November 13, 2019, 3:45 pm

শিরোনাম :
আইন মেনে গ্রাম আদালতে বিচারিক কার্যক্রম পরিচালনা করতে হবে – ইউএনও শারমিন আক্তার লক্ষ্মীপুরে স্বেচ্ছাচারিতার বিরুদ্ধে ছাত্র-ছাত্রীদের মানববন্ধন ভিডিও কনফারেন্সে গাইবান্ধার ৩টি উপজেলাসহ দেশের ২৩টি উপজেলার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির শতভাগ বিদ্যুৎ কার্যক্রমের উদ্বোধনে প্রধানমন্ত্রী বোয়ালমারীতে সরকারি পুকুর দখল করে মাছ ও লাউ চাষ চৌগাছায় ৪০ বোতল ফেনসিডিলসহ আটক এক যুবক বেনাপোল সীমান্তে স্বর্ণেরবার সহ পাচারকারী আটক শার্শার রামপুর বাজারে সরদার ফুড এন্ড বেকারীতে ভ্রম্যমান আদালতের অভিযান ফতেহপুরে ভাই ভাই সমাজ কল্যাণ সংঘর শিক্ষা উপকরণ বিতরণ অনুষ্ঠিত সংসদীয় কূটনীতি গুরুত্বপূর্ণ -স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী জনগণ ক্ষমা করবে না কটাক্ষকারীদের -সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের

পাকিস্তানে জইশ-ই-মোহাম্মদের অস্তিত্ব নেই : সেনাবাহিনী

Spread the love

পাকিস্তানে জইশ-ই-মোহাম্মদের অস্তিত্ব নেই : সেনাবাহিনী

ডিটেকটিভ আন্তর্জাতিক ডেস্ক

 

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি কাশ্মিরের পুলওয়ামায় ভারতের ‘সেন্ট্রাল রিজার্ভ পুলিশ ফোর্সের’ গাড়িবহরে আত্মঘাতী বোমা হামলায় বাহিনীটির অন্তত ৪০ জন সদস্য প্রাণ হারান। পাকিস্তানভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী জইশ-ই-মোহাম্মদ হামলার দায় স্বীকার করে। ওই হামলার পরই মাসুদ আজহার ও তার গোষ্ঠীকে সন্ত্রাসী তালিকাভুক্ত করার প্রস্তাবে সমর্থন দিতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে ভারত। পাকিস্তানের ভূখ-ে জইশ-ই-মোহাম্মদ নামের ওখানে জঙ্গি গোষ্ঠীর অস্তিত নেই বলে দাবি করেছে দেশটির সেনাবাহিনী। সেনাবাহিনীর মুখপাত্র জানায়, পাকিস্তানে তাদের অস্তিত্ব নেই। জাতিসংঘ ও পাকিস্তানই তাদের নিষিদ্ধ করেছে। দেশটিতে সক্রিয় জাতিসংঘের তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আন্তর্জাতিক চাপও জোরালো রয়েছে। পাকিস্তানের আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ অধিদফতর আইএসপিআর এর মহাপরিচালক  আসিফ গফুর বলেন, ‘ভারত যখন আমাদের আকাশসীমা লঙ্ঘন করে তখন আসলেই্ আমরা যুদ্ধের কাছাকাছি চলে গিয়েছিলাম। আমরা তাদের প্রতিহত করেছি।’ নিয়ন্ত্রণরেখাতেও দুই দেশ মুখোমুখি অবস্থানে ছিলো মন্তব্য করে তিনি বলেন, অনেকদিন ধরেই সেখানেস সেনা মোতায়েন রয়েছে। তবে ভারতীয় আগ্রাসনের পর আমরা সেনা সংখ্যা বাড়িয়েছি।’ তিনি বলেন, স্বাভাবিক পরিকল্পনার অংশ হিসেবেই এই সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে। পুলওয়ামায় হামলার জের ধরে ভারত ও পাকিস্তান পাল্টাপাল্টি বিমান হামলা চালায়। নিজেদের সীমানায় দুটি ভারতীয় যুদ্ধবিমান ভূপাতিত এবং অভিনন্দন বর্তমান নামের এক পাইলটকে আটক করে পাকিস্তান। এর ফলে ’৭১ পরবর্তী সময়ে প্রথমবারের মতো পাল্টাপাল্টি বিমান হামলায় দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা বাড়তে শুরু করে। পাকিস্তানে আটক ভারতীয় পাইলট অভিনন্দনকে ভারতের কাছে হস্তান্তরের পর যখন উত্তেজনা প্রশমিত হওয়ার দিকে পরিস্থিতি এগুচ্ছিল তখনই পাকিস্তানের একটি ড্রোন ভূপাতিত করার দাবি করে ভারত। তার একদিন পরই ভারতীয় সাবমেরিন আটকে দেওয়ার দাবি করে পাকিস্তান। আজাদ কাশ্মিরে ভারতীয় হামলা নিয়ে জিজ্ঞাসা করলে আসিফ গফুর বলেন, সেখানে একটি ইটও ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি। জানা যায়নি কোনও হতাহতের খবর। ‘ভারতীয় দাবি মিথ্যা’। তিনি দাবি করেন, পাকিস্তান থেকে পুলাওয়ামা হামলার পরিকল্পনা করা হয়নি। আসিফ গফুর বলেন, ‘জইশ ই মোহাম্মদের অস্তিত্ব পাকিস্তানে নেই। জাতিসংঘ ও আমরা তাদেতর নিষিদ্ধ করেছি। এ ছাড়া আমরা কারও চাপে পড়ে কিছু করছি না।’

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ