June 7, 2020, 7:18 am

শিরোনাম :
পিতাকে হত্যার পর ছেলেকে মামলায় ফাঁসানোর চেষ্টা ৬ দফা বাঙালির স্বাধীনতার সনদ- প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং করোনাভাইরাসে আক্রান্ত নির্বাচনে জো বাইডেনই হচ্ছেন ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রতিদ্বন্দ্বী যুক্তরাষ্ট্রকে ছাপিয়ে মহামারী মরন ব্যাধী করোনায় একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু ব্রাজিলে সাবেক স্বাস্থ্য মন্ত্রী জাতাীয় সংসদ সদস্য মোহাম্মদ নাসিমের অবস্থা ডিপ ক্রিটিক্যাল- ডা. কনক কান্তি চট্টগ্রাম নগরীর ৩৫নং ওয়ার্ড চাক্তাই এলাকার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী এবং শীতল গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইয়াসিন সুলতানের উপহার সামগ্রী বিতরণ ফার্মেসীগুলির ডাকাতি ঠেকাতে হাজারীর গলিতে অভিযান করুন-ক্যাব চট্টগ্রাম ৫০ জেলা পুরোপুরি লকডাউন, ১৩ জেলা আংশিক করোনায় আক্রান্ত র‌্যাবের নির্বাহী হাকিম সরওয়ার আলম

গ্রামীণ অর্থনীতিতে বিনিয়োগের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

Spread the love

প্রাইভেট ডিটেকটিভ ডেস্কঃ

দারিদ্র্য ও ক্ষুধা দূর করতে গ্রামীণ অর্থনীতিতে বিনিয়োগে উন্নয়ন সহযোগীদের আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ইন্টারন্যাশনাল ফান্ড ফর অ্যাগ্রিকালচার ডেভেলপমেন্ট (ইফাদ)-এর ৪১তম পরিচালনা পরিষদের সভার উদ্বোধনী অধিবেশনে মূল বক্তব্যে তিনি এ আহ্বান জানান।

শেখ হাসিনা বলেন, আমরা বিশ্বাস করি, স্থিতিশীলতা নিশ্চিত করার জন্য গ্রামীণ অর্থনীতিতে বিনিয়োগ একটি প্রধান বিবেচ্য বিষয় এবং বিশ্বব্যাপী অংশীদারিত্ব ও সহযোগিতা ছাড়া এটি অর্জন করা যাবে না। দারিদ্র্য ও ক্ষুধা দূরীকরণে উন্নয়ন সহযোগীদের আরও উদার হতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ইফাদ-এর সহায়তার ও সহযোগিতার মডেলটি জাতিসংঘের অন্যান্য সংস্থা থেকে অনেক ভিন্ন। ইফাদ-এর এই মডেলটি মানবতায় এখনকার মতে অনাগত দিনগুলোতেও কাজ করে যাবে। দীর্ঘমেয়াদী স্থিতিশীলতা স্থাপন ছাড়া টেকসই উন্নয়ন অর্জন করা যাবে না। গ্রামীণ সামাজিক ও জলবায়ুগত স্থিতিশীলতার উন্নয়নে একটি ব্যাপকভিত্তিক টেকসই গ্রামীণ অর্থনীতি প্রয়োজন।

শেখ হাসিনা টেকসই গ্রামীণ অর্থনীতি তৈরিতে বিনিয়োগের মাধ্যমে দীর্ঘমেয়াদীভাবে স্থিতিশীলতা আনার আহ্বান জানিয়ে বলেন, প্রায় এক দশক ধরে সুশাসন থাকায় বাংলাদেশ ভাগ্যবান। আমরা সতর্কতার সাথে চার বছরের আর্থসামাজিক প্রবৃদ্ধি হিসেব করে আমাদের কৌশল নির্ধারণ করেছি এবং গত ৯ বছর ধরে এটি বাস্তবায়নের চেষ্টা করছি।

তিনি বলেন, ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের রিপোর্ট অনুযায়ী ২০৫০ সাল নাগাদ বিশ্বের জনসংখ্যা ৯ বিলিয়ন ছাড়িয়ে যাবে এবং এর অর্ধেক হবে মধ্যবিত্ত। এর ফলে বিশ্বের আবাদী জমি, বনভূমি এবং পানির ওপর প্রচন্ড চাপ পড়বে। সমুদ্রপৃষ্ঠের পানির উচ্চতা বৃদ্ধিতে অনেক দেশের আবাদী জমি ব্যাপকভাবে হ্রাস পাবে এবং ‘সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধিতে ছাড়াই আমরা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবো।’

শেখ হাসিনা বলেন, আমরা কিভাবে এ ধরনের বিরূপ পরিস্থিতি মোকাবেলা করব? আমি আপনাদের আমার দেশের অভিজ্ঞতা তুলে ধরে কৃষি প্রবৃদ্ধির কথা তুলে ধরব, যা আমরা বৈশ্বিক পর্যায়ে মানব উন্নয়নের জন্য অন্যান্য দেশ গ্রহণ করতে পারে অথবা আরও কার্যকরভাবে বাস্তবায়ন করতে পারি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সঙ্কট মোকাবেলায় বাংলাদেশিরা আস্থার সঙ্গে শক্তভাবে লড়াই করে সমস্যার সমাধান এবং সঙ্কট কাটিয়ে ওঠতে বিকল্প উপায় গ্রহণের মাধ্যমে সফলতা অর্জন করে। বাংলাদেশ প্রায় এক দশক ধরে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ এবং চলতি বছর অসময়ে বার বার বন্যার কারণে অপ্রত্যাশিতভাবে খাদ্য ঘাটতি দেখা দিয়েছিল।

তিনি বলেন, ‘আপনারা নোট রাখতে পারেন যে, আমরা খাদ্য উৎপাদন ১৯৭১ সালের ১১ মিলিয়ন টন থেকে ২০১৭ সালে ৩৯ মিলিয়ন টনে উন্নীত করেছি। যদিও এ সময় এক-তৃতীয়াংশ আবাদী জমি হারিয়েছি।’

শেখ হাসিনা বলেন, গ্রামাঞ্চলে কাউকে পিছনে ফেলে রাখা যাবে না -এ চ্যালেঞ্জই সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের জনসংখ্যার প্রায় ৭২ শতাংশ গ্রামাঞ্চলে বসবাস করে এবং ৪৩ শতাংশ কৃষি খাতে শ্রমজীবী হিসেবে কাজ করে, যারা দেশের জিডিপিতে ১৫ শতাংশ অবদান রাখছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশকে অন্যান্য চরম চ্যালেঞ্জেরও মুখোমুখি হতে হচ্ছে। কারণ, ২০৮০ সালের মধ্যে সমুদ্র পৃষ্ঠের উচ্চতা মাত্র ৬৫ সে.মি. বাড়লেই বাংলাদেশকে তার ৪০ শতাংশ উৎপাদনশীল ভূমি হারাতে হবে।

প্রাইভেট ডিটেকটিভ/১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮/মেধা

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ