September 22, 2019, 7:09 pm

তাহিরপুরে এসিল্যান্ডের হস্তক্ষেপে হারানো স্বামীর ঘরে ফিরে পেল মনিরা

Spread the love
কামাল হোসেন,তাহিরপুর (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ
তাহিরপুরে এসিল্যান্ডের হস্তক্ষেপে হারানো স্বামীর ঘরে ফিরে পেল মনিরা। কথায় আছে, ভালবাসা নাকি অন্ধ। মানেনা উচ নিচু,  ধনী গরীব, জাত বিচার সে করতে জানে না। তাইত একটি গানে শিল্পী গেয়েছেন, প্রেমের মরা জলে ডুবে না। তাই  তাহিরপুর উপজেলার মনিরা নামের এক কিশোরী   দীর্ঘদিন প্রেম করে ভালবাসার মানুষকে সারাজীবন আপন করে পাবার জন্য বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হবার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়, কিন্তু বাঁধ সাধল স্বামীর জন্ম নিবন্ধন! যে কারণে প্রবল ইচ্ছে থাকা সত্ত্বেও প্রায় বছর খানেক আগে কাজী অফিসে বিবাহের কাবিননামা রেজিস্ট্রি করা সম্ভব হয়নি। এ বাঁধার কারনে পরবর্তীতে ইসলামী শরীয়াহ রীতি অনুযায়ী সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার বাদাঘাট(উঃ) ইউনিয়নের ঘাগটিয়া গ্রামের মনিরা বিবাহে বন্ধনে আবদ্ধ হয় একই উপজেলার বড়দল(উঃ) ইউনিয়নের মানিগাঁও গ্রামের আলীনুরের সঙ্গে। মামলার বিবরণীতে জানা যায়, বিয়ের পর বছর যেতে না যেতেই যৌতুকের জন্য স্বামীর অত্যাচার শুরু হয় মনিরা বেগমের ওপর। যৌতুকের জন্য শাশুরি-দেবরের কটু কথা, শারীরিক ও মানসিক অত্যাচারের মধ্যে যেতে হয় মনিরার বিবাহিত জীবন। এত সব অত্যাচার নিয়েই ভালবাসার মানুষটির কাছেই থাকতে চেয়েছিলেন মনিরা। যৌতুকে জন্য তাও হয়নি। শেষমেশ তাকে ফিরতে হয়েছিল বাবার বাড়ি। পরে অনেকটা বাধ্য হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল সুনামগঞ্জে অভিযোগ দায়ের করেন মনিরা বেগম। ট্রাইব্যুনাল এ বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য তাহিরপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার–ভূমির (এসিল্যান্ড) নিকট পাঠান। বিষয়টি নিষ্পত্তি করতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করেন এসিল্যান্ড মোঃ মুনতাসির হাসান পলাশ।গত ২ সেপ্টেম্বর সোমবার  কমিশনারের কার্যালয়ে অভিযোগকারী মনিরা বেগম ও স্বামী আলীনুরের উপস্থিতিতে বিষয়টির নিষ্পত্তি করে দেন তিনি।এসিল্যান্ড মোঃ মুনতাসির হাসান পলাশ স্থানীয় কাজির মাধ্যমে তাৎক্ষনিকভাবেই ৮০ হাজার টাকা দেনমোহর ধার্য করে মনিরা বেগম ও আলীনুরের কাবিননামা রেজিস্ট্রি করে দেন। পাশাপাশি স্বামী–স্ত্রী উভয়কে মিষ্টি মুখ করিয়ে নতুন সংসার জীবনের শুভ কামনা করেন।অভিযোগকারী মনিরা বেগম বলেন, স্যার–এর (এসিল্যান্ড) মাধ্যমে আমি নতুন করে বাঁচার স্বপ্ন দেখছি, হারানো ভালবাসার মানুষটিকে আবারও নিজের কাছে ফিরে পেলাম।মুঠোফোনে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ মুনতাসির হাসান পলাশের সহিত যোগাযোগ করা হলে, তিনি বলেন, সামাজিকভাবে যে কোন সমস্যা সমাধানের জন্য আমি সবসময় কাজ করে যাব। সমাজের সকল স্তরের সমস্যা সমাধানে সামাজিক ভাবে সকলকে এগিয়ে আসারও আহবান জানান তিনি।
প্রাইভেট ডিটেকটিভ/০৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯/ইকবাল
Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ