December 3, 2019, 5:58 am

শিরোনাম :
সিরাজগঞ্জে হাসপাতালের প্রধান ফটকে জনসম্মুখে সন্তান প্রসব! বালু উত্তোলনের টাকা ভাগাভাগি নিয়ে দ্বন্দ্ব সোনারগাঁয়ে আওয়ামী লীগের দু’পক্ষের সংঘর্ষে নিহত ১ দরকার নেই দলে বসন্তের কোকিলের -সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের অভিযান চলবে দুর্নীতির বিরুদ্ধে -প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শিবগঞ্জে ৪১তম বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলা উদ্বোধন শিবগঞ্জে এবার চড়া দামে সবজি বিক্রি করতে পেরে চাষিদের মুখে আনন্দের হাসি ফুটেছে র‌্যাব-১০ এর বিশেষ অভিযানে ১৭৮০ পিস ইয়াবাসহ ৩ কারবারি আটক জৈন্তাপুরে জায়গা দখল করতে এসে অস্ত্রসহ আটক ৭ সারিয়াকান্দির ফুলবাড়ীতে লটারির মাধ্যমে ১৮১ জন কৃষক নির্বাচন সুন্দরগঞ্জে বর্ষিয়ান রাজনীতিক মকবুল হোসেনের মৃত্যুতে শোক

ঘরমুখো মানুষের স্রোত, যানবাহনের চাপে উত্তরের পথে তীব্র যানজট

Spread the love

ঘরমুখো মানুষের স্রোত, যানবাহনের চাপে উত্তরের পথে তীব্র যানজট

ডিটেকটিভ নিউজ ডেস্ক

নাড়ির টানে প্রিয়জনের সঙ্গে ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করতে ঘরে ফিরতে শুরু করেছে মানুষজন। এজন্য সড়ক-মহাসড়কে রয়েছে যানবাহনের বাড়তি চাপ। বিশেষ করে ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে গতকাল শুক্রবার সকাল থেকেই উত্তবঙ্গগামী যানবাহনের চাপের কারণে যানজট শুরু হয়। এর মধ্যে বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম পাশের গাড়ির চাপ কমাতে টোল আদায় মাত্র ১০ মিনিট বন্ধ রাখা হয়। এতে সেতুর পূর্ব পাড়ে প্রায় ২৫ কিলোমিটার যানজটের সৃষ্টি হয়। গতকাল শুক্রবার সকালে জানা যায়, ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের সেতুর পূর্বপ্রান্ত থেকে করটিয়া পর্যন্ত প্রায় ২৫ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে দীর্ঘ যানজট ছিল। এতে বেশ ভোগান্তিতে পড়ে ঘরমুখো মানুষ। বিশেষ করে নারী যাত্রীরা পড়েছে বেকায়দায়। রাত থেকে বৃষ্টি ও মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে যানবাহন বিকল হওয়ার কারণে এ যানজটের সৃষ্টি হয় মহাসড়কে দায়িত্বরত পুলিশ যানজট নিরসনে হিমশিম খেয়ে যায়। টাঙ্গাইল অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রেজাউর রহমান জানান, গত বৃহস্পতিবার রাত থেকে অতিরিক্ত বর্ষণ, রাতে বেশ কয়েকটি স্থানে দুর্ঘটনা এবং কিছু গাড়ি বিকল হয়ে পড়ায় যানজটের সূত্রপাত হয়। সকালের দিকে বঙ্গবন্ধু সেতু থেকে করটিয়া পর্যন্ত প্রায় ২৫ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে যানজটের সৃষ্টি হয়। এদিকে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানার ওসি মোশারফ হোসেন জানান, সিরাজগঞ্জের নলকা সেতুতে গাড়ি স্বাভাবিক গতিতে চলতে না পারায় টাঙ্গাইল অংশে যানজটের সৃষ্টি হলে বঙ্গবন্ধু সেতুতে দীর্ঘ লাইন হয়ে যায়। এজন্য সেতুর পর থেকে চাপ কমাতে গতকাল শুক্রবার সকাল ১১টা থেকে ১০ মিনিট টোল আদায় বন্ধ রাখা হয়। ফলে ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে যানজটের সৃষ্টি হয়। পরে দুপুর ১২টার দিকে টোল আদায় আরেকদফা বন্ধ হলে যানজটের তীব্রতাও আরও বেড়ে যায়। সেতুর পূর্বপ্রান্ত থেকে মির্জাপুরের গোড়াই পর্যন্ত প্রায় ৪০ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।

এদিকে বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম সংযোগ মহাসড়কের উত্তরবঙ্গমুখী লেনে (সিরাজগঞ্জ অংশে) গতকাল শুক্রবার সকালে অন্তত ২০ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে যানজট সৃষ্টি হয়। তবে উত্তরবঙ্গ থেকে ঢাকামুখী লেন স্বাভাবিক ছিল। গতকাল শুক্রবার সকাল থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম মহাসড়কের কড্ডার মোড় থেকেই এ যানজটের সৃষ্টি হয়ে সময় বাড়ার সাথে সাথে হাটিকুমরুল গোলচত্বর পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়ে। বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম থানার ওসি সৈয়দ শহীদ আলম জানান, গত বৃহস্পতিবার রাত থেকে যানবাহনের চাপ বাড়তে শুরু করেছে। গতকাল শুক্রবার সকাল থেকেই উত্তরবঙ্গমুখী লেনে তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়েছে। কড্ডার মোড় থেকে শুরু করে নলকা সেতু হয়ে হাটিকুমরুল গোলচত্বর পর্যন্ত এ যানজট ছড়িয়ে পড়েছে। তবে উত্তরবঙ্গ থেকে ঢাকামুখী লেনটি স্বাভাবিক রয়েছে। এসময় এক যাত্রী বলেন, রাত সাড়ে ১১টার দিকে কল্যাণপুর বাসস্ট্যান্ড থেকে রওয়ানা হয়েছে। এখন পর্যন্ত (সকাল) বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম সংযোগ সড়কেই আটকে রয়েছে তাদের বাসটি। হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার ওসি আক্তারুজ্জামান বলেন, সকাল থেকে তীব্র যানজট থাকলেও এখন থেমে থেমে চলছে। পুলিশ যানজট নিরসনে কাজ করছে। গতকাল শুক্রবার সকালে এ মহাসড়কে উত্তরবঙ্গমুখী লেনে তীব্র যানজট থাকলেও দুপুরের দিকে তা কমতে থাকে।

ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে বাড়তি যানবাহনের চাপ: ঢাকাসহ দেশের বিভিন্নস্থান থেকে দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চলের ২১ জেলার ঘরমুখো মানুষের ঈদযাত্রায় বাড়তি যানবাহনের চাপ পড়ে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কেও। গতকাল শুক্রবার সকাল ১১টা থেকে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে যানবাহনের বাড়তি চাপের কারণে ধীর গতিতে চলে যাত্রীবাহী বাস। এতে ভোগান্তিতে পড়েন এ পথের যাত্রীরা। গোপালগঞ্জগামী কমফোর্ট লাইনের চালক রকিবুল বলেন, সকাল ৭টার দিকে ঢাকা থেকে রওয়ানা হয়েছি কখন ফেরি ঘাটে পৌঁছাবো তা বুঝতে পারছি না। রাস্তায় অনেক জ্যাম মহাদেবপুর এলাকায় আধা ঘণ্টা যাবত গাড়ির ইঞ্জিন বন্ধ করে বসে আছি। কমফোর্ট লাইনের যাত্রী মারিন খান বলেন, ঢাকা থেকেই জ্যাম ঠেলতে ঠেলতে মহাদেবপুর এলাকায় এসেছি। এখানে এসে আধা ঘণ্টার বেশি সময় গাড়ি বন্ধ করে চালক বসে আছেন। এক দিকে যেমন গরম আর অন্য দিকে বাচ্চার কান্নায় অতিষ্ঠ। কখন গাড়ি ছাড়বে আল্লাহ জানে। বরংগাইল হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ইয়ামিন-উদ-দৌলা বলেন, সকাল থেকেই মহাসড়কে যানবাহনের বাড়তি চাপ পড়েছে। পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌপথ পারাপারের জন্য ছোট গাড়ি লাইনে প্রবেশ করানোর জন্য কিছু বাড়তি সময় ব্যয় হচ্ছে। এ কারণে মহাসড়কে যানবাহনের সারি দীর্ঘ হচ্ছে বলেও জানান ইনচার্জ ইয়ামিন-উদ-দৌলা।

ঈদযাত্রার দ্বিতীয় দিনে সাভারের ঢাকা-আরিচা, নবীনগর-চন্দ্রা ও টঙ্গী-আশুলিয়া-ইপিজেড মহাসড়কে প্রায় ২১ কিলোমিটার যানজটের সৃষ্টি হয়। এতে ঘণ্টার পর ঘণ্টা বসে থেকে ভোগান্তিতে পড়েন ঘরমুখো মানুষ। গতকাল শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে তিন মহাসড়কে গিয়ে দেখা গেছে, ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে গেন্ডা থেকে নয়ারহাট বাজার পর্যন্ত মানিকগঞ্জগামী প্রায় ১৪ কিলোমিটার, নবীনগর-চন্দ্রা মহাসড়কের নবীনগর থেকে বলিবদ্র বাজার পর্যন্ত চন্দ্রাগামী ৪ কিলোমিটার ও টঙ্গী-আশুলিয়া-ইপিজেড সড়কের বাইপাইল থেকে জামগড়া পর্যন্ত উভয় পাশে ৩ কিলোমিটার তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। গতকাল শুক্রবার ছুটির দিনে একসঙ্গে অনেক গাড়ি রাস্তায় নামার কারণেই এ দীর্ঘ যানজট সৃষ্টি হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। চালক ও যাত্রীরা জানান, গত বৃহস্পতিবার বিকেল থেকেই এ যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। সময় যত বাড়ছে যানজট তত তীব্র আকার ধারণ করছে। সাভার বাজার থেকে বাইপাইল পর্যন্ত ১৩ কি.মি রাস্তা পাড়ি দিতে সময় লাগছে ২ থেকে ৩ ঘণ্টা। এতে বেশি ভোগান্তির শিকার হচ্ছে নারী ও শিশুরা। এবিষয়ে ঢাকা জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ট্রাফিক) সাইদুর রহমান বলেন, ঈদের ছুটি পেয়ে পোশাক শ্রমিকরা বাড়িতে যেতে শুরু করেছেন। গতকাল শুক্রবার হওয়ায় গাড়ির চাপ একটু বেশি। কাল রাতে যে যানজট হয়েছিলো তা ভোরের দিকে ঠিক হয়ে গেছে। তবে সকাল থেকে আবারও গাড়ির চাপ বেড়ে গেছে। পুলিশ যানজট নিরসনের ২৪ ঘণ্টা সড়কে কাজ করছেন। আশা করি খুব তাড়াতাড়ি যানচলাচল স্বাভাবিক হবে।

যানজটহীন ঢাকা-চট্টগ্রাম ও ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ক: মুন্সীগঞ্জ জেলার পূর্বাংশে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক ও জেলার পশ্চিমাংশে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে কোনও যানজট দেখা যায়নি। ঈদুল আজহার দুইদিন আগে গতকাল শুক্রবার মহাসড়কের মুন্সীগঞ্জের অংশে এ চিত্র দেখা যায়। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ার ভবেরচর হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মো. কবির হোসেন খান জানান, মহাসড়ক দিয়ে অনেক যানবাহন পার হয়েছে, এখনও হচ্ছে। কিন্তু মহাসড়কে কোথাও যানজট নেই। বলা যায় মহাসড়ক একদম ফাঁকা। অন্যদিকে, ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর অংশেও ফাঁকা দেখা গেছে। হাঁসাড়া হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ গোলাম মোর্শেদ তালুকদার জানান, মহাসড়কে যানবাহনের চাপ আছে। তবে কোনও যানজট নেই। বরং মহাসড়ক কোথাও কোথাও ফাঁকা। এদিকে মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে ফেরি চলাচল এখন অনেকটাই স্বাভাবিক। তবে নদীতে স্রোত ও ওয়ানওয়ে চ্যানেলের কারণে ফেরি পারাপারের সময় লাগছে এবং প্রত্যেক ফেরিকে চ্যানেলের মুখে ১০ মিনিটের মতো সময় অপেক্ষায় থাকতে হচ্ছে। এই রুটে এখন চারটি রো রো ফেরিসহ ১৭টি ফেরি চলছে। বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন করপোরেশনের (বিআইডাব্লিউটিসি) শিমুলিয়া ঘাটের উপমহাব্যবস্থাপক নাসির মোহাম্মদ চৌধুরী এসব তথ্য জানান। এই কর্মকর্তা জানান, ঘাটে সকাল থেকেই অনেক যান পারাপার করা হয়েছে এবং এখনও প্রায় চারশত ছোটবড় যান ফেরি পারের অপেক্ষায় আছে। এসব যানের মধ্যে মোটরসাইকেল ও প্রাইভেটকার সবচেয়ে বেশি।

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ