April 19, 2019, 12:42 am

শিরোনাম :
ইসলামপুরে সাংবাদিক শফিক জামান লেবু’র শোকসভা ও দোয়া মাহফিল আলফাডাঙ্গায় বালু কাটায় অপরাধে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় স্বরূপকাঠীতে বিদ্যালয়ের ভবন যেন মৃত্যুফাঁদ, শঙ্কায় শিক্ষক শিক্ষার্থীরা তামাকে না বলুন চা কে হ্যাঁ বলুন নুসরাত ও শিশু মনির হত্যার সর্বোচ্চ শাস্তি ফাঁসির দাবি – বঙ্গবন্ধু উলামা পরিষদ বগুড়ায় সন্ত্রাসীদের ছুরিকাঘাতে বিএনপি নেতা এ্যাডঃ মাহবুব আলম শাহীন নিহত মাদারীপুরে বৈশাখী আনন্দে নগদের শোভাযাত্রা গতানুগতিক ধারা পরিহারের আহবান-কৃষিমন্ত্রী ড.মো.আব্দুর রাজ্জাক এমপি চিরিরবন্দরে কালবৈশাখী ঝড়ে ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতি আলফাডাঙ্গায় উপজেলা প্রশাসনের ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত

দালাল সিন্ডিকেট বেপরোয়া মহেশখালীতে লবণের দাম নিয়ে ধোঁয়াশা

Spread the love

এম বশির উল্লাহ, মহেশখালী প্রতিনিধিঃ

হতাশা নিয়ে মাথার ঘাম পাঁয়ে পেলে মহেশখালী উপকূলে সাদাসোনাখ্যাত লবণ উৎপাদন শুরু করেছেন চাষিরা। এখন লবণের ভরা মৌসুমে লবণ উৎপাদনের ধুম পড়েছে মহেশখালীর বিভিন্ন লবণ মাঠে। মহেশখালী উপজেলার কালারমারছড়া ইউনিয়নের উত্তর নলবিলার বাসিন্দা লবণ চাষী ইমাম আলী । যৌথ পরিবার হওয়াতে অভাব অনটনের সংসার। মাঝে মধ্যে নদীতে জাল ফেলে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করলেও লবণ চাষের প্রতি তার আকর্ষণ খুব বেশি। তত বেশি মুনাফা না পেলেও বাপ দাদার পুরনো পেশা যেন তারে কোনমতেই ছাড়েনা। প্রতি বছর কয়েক একর লবনের মাঠ বর্গা নেন তিনি। গত বছরও বর্গা নিয়েছিলেন প্রায় দুই একর লবনের মাঠ। তবে জমিদারের সাথে ভাগ বাটোয়ারা করে শেষমেষ যেন পরিশ্রমই বৃথা তার। এবছর ও তিনি দুই একর লবনের মাঠ বর্গা নিয়েছেন স্থানীয় এক জমিদারের কাছ থেকে। সমান ভাগে ভাগ দিতে হবে জমির মালিককে। তবে লবণ জমিদার ছাড়া কাউকে বিক্রিও করতে পারবেন না তিনি। বর্তমান লবণের দাম জিঙ্গেস করতেই তার মুখে যেন হতাশার ছাপ। দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে বললেন- দাম কত জানিনা তবে জমিদার হয়তো মণ প্রতি দুই’শ টাকা করে দিবেন। সরকার ঘোষিত ন্যায্য মুল্য তিনি জানেন কিনা জানতে চাইলে, তিনি বলেন, শুনেছি তিনমণে ৩শ টাকা বা তার বেশি। কিন্তু তিনি কম দামে দেন কেন বলতেই তার মুখটা যেন ভার হয়ে গেলো। কি আর বলবো ভাই আমরা গরীব মানুষ পরিশ্রমই করি এতো কিছু কি আর প্রতিবাদ করতে পারি? করলে আগামীতে আর মাঠ পাবো না। তার মতোই কথা হচ্ছিল কালারমারছড়া অফিস পাড়ার বাসিন্দা লবণ চাষী মুহিবুল্লাহর সাথে তিনিও জানালেন একই কথা । সেও একই কথা জানালেন লবণের নায্য মুল্য পান না তারা। তিনি এটাও জানালেন যে  স্থানীয় সিন্ডিকেট তাদের নির্ধারিত মুল্যে লবণ দিতে বাধ্য করেন। তারা অবশ্যই এর জন্য  স্থাণীয় দালাল সিন্ডিকেটকে দায়ী করেছে। জানাগেছে, উপজেলার চালিয়াতলী ঘোনার  দালাল সিন্ডিকেটের কাছে অসহায় লবণ চাষিরা। আ’লীগ নেতা মাতারবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান মাস্টার মো. উল্লাহ বলেন, আমরা শুনেছি সরকার প্রতিমণে ৪টাকা মুল্য নির্ধারন করে দিয়েছেন। কিন্তু সেটা প্রান্তিক পর্যায়ে আসতে আসতে অদৃশ্য কারনে তার অর্ধেকেরও বেশি কমে যাচ্ছে। এরকম হলে তিনি ভবিষ্যতে মানুষ এ শিল্পের প্রতি আকর্ষন হারাতে পারে। এ বিষয়ে বিসিক কক্সবাজারের জুনিয়র অফিসার মুহাম্মদ ইদ্রিছ  বলেন, আমরা বিষয়টি শুনেছি এবং ইতিমধ্যেই মন্ত্রনালয়ে চিঠি পাঠিয়েছি। আশা করছি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ নিবেন।

প্রাইভেট ডিটেকটিভ/১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯/ইকবাল
Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ