May 26, 2019, 7:04 pm

প্রতিকি ছবি

গাইবান্ধায় ভোটের প্রস্তুতি সম্পন্ন : প্রার্থী ও ভোটাররা এখন ভোট উৎসবের অপেক্ষায়

Spread the love

মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান ফিলিপস্ শাহ্,সাঘাটা (গাইবান্ধা) প্রতিনিধিঃ

প্রতিকি ছবি

দ্বিতীয় পর্যায়ে অনুষ্ঠিতব্য পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে কেন্দ্রে কেন্দ্রে পৌঁছে যাচ্ছে ব্যালট পেপার-বাক্সসহ নির্বাচনী সরঞ্জাম। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যসহ নির্বাচনী কর্মকর্তারাও পৌঁছে যাচ্ছেন কেন্দ্রে। চূড়ান্ত যুদ্ধে অংশ নেয়ার অপেক্ষায় প্রার্থীরা। আর ভোটাররা অপেক্ষা করছেন একটি প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ভোট উৎসবের জন্য।সোমবার (১৮ মার্চ) সকাল আটটা থেকে গাইবান্ধার ৫টি উপজেলায় শুরু হবে ভোটগ্রহণ। চলবে একটানা বিকেল চারটা পর্যন্ত। ভোটগ্রহণের জন্য রবিবার সকাল থেকে পুলিশ প্রহরায় কেন্দ্রে কেন্দ্রে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে নির্বাচনী সরঞ্জাম। পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবি সদস্যদের সমন্বয়ে নির্বাচনী এলাকাগুলোতে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা গড়ে তোলা হয়েছে। নির্বাচনী এলাকায় ১৩ প্লাাটুন বিজিবিসহ আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর প্রায় আড়াই হাজার সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন।দ্বিতীয় দফায় জেলার ছয় উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও এক চেয়ারম্যান প্রার্থীকে প্রতিদ্বন্দ্বি তালিকায় অর্ন্তভূক্তে উচ্চ আদালতের নির্দেশে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা পরিষদের নির্বাচন স্থগিত করা হয়।জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মাহাবুবুর রহমান বলেন, গাইবান্ধার ৫টি উপজেলার ‘৩৫৬টি ভোট কেন্দ্রের জন্য ব্যালট পেপার ও বক্স, সিল, ফরম, প্যাকেটসহ সবধরনের নির্বাচনি সামগ্রী রবিবার সকাল থেকে কেন্দ্রগুলোতে পাঠানো শুরু হয়েছে। চরাঞ্চলসহ দূরের ভোট কেন্দ্রগুলোতে যাতে নির্বাচনি সরঞ্জাম দুপুরের মধ্যে পৌঁছে সে ব্যবস্থা করা হয়েছে। প্রতিটি কেন্দ্রে একজন করে প্রিজাইডিং অফিসার থাকবেন। প্রিজাইডিং অফিসারের কাছে এসব নির্বাচন সরঞ্জাম বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। প্রিজাইডিং অফিসাররা আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্যের সহায়তায় নির্বাচনি সরঞ্জাম নিয়ে কেন্দ্রে পৌঁছাবেন।’গাইবান্ধা জেলা প্রশাসক মো. আবদুল মতিন বলেন, ‘অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের পরিবেশ ধরে রাখতে সর্বোচ্চ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে সংশ্লিষ্ট কেন্দ্রগুলোতে। সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্র ও চরাঞ্চলের কেন্দ্রগুলোর জন্য বিশেষ নজরদারি রাখা হয়েছে। মাঠে আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্য ছাড়াও ২৫জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করছেন।গাইবান্ধা সদর উপজেলাসহ পলাশবাড়ী, সাদুল্লাপুর, ফুলছড়ি ও সাঘাটা এই পাঁচটি উপজেলায় সোমবার (১৮ মার্চ) ভোটগ্রহন অনুষ্ঠিত হবে। এ উপজেলাগুলোতে চেয়ারম্যান পদে ১৯ জন, ভাইস-চেয়ারম্যান পদে ৩৬ জন ও মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান হিসেবে ২৬ জন বৈধ প্রার্থী রয়েছেন। এরমধ্যে গাইবান্ধা সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ৪ জন, ভাইস-চেয়ারম্যান ৫ জন, মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান ৬ জন, পলাশবাড়ী উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ৩ জন, ভাইস-চেয়ারম্যান ৯ জন, মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান ৬ জন, সাদুল্লাপুর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ৫ জন, ভাইস-চেয়ারম্যান ৭ জন, মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান ৩ জন, ফুলছড়ি উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ৪ জন, ভাইস-চেয়ারম্যান ৬ জন, মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান ৪ জন এবং সাঘাটা উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ৩ জন, ভাইস-চেয়ারম্যান ৯ জন, মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান ৭ জনসহ ভোটযুদ্ধে রয়েছেন ৮১জন প্রার্থী।গাইবান্ধার পাঁচ উপজেলার মধ্যে সদর উপজেলায় ভোট কেন্দ্র রয়েছে ১০২টি, সাদুল্যাপুর উপজেলায় ৬৮টি, পলাশবাড়ী উপজেলায় ৬৪টি, সাঘাটা উপজেলায় ৭৮টি ও ফুলছড়ি উপজেলায় ৪৪টি ভোট কেন্দ্র । পাঁচ উপজেলার মোট ৩৫৬ ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ১২৯টি ভোট কেন্দ্রে অধিক গুরুত্বপূর্ণ ও ৯৫টি ভোট কেন্দ্র কম গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।নিরাপত্তা ব্যবস্থার অংশ হিসেবে নির্বাচনী এলাকাগুলোতে রবিবার মধ্যরাত থেকে মোটর সাইকেল চলাচল বন্ধ থাকবে। রবিবার মধ্যরাত ১২টা থেকে সোমবার মধ্যরাত পর্যন্ত বেবি টেক্সি, অটোরিক্সা, ইজিবাইক, টেক্সিক্যাব, মাইক্রোবাস, জিপ, পিকআপ, কার, বাস, ট্রাক, টেম্পোসহ সকল ধরনের যান চলাচল বন্ধ থাকবে।জেলা নির্বাচন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, গাইবান্ধার পাঁচ উপজেলায় ৩৫৬ জন প্রিজাইডিং অফিসার, ২ হাজার ৫৮১ জন সহকারি প্রিজাইডিং অফিসার ও ৫ হাজার ১৬২ জন পোলিং অফিসার ভোট গ্রহণের দায়িত্ব পালন করবেন।এ উপজেলায় মোট ভোটার ১০ লাখ ৬০ হাজার ২৭৪ জন। এরমধ্যে নারী ভোটার ৫ লাখ ৪২ হাজার ৫১৮ জন এবং পুরুষ ভোটার ৫ লাখ ১৭ হাজার ৭৫৬ জন। ৩৫৬টি ভোটকেন্দ্রের ২ হাজার ৫৮১টি ভোট কক্ষে ভোটাররা তাদের ভোটারধিকার প্রয়োগ করবার অপেক্ষায় রয়েছেন।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

প্রাইভেট ডিটেকটিভ/১৭ মার্চ ২০১৯/ইকবাল

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ