January 17, 2020, 7:36 pm

এ কেমন নরপিচাশ !!!

Spread the love

 

প্রতিকি ছবিঃ

 

আলফাডাঙ্গা (ফরিদপুর) প্রতিনিধি ঃ 

 

ফরিদপুরে আলফাডাঙ্গায় পৌর এলাকার (৮নং ওয়ার্ডের)বারাশিয়া নদীর কূলে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের যায়গায় উপর বসবাস করেন হাসিনা (৩৮) নামে এক নারী,পার্শ্ববর্তী বোয়ালমারী উপজেলার শেখর ইউনিয়নের গঙ্গানন্দপুর গ্রামের গোলাম রসুলের মেয়ে হাসিনা। প্রথম স্বামী’র অত্যাচার জুলুমের মাত্রা অতিরিক্ত হওয়ার কারনে একটি কন্যা সন্তান নিয়ে স্বামী’র সাথে বিচ্ছিন্ন হয়।

পরবর্তী সুখের সর্বশেষ ঠিকানায় বুক ভরা আশা নিয়ে নতুন ঘর বাধে,ইসলামী বিধিবিধান ও শরীয়ত অনুযায়ী হাসিনার দ্বিতীয় স্বামী হিসেবে নড়াইল জেলার আদমপুর গ্রামের মো. কুদ্দুস মোল্যা’র ছেলে মো. ফছিয়ার মোল্যা( ৪২) এর সাথে- গেল বছর ২০১৬ সালের ২১ শে ডিসেম্বর বিয়ের কার্য সম্পুন্ন হয়। প্রায় আড়াই বছর সুখে শান্তিতে বসবাস করে।কিন্তু হাসিনার আগের পক্ষের মেয়ে ৮ম শ্রেণীতে পড়ে। ও-ই নারী লোভী স্বামী মেয়ের সাথে সু-সম্পর্ক্য গড়ে তোলে, এক পর্যায়ে সম্প্রতি কালে মেয়েকে বিয়ে করে স্থান ত্যাগ করে বলে হাসিনা কান্নাকন্ঠে বলেন। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে হাসিনা বলেন, সমাজপতিদের কাছে বলেও কোন সুবিধা পায়নি।

কি হবে হাসিনার উপায়!!কে দাঁড়াবে হাসিনার পাশে, এই নিয়ে চলছে এলাকায় নানা গুঞ্জন।এ বিষয়ে আলফাডাঙ্গা কেন্দ্রীয় মসজিদের ইমাম হাফেজ মাওলানা কুতুব উদ্দীন, উপজেলা মসজিদের ইমাম মাওলানা মো.দেলোয়ার হুসাইন সহ একাধিক মাওলানা গনমাধ্যম কর্মীকে বলেন শরীয়াত বিধান মতে এই বিয়ে সম্পন্ন হারাম। ১৪ জন্য কে বিয়ে করা হারাম তার মধ্য এটি অন্যতম হারাম।পবিত্র কোরআনের সুরা-আন নিছায় ৪নং সুরায় ২৩ নং আয়াতের মধ্য লিপিবদ্ধ আছে বলে উল্লেখ করেন পেশ ইমামরা।

জানতে চাইলে আলফাডাঙ্গা পৌর মেয়র সাইফুর রহমান সায়ফার বলেন-বিষয়টি আমার জানা ছিলো না,খুবই নিন্দনীয় কাজ, হাসিনা আমার কাছে আসলে, আমি তাকে সার্বিক সহোযোগিতায় করবো।এ ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।ন্যায় বিচারের দাবীতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করে সুধিজন।

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ