August 2, 2020, 3:09 pm

শিরোনাম :
পবিত্র ঈদ-উল-আজহা উপলক্ষে মুন্ডুমালা পৌরসভাসহ দেশবাসীকে সাইদুর রহমানের ঈদ শুভেচ্ছা ঈদ-উল-আজহা উপলক্ষে তানোর বাসীকে ইউএনও সুশান্ত কুমার মাহাতো এবং ওসি রাকিবুল হাসানের শুভেচ্ছা পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে কুমিল্লা-চাঁপাইনবাবগঞ্জসহ দেশবাসীকে এসপি সৈয়দ নুরুল ইসলামের ঈদ শুভেচ্ছা ঈদুল আজহার জামাতের মোনাজাতে রোগমুক্তির আকুতি বাদাঘাট ইউনিয়ন সহ দেশবাসীকে ঈদ-উল আয্-হার শুভেচ্ছা জানালেন সাবেক চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা রাখাব উদ্দিন বক‌শিগঞ্জে মরা গরুর মাংস বি‌ক্রির চেষ্টা -কসাই ও বি‌ক্রেতা‌র জ‌রিমানা বাদামতলীতে ফেন্সিডিলের বড় চালানসহ দুই কারবারি আটক পলাশপুর ও ভবেরচরে ইয়াবাসহ তিন কারবারি আটক প্রাইভেট ডিটেকটিভ পত্রিকার পক্ষ থেকে দেশবাসীকে পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা র‍্যাব-৫ এর মাদক বিরোধী অভিযানে রাজশাহীতে হেরোইনসহ ২ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

কলাপাড়ার মুজিব নগরে অস্ত্রধারীদের মহড়া সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল

Spread the love

পটুয়াখালী প্রতিনিধিঃ

পান থেকে চুন খসলেই ধারালো অস্ত্র নিয়ে রাস্তায় নেমে পড়ে এরা। চাঁদাবাজী, দখলবাজী এবং সুদের টাকা আদায় থেকে শুরু করে মাঝে মধ্যে ভাড়ায়ও চলে এই বাহিনীর অস্ত্রের প্রদর্শনী। পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার ‘মুজিব নগর’ খ্যাত ধানখালী এখন আতংক হয়ে উঠেছে এই বাহিনী। ধানখালী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের প্রভাবশালী ক’নেতা এদের গডফাদার। সংশ্লিষ্ট এলাকা ছাড়াও তাদের বিচরনে অতিষ্ট হয়ে উঠেছে উপজেলাবাসী। এলাকাবাসীর অভিযোগ কলাপাড়া উপজেলার ধানখালী ইউনিয়ন মুজিবনগন হিসেবে পরিচিত। সেই মুজিব নগরে সন্ত্রাসী কার্যকলাপ বৃদ্ধি পেলেও অজ্ঞাত কারনে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হয় না এদের বিরুদ্ধে ।
গত বছরের ২৫ ডিসেম্বর পটুয়াখালী জেলা পুলিশের উদ্যোগে কলাপাড়া সুধিজনদের সঙ্গে বরিশাল রেঞ্জ পুলিশের ডিআইজি শফিকুল ইসলামের এক বিশাল জনসভায় প্রকাশ্যে এই কিশোর বাহিনীর বিরুদ্ধে বিস্তর অভিযোগ তোলা হলেও অজ্ঞাত কারনে কোন আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হয়নি এদের বিরুদ্ধে। দিনদিন এই বাহিনীর দৌড়াত্ব বেড়েই চলছে। অতি সম্প্রতি এই বাহিনীর সদস্যদের অস্ত্র সহ ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রকাশ পেলে উপজেলাবাসী ও সুশীল সমাজের পক্ষ থেকে ক্ষোভ প্রকাশ পায়।
এই বাহিনীর কার্যকলাপের ধারাবাহিকতায় বছরের প্রথম দিনে ধানখালী ইউনিয়নের লোন্দা খেয়াঘাট বাজার এলাকা খেয়াঘাট দখল নিয়ে চলে তান্ডব। পায়রা তাববিদ্যুৎ কেন্দ্র আর,পি,সি,এল কোম্পানীর নিয়োগকৃত ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান প্রবাল ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানী লিঃ, আমির ইঞ্জিনিয়ারিং লিঃ, ই-ইঞ্জিনিয়ারিং লিঃসহ কয়েকটি কোম্পানীর সাথে লিখিত চুক্তিবদ্ধ হয়ে সাফ ইজারা নিয়ে লোন্দা খেয়াঘাট থেকে ওই কোম্পানীর যাবতীয় মালামাল পরিবহনকাজে নিয়োজিত হন শহিদুল ইসলাম। কিন্তু এই খেয়াঘাটটি নেয়ার পর থেকে এক নেতা তাদের কাছ থেকে এটি দখলে নিতে পাঁয়তারা চালায়। এক পর্যায় অভিযোগকারীর কাছে ঘাটের লভ্যাংশের ৬০ ভাগ অর্থ দাবী করে বসে তারা। এনিয়ে উভয় পক্ষের মধ্য দ্বন্দ্ব ও রেষারেষির এক পর্যায় লভ্যাংশের ৬০ ভাগ অর্থ দিয়ে কাজ চালাতে হয়। এদের মধ্যে লিয়ন মৃধা, মাসুম সরদার, তারেক মৃধা, রাকিবুল মৃধা, ফেরদৌস তালুকদার, বশির হাওলাদার, নজরুল হাওলাদার, জাহিদ, শুভ, সাইফুল, লিমন, সোহান সহ ২০ থেকে ২৫ জন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে রাস্তায় বেড়িয়ে পড়ে। অজ্ঞাত কারনে এই সকল অস্ত্রধারীর বিরুদ্ধে অদ্যবধি ব্যবস্থা নেয়নি আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। স্থানীয় শাহজাদা পারভেজ টিনু মৃধার অভিযোগ, এরা বর্তমান চেয়ারম্যান রিয়াজের লোক।
ধানখালী ইউপি চেয়ারম্যান রিয়াজ তালুকদারের অভিযোগ, এরা টিনু মৃধার লোক। অস্ত্রের মহড়া দিয়ে এলাকায় তান্ডব সৃষ্টি করে আসছে। ঘাট নিয়ে এই বাহিনীরা দ্বন্দ্ব সংঘাত চলমান রয়েছে। এর সুরাহ হওয়া দরকার। তা না হলেও বড় ধনের অপ্রীতিকর ঘটনার আশংকা রয়েছে।
কলাপাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ মনিরুল ইসলাম জানান, বেশ কয়েকবার উল্লেখিত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে পুলিশ অভিযান চালায়। কিন্তু তারা গা ঢাকা দেয়ায় এদের গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি।

প্রাইভেট ডিটেকটিভ/১২ জানুয়ারি ২০২০/ইকবাল

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ