July 15, 2019, 3:15 pm

শিরোনাম :
লক্ষ্মীপুরে পুলিশ সুপারের বদলী, নতুন পুলিশ সুপার ড. এ এইচ এম কামরুজ্জামান পিপিএম (সেবা) পাটগ্রামের চার টি ইউনিয়ানের ঝড়োমেঘে ক্ষতি সাঘাটায় বন্যা পরিস্থিতি ভয়াবহ হাজার হাজার মানুষ পানিবন্দী জামালপুর বন্যা পরিস্থিতি অবনতি অর্ধলক্ষ মানুষ পানিবন্ধি বোয়ালমারীতে ১শ পিস ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক বগুড়ায় নব্য মাদক ব্যবসায়ী ১০ বোতল ফেন্সিডিল সহ আটক চৌদ্দগ্রামে দিনব্যাপী হজ্জ প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত মোরেলগঞ্জে ১২৫ পিচ ইয়াবাসহ ৪যুবক আটক,প্রাইভেটকার জব্দ কিস্তির টাকা পরিশোধ করতে না পেরে যুবকের আত্মহত্যা চিলমারীতে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি, ৩০ হাজার মানুষ পানি বন্দি

কেরানীগঞ্জে বাবার চোখ উপড়ে ফেলা মাদক ও অস্র কারবারী ইকবাল গ্রেপ্তার

Spread the love
শাহিন আহম্মেদ,কেরানীগঞ্জ (ঢাকা)  প্রতিনিধিঃ
 
বিগত কয়েক দিন যাবত কেরানীগঞ্জে ছেলে কর্তৃক বাবার চোখ উপড়ে ফেলা ও মা কে অমানবিক অত্যাচার করার ভিডিওটি কেরানীগঞ্জ সহ সারা দেশে চাঞ্চল্য সৃষ্টি করেছে। ছেলের পাশবিক অত্যাচারে গত কাল ৭ই জুলাই রোজ রবিবার মমতাময়ী মা মনোয়ার বেগম মারা গেছেন। মা মারা যাওয়ার পর দিন অর্থাৎ গত ৮ই জুলাই গোয়েন্দা পুলিশ ও এস আই রফিকুল ইসলাম এবং এস আই ওবাইদুল এর চতুরতায় গ্রেপ্তার হয় একাধিক মাদক ও অস্র মামলার আসামি কেরানীগঞ্জের রুহিতপুরের আতংক ইকবাল উরফে হাজী ইকবাল।ডিউটি অফিসার এস আই শাহ আলাম জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আমরা জানতে পারি একাধিক মামলার আসামি ইকবাল কেরানীগঞ্জের পার্শ্ববর্তী থানা মুন্সিগঞ্জের  সিরাজদিখানের কোন এক যায়গায় অবস্থান করছে। অতঃপর এস আই ওবাইদুল সুকৌশলে তাকে কেরানীগঞ্জে ডেকে আনলে এস আই রফিকুল ইসলাম তাকে গ্রেপ্তার করেন থানায় নিয়ে আসে। তার গ্রেপ্তারের খবরে এলাকায় স্বস্তি ফিরে এসেছে।উল্লেখ্য যে, গত ২রা জুলাই রোজ মঙ্গলবার কেরানীগঞ্জের রুহিতপুরের পুরাহাটি গ্রামে মাদকাসক্ত, অস্র ও মাদম কারবারি ইকবাল উরফে হাজী ইকবাল তার অপকর্মে বাধা দেওয়ায় বাবা ও মাকে অমানবিক নির্যাতন করে বাবা হাজী আহসান উল্লাহর বাম চোখ উপড়ে ফেলে এবং মা মনোয়ারা বেগম কে মোটা রড ও জি আই পাইপ দিয়ে আঘাত করে বাম পায়ের হাটু, রান ও পিঠ থেতরে ফেলে। গুরুতর অবস্থায় বাবা মা কে হাসপাতালে ভর্তি করলে গতকাল মা মনোয়ারা বেগম মারা যান এবং বাবা আহসান উল্লার বাম চোখটি চিরতরে নষ্ট হয়ে যায়।অতঃপর ঘটনার এক দিন পর ৩রা জুলাই (মঙ্গলবার) হাজী আহসান উল্লাহ ও মনোয়ারা বেগমের মেয়ে মমতাজ বেগম বাদী হয়ে  ভাই ইকবাল কে এক নাম্বার আসামি করে কেরানীগঞ্জ মডেল থানায় একটি মামলা করেন। যার নাম্বার ৪/৭/২০১৯। মামলার অন্যান্য আসামীরা হলো ২.মধু(ইকবালের স্ত্রী) ৩.জাহানারা বেগম, স্বামী আম্বর আলী ৪.নজরুল ইসলাম পিতা আম্বর আলী সর্ব সাং মুগারচর, রুহিতপুর, কেরানীগঞ্জ, ঢাকা।এর আগেও আসামি ইকবাল একাধিক বার পুলিশের হাতে আটক হয়ে ফিরে এসে একই কাজেই লিপ্ত হয়। ২০১৩ সালে ২৮০ পিছ গুলি সহ আটক হলেও কিছুই হয়নি ইকবালের। এলাকাবাসীর অভিযোগ বউ মধু ও শাশুড়ি জাহানারার  সহযোগিতায় এই সব অপকর্ম  করে পার পেয়ে যায় ইকবাল। আমরা এর সুষ্ঠু বিচার চাই।
প্রাইভেট ডিটেকটিভ/৯জুলাই ২০১৯/ইকবাল
Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ