September 20, 2019, 1:23 am

শিরোনাম :
ভোলা লালমোহনে নাতনীর সাথে অসামাজিক কাজের চেষ্টা,এবং দাদা আটক কেশবপুরে অধ্যক্ষের দূর্ণীতির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করায় মাদ্রাসা প্রভাষককে মারপিট নগদ অর্থ ও মোবাইল ছিনতাই সুন্দরগঞ্জে পোনা মাছ অবমুক্ত করণ ২০ হাজার মেট্রিকটন কয়লা নিয়ে পায়রা বন্দরে নোঙর করেছে জাহাজ এমভি ঝিং হাই টং-৮ আলফাডাঙ্গায় আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভা লালপুরে ডাকাতির নাটক সাজাতে গিয়ে বিকাশ কর্মীসহ আটক ২ লতিফিয়া ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের প্রশিক্ষণ কর্মশালা ও সংবর্ধনা সম্পন্ন সহকারী শিক্ষকদের ১১ তম ও প্রধান শিক্ষকদের ১০ তম গ্রেডের দাবিতে আলফাডাঙ্গায় প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির মানব বন্ধন শৈলকুপা পৌর ভবন থেকে বিপুল পরিমান ভিজিএফ’র চাউল জব্দ শৈলকুপায় প্রাথমিক সহকারী শিক্ষকদের বেতন স্কেল ১১তম গ্রেড ও প্রধান শিক্ষকদের ১০ম গ্রেডের দাবিতে মানববন্ধন

জয়নাব হত্যার শুনানিতে ১২ মিডিয়া ব্যক্তিত্বকে তলব

Spread the love

জয়নাব হত্যার শুনানিতে ১২ মিডিয়া ব্যক্তিত্বকে তলব

ডিটেকটিভ আন্তর্জাতিক ডেস্ক

 

ধর্ষণের পর জয়নাবকে হত্যার মামলায় সহায়তা দিতে ১২ মিডিয়া ব্যক্তিত্বকে তলব করেছে পাকিস্তানের সর্বোচ্চ আদালত।  গতকাল রোববার পাঞ্জাবের ওই ৭ বছরের শিশুর হত্যাকা- সংক্রান্ত মামলার শুনানিতে উপস্থিত হতে বলা হয়েছে তাদের। তবে আদালতে তাদের ভূমিকা কী হবে, তা স্পষ্ট নয়। আইন বিশেষজ্ঞদের কেউ কেউ মনে করছেন, জয়নাবের সন্দেহভাজন হত্যাকারী সম্পর্কে টেলিভিশন উপস্থাপক শহিদ মাসুদের তোলা অভিযোগ নিয়ে আলোচনার জন্যই তাদের ডাকা হয়েছে। আবার কারও কারও মত, জনয়াব ইস্যুতে সংবাদ উপস্থানের বিধি সম্পর্কে ধারণা দিতেই তাদের ডাকা হয়েছে। মূল সন্দেহভাজনকে গ্রেফতারের পর উপস্থাপক শহিদ মাসুদ দাবি করেছিলেন, মন্ত্রী সমর্থিত একটি শিশু পর্নোগ্রাফি চক্রের সঙ্গে জড়িত সে। তবে সেই চক্রের সঙ্গে এখনও অভিযুক্তের সংশ্লিষ্টতা পায়নি তদন্তকারীরা। এই বছরের ৪ জানুয়ারি কোরআন ক্লাস থেকে ফেরার পথে নিখোঁজ হওয়ার পর ৯ জানুয়ারি পাকিস্তানের কাসুর শহরের একটি আবর্জনার স্তুপ থেকে পাওয়া যায় শিশু জয়নাবের মৃতদেহ। ময়না তদন্তে হত্যা ও ধর্ষণের তথ্য নিশ্চিতের পর ডিএনএ পরীক্ষায় জানা যায় একই অপরাধী আগেও সাতটি শিশু ধর্ষণের সঙ্গে জড়িত। গত ২৩ জানুয়ারি পাঞ্জাব প্রাদেশিক সরকারের মুখ্যমন্ত্রী শাহাবাজ শরিফ ঘোষণা দেন ডিএনএ পরীক্ষায় নিশ্চিত হওয়ার পর এক অপরাধীকে ধরতে সক্ষম হয়েছেন তারা। এরপরই পাকিস্তানের পরিচিত টেলিভিশন উপস্থাপক ড. শহিদ মাসুদ অভিযোগ তোলেন ইমরান নামের ওই অপরাধী পাঞ্জাবের একজন মন্ত্রী সমর্থিত শিশু পর্নোগ্রাফি চক্রের সঙ্গে যুক্ত। এরই ধারাবাহিকতায় সুপ্রিম কোর্টের শুনানিতে ডাকা হলো মিডিয়া ব্যক্তিত্বদের।

প্রধান বিচারপতি মিয়া সাকিব নেসারের আদালতে উপস্থিত থাকতে ডাক পাওয়াদের মধ্যে রয়েছেন, ডনের প্রধান নির্বাহী হামিদ হারুন, দ্য নিউজ এ- জাংয়ের প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক রমিজা মাজিদ নিজামি, টেলিভিশন উপস্থাপক হামিদ মিরসহ ১২জন।

সম্প্রতি পাকিস্তানের টিভি উপস্থাপক ড. শহিদ মাসুদ তার অনুষ্ঠানে দাবি করেন, জয়নাবের সন্দেহভাজন হত্যাকারী একটি আন্তর্জাতিক শিশু পর্নোগ্রাফি চক্রের সঙ্গে জড়িত এবং তার ৩৭টি ফরেন কারেন্সি অ্যাকাউন্ট রয়েছে। তবে পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় ব্যাংক স্টেট ব্যাংক অব পাকিস্তান ও জয়নাবের হত্যা তদন্তে গঠিত যৌথ তদন্ত দল জানায় ইমরানের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট বা ওই চক্রের সঙ্গে জড়িত থাকার কোনও প্রমাণ তারা পাননি।বৃহস্পতিবার (২৫ জানুয়ারি) শহিদ মাসুদের বক্তব্যটিকে আমলে নেয় পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্ট। প্রধান বিচারপতি মিঞা সাকিব নিসারের নেতৃত্বাধীন তিন বিচারপতির বেঞ্চ পাঞ্জাব পুলিশকে এ ব্যাপারে তদন্তের নির্দেশ দেয়। ইমরান আসলেই শিশু নিপীড়নে জড়িত আন্তর্জাতিক চক্রের হয়ে কাজ করছে কিনা, শিশুদের যৌন নিপীড়নের ভিডিও আন্তর্জাতিক নেটওয়ার্কের হাতে তুলে দিচ্ছে কিনা, তা খতিয়ে দেখার নির্দেশ দেওয়া হয়।এবার মিডিয়া ব্যক্তিত্বদের আদালতে ডাকা হলো মামলায় সহায়তা দিতে। সর্বোচ্চ আদালতের পক্ষ থেকে এর কারণ জানানো না হলেও, আইন বিশ্লেষকদের একাংশ বলছে, শহিদ মাসুদের তোলা অভিযোগের ব্যাপারে আলোচনা করতেই তাদের ডাকা হয়ে থাকতে পারে।

আইন বিশ্লেষকদের অপর অংশ অবশ্য ভিন্নরকম করে ভাবছেন। তারা মনে করছেন, জয়নাবের ইস্যুটিতে মামলা চলমান থাকায় সংবাদমাধ্যমগুলো যেন তাদের সংবাদ উপস্থাপনে আদালত সংক্রান্ত  বিধিমালাগুলো অনুসরণ করেন; সে সম্পর্কে সচেতন করতেই তাদের ডাকা হতে পারে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত সুপ্রিম কোর্টের ওই শুনানিতে অংশ নিতে হাজির হয়েছেন জয়নাবের বাবা-মা ও পর্নোগ্রাফি চক্রের অভিযোগ তোলা টেলিভিশন উপস্থাপক শহিদ মাসুদ।

 

 

 

 

 

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ