভিযুক্ত শালিশদার শহিদ মেম্বর বলেন, সাইকেলের পাম ছেরে দেয়ায় মুন্নাকে সাতবার কান ধরিয়ে উঠবস করানো হয়েছে বলাৎকারের বিচার করিনি, ওদের আইনের আশ্রয় নিতে বলেছি। তবে, অন্য এক শালিশদার সালাম আকন বলেন, বলাৎকারের ঘটনায় হাওলাদারবাড়ি বিচার বসানো হয় সেখানে শহিদ মেম্বর একক বিচারে মুন্নাকে সাতবার কান ধরে উঠবস করান  যা আমরা কেউ মানিনি। স্থাণীয় দুলাল মাঝি জানায়, সারেংকাঠী ইউপি চেয়ারম্যান সায়েম আহমেদ এলাকায় এসে বলাৎকারের বিচার করবেন বলে জানিয়েছেন। এবিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান সায়েম আহমেদ বলেন, বিষয়টি তেমন জটিল কিছু নয়। স্থাণীয় ভাবে বিচার করে দিয়েছি।কিন্তু নেছারাবাদ থানা ইনচার্য মোঃ কামরুজ্জামান বলেন, এসব বিষয় স্থাণীয় ভাবে বিচারযোগ্য নয়। অভিযোগকারী থানায় লিখিত অভিযোগ করলে আইনগত ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে।
প্রাইভেট ডিটেকটিভ/০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯/ইকবাল
Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ