June 6, 2020, 9:05 pm

শিরোনাম :
রাজশাহী বিভাগে আরও ৮৩ জনের দেহে করোনা শনাক্ত এযাবত আক্রান্তের সংখ্যা এক হাজার ২৮৭ জন! শিবগঞ্জে পৌর মেয়র রাজিনের বিরুদ্ধে আ.লীগসহ সহযোগী সংগঠনের পাল্টা সংবাদ সম্মেলন! শিবগঞ্জে পৌর মেয়র রাজিনের বিরুদ্ধে আ.লীগসহ সহযোগী সংগঠনের পাল্টা সংবাদ সম্মেলন! যুবলীগ নেতার ছেলেকে মারপিটের ঘটনায় নাটোরে ইউপি চেয়ারম্যানের বাড়ি ভাংচুর! নওগাঁর বদলগাছিতে অজ্ঞাত ব্যাক্তির ফেলে যাওয়া শপিং ব্যাগ থেকে নবজাতক শিশু বাচ্চা উদ্ধার! কুয়াকাটায় দুই জেলেকে ৫হাজার টাকা জরিমানা প্রকৃত জেলেরা পাবে প্রজনন মৌসুমের বিশেষ সুবিধা কলাপাড়ায় এমপি মুহিবের বৃক্ষ রোপন কর্মসূচির উদ্বোধন আম্পানে ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে এমপি মুহিবের ত্রান সহায়তা তরুণ বয়সের প্রেমের টানে মেয়ের বাসায়,ছেলে আটক

চলে গেলেণ গিরিশ কারনাড

Spread the love

চলে গেলেণ গিরিশ কারনাড

ডিটেকটিভ বিনোদন ডেস্ক

নাট্য ব্যক্তিত্ব গিরীশ কারনাড আর নেই। সোমবার ভোরে বেঙ্গালুরুর লাভেলি রোডের বাড়িতে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। তার বয়স হয়েছিল ৮১ বছর। নাটক ছাড়াও সিনেমা ও সাহিত্য জগতেও ছিল তার অবাধ বিচরণ। বার্ধক্যজনিত কারণেই মৃত্যু হয় তার। মারাঠি নাটকে তিনি ছিলেন অন্যতম কান্ডারি। এ ছাড়া একাধিক সিনেমার চিত্রনাট্য লেখা ও পরিচালনা করেছিলেন তিনি। এর মধ্যে রয়েছে অনেক কন্নড় ও মারাঠি ছবি।

চিত্রনাট্য ও পরিচালনার পাশাপাশি সিনেমায় অভিনয়ও করেছিলেন গিরীশ কারনাড। ১৯৭০ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘সংস্কার’ ছিল তার ডেবিউ ছবি। একে একে ‘নিশান্ত’ (১৯৭৫), ‘মন্থন’ (১৯৭৬), ‘স্বামী’ (১৯৭৭), ‘পুকার’ (২০০০)-এর মতো ছবিতে তিনি অভিনয় করেন। ২০০৫ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘ইকবাল’-এ তার অভিনয় পছন্দ করেছিলেন দর্শক। সালমান খানের সঙ্গে ২০১২ সালে ‘এক থা টাইগার’ এবং ২০১৭ সালে ‘টাইগার জিন্দা হ্যায়’তেও গিরিশের অভিনয় দেখেছেন দর্শক। অন্যদিকে টেলিভিশনেও গিরিশ সমান স্বচ্ছন্দ ছিলেন। ১৯৮৬-’৮৭তে জনপ্রিয়  টিভি ধারাবাহিক ‘মালগুডি ডেজ’-এ অভিনয় করেছিলেন তিনি। সেরা পরিচালক হিসেবে ১৯৭১ সালে কন্নড় ছবি ‘ভামসা ভ্রিক্ষা’-র জন্য গিরিশ পেয়েছিলেন জাতীয় পুরস্কার। এ ছাড়া আরও নয়টি জাতীয় পুরস্কার রয়েছে তার ঝুলিতে। এর মধ্যে কোনোটা চিত্রনাট্যকার হিসেবে, কোনোটা আবার পরিচালক হিসেবে। পেয়েছেন চারটি ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ডও। পদ্মশ্রী এবং  পদ্মভূষণ পেয়েছিলেন গিরিশ। ১৯৩৮ সালের ১৯শে মে তৎকালীন বম্বে শহরে জন্ম হয়েছিল এ খ্যতিমানের। চার ভাই-বোনের মধ্যে তিনি ছিলেন তৃতীয়। তার প্রাথমিক পড়াশোনা কর্নাটকে। অঙ্ক এবং সংখ্যাতত্ত্বে স্নাতক হওয়ার পর রাজনীতি এবং অর্থনীতি নিয়ে অক্সফোর্ডে পড়াশোনা করেন। ১৯৬০ সাল থেকে কন্নড় ভাষায় লেখক হিসেবে গিরিশ পরিচিতি পেতে শুরু করেন। তার মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে শিল্পী মহলে।

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ