June 22, 2019, 7:48 pm

প্রতিকি ছবি

কুয়াকাটায় পর্যটকের ওপর বাস শ্রমিকদের হামলা মারধর পর্যটকসহ আহত ৩

Spread the love

আনু আনোয়ার,পটুয়াখালী প্রতিনিধিঃ

প্রতিকি ছবি

কুয়াকাটায় চলন্ত বাসে অবস্থানকালে পর্যটকসহ যাত্রীদের ওপর বাসের চালক, সুপারভাইজর, হেল্পারসহ শ্রমিকরা হামলা ও বেধড়ক মারধর করেছে। পর্যটকদের অভিযোগ তাদের রোলার দিয়ে বেধড়ক পেটানো হয়েছে। ভাড়া নিয়ে বাকবিতন্ডার জের ধরে পর্যটক রতন খান, নুর আলম, সুমন, মাঈনউদ্দিন, শফিকুল ইসলাম ও অপর এক যাত্রী রহিমসহ একাধিক যাত্রীকে পেটানো হয়েছে। এতে রতনের কান ফেটে রক্তাক্ত জখম হয়েছে এবং অপর পর্যটক শফিকুল ইসলাম আহত হয়েছে। আহতদের কুয়াকাটা হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। শনিবার রাত আট টার দিকে আলীপুর-কুয়াকাটা মহাসড়কে নিউ মায়ের দোয়া বাসের মধ্যে বাস শ্রামকিরা পর্যটকসহ যাত্রীদের ওপর এমন হামলা ও মারধর তান্ডব চালায়। আহত পর্যটক রতন জানায়, তারা চার বন্ধু ঢাকার মিরপুর এক নম্বর থেকে কুয়াকাটায় রওয়ানা হন। শুক্রবার সন্ধ্যায় আমতলীর লঞ্চে ওঠেন। শনিবার বিকেলে আমতলী ঘাটে পৌছেন। বাসস্ট্যান্ডে এসে অপেক্ষমান একটি বাসে ওঠে। কুয়াকাটায় যাওয়ার কথা বলে প্রত্যেকের কাছ থেকে ৫০ টাকা করে ভাড়া নেয়া হয়। কিন্তু বাসটি কলাপাড়ায় গিয়ে পৌছলে ইঞ্জিন বিকলের কথা বলে নামিয়ে দেয়। শেখ রাসেল সেতুর সংযোগ সড়কে অপেক্ষমান কুয়াকাটাগামী নিউ মায়ের দোয়া বাসে তুলে দেয়া হয়। বলে দেয়া হয় ভাড়া দেয়া লাগবে না। কিন্তু পথিমেধ্যে ভাড়া চাইলে বাগবিতন্ডার এক পর্যায় হাতাহাতি হয়। কুয়াকাটায় ওই বাসে আসা কুমিল্লার মাধবপুরের অপর এক পর্যটক শফিকুল ইসলাম জানান, বাসের চালক, সুপার ভাইজরসহ হেল্পাররা কুয়াকাটা-কলাপাড়ায় থাকা অপর শ্রমিকদের খবর দিয়ে এনে বাসে থাকা ১৫/১৬ পর্যটকসহ সকল যাত্রীদের রোলার দিয়ে বেধড়ক পেটানো হয়। এসময় কুয়াকাটার এক যুবক রহিমকেও মারধর লাঞ্ছিত করা হয়। বিষয়টি কুয়াকাটার সাধারণ মানুষ জানলে বাসটি ঘেরাও করে পাল্টা-হামলার প্রস্তুতি নেয়। এতে চরম উত্তেজনা বিরাজ করে। এসময় মহিপুর থানা পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। তাৎক্ষণিক মহিপুর থানার ওসি মো. সাইদুল ইসলাম বাসের চালক শাহীন ও কুয়াকাটা কাউন্টার কলম্যান নাসিরকে থানায় নিয়ে যান। আহত পর্যটকদেরও নিয়ে ঘটনা শোনেন। বাস মালিককে বলে আহত পর্যটকদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়। পর্যটকের কাছে মাফ চাওয়ানো হয়েছে। ডেকে নিয়ে দুই পক্ষের উপস্থিতিতে বিষয়টির সমাধান করেন। বাসের চালককে চাকরিচ্যুত করারও আশ্বাস দেয় বাস মালিক। বর্তমানে এ ঘটনায় কুয়াকাটায় আগত পর্যটকের কাছে এক ধরনের উদ্বেগ বিরাজ করছে। মহিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো.সাইদুল ইসলাম বলেন, এটি একটি সামান্য ঘটনা। এঘটনার মিমাংসা হয়ে গেছে। বাস মালিক রাজ্জাক চৌকিদার এসে আহত পর্যটকদের চিকিৎসা খরচ দিয়েছেন এবং শ্রমিকরা আহত পর্যটকদের কাছে মাফ চেয়েছে। বাসের ড্রাউভার,সুপার ভাইজার ও হেলপারকে চাকুরীচ্যুত করা হয়েছে।

প্রাইভেট ডিটেকটিভ/ ৯ জুন ২০১৯/ইকবাল

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ