February 14, 2020, 11:00 am

শিরোনাম :
বাঙালির জাতীয় জীবনে গৌরবময় ও ঐতিহ্যপূর্ণ দিন ২১ ফেব্রুয়ারি লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলো করে যোগ্য মানুষ হতে হবে – রবিন খান খালপাড় এলাকাবাসীর উদ্যোগে ২ দিন ব্যাপি ওয়াজ মাহফিল ভৈরব কিশোরগঞ্জ রেলওয়ে সড়কের বেহাল দশা দেখার কেউ নেই র‌্যাব-৫ এর অভিযানে রাজশাহীর মোহনপুরে ইয়াবা উদ্ধার ১ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার ভিডিও কনফারেন্সিং এর মাধ্যমে কুমিল্লার ২৩ টি উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুতায়নের শুভ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী পুলিশ প্রশাসন ও উপজেলা প্রশাসনের যৌথ এবং পৃথক ২টি অভিযানে ০৩ আসামি গ্রেফতার র‌্যাব-৫ এর ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে বিপুল পরিমাণ মেয়াদ উর্ত্তীন্ন ঔষুধ জব্দ শার্শায় ইট ভাটায় মোবাইল কোর্ট ১ লক্ষ ৮৪ হাজার টাকা জরিমানা আদায় জগন্নাথপুরে চলছে ঘোষগাঁও-কাতিয়া সড়কের কাজ,জনমনে আনন্দ

এবার কিশোরগঞ্জের হাওড়ে ‘ইত্যাদি’

Spread the love

এবার কিশোরগঞ্জের হাওড়ে ‘ইত্যাদি’

ডিটেকটিভ বিনোদন ডেস্ক

‘ইত্যাদি’র এবারের পর্ব ধারণ করা হয়েছে নৈসর্গিক সৌন্দর্যের নান্দনিক দৃশ্যাবলিতে সাজানো কিশোরগঞ্জের হাওড়ের মাঝখানে দ্বীপের মতো ভেসে থাকা মিঠামইনের হামিদ পল্লীতে। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি কিশোরগঞ্জের অসাধারণ নৈসর্গিক দৃশ্যের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে সাজানো মঞ্চে ধারণ করা হয় এবারের ইত্যাদি। ইত্যাদির ধারণ উপলক্ষে ভাটির দেশ কিশোরগঞ্জে ছিল উৎসবের আমেজ। সকাল থেকেই কিশোরগঞ্জ শহর, করিমগঞ্জ, ইটনা, অষ্টগ্রাম, ভৈরব, নিকলী, কটিয়াদী, হোসেনপুর, ব্রাহ্মণবাড়িয়াসহ বিভিন্ন স্থান থেকে শতশত নৌকা-ট্রলারে করে হাজার হাজার মানুষ আসতে থাকে হামিদ পল্লীতে। হাওড়ের মাঝখানে ছোট্ট এই পল্লীটির চারদিকে হাজার হাজার নৌকা-ট্রলারের সারি এক অভূতপূর্ব দৃশ্যের সৃষ্টি করে। এত দুর্গম অঞ্চলে অনুষ্ঠান হওয়া সত্ত্বেও অনুষ্ঠানস্থলে প্রায় লক্ষাধিক দর্শকের সমাগম হয়েছিল। বাংলাদেশের যখন যে স্থানে ইত্যাদি ধারণ করা হয় সেই স্থানটির বৈশিষ্ট্যকে কেন্দ্র করেই সেট নির্মাণ করা হয়। ফলে দর্শকরা যেমন ওই স্থানটি সম্পর্কে জানতে পারেন তেমনি নিত্য-নতুন লোকেশনের কারণে প্রতিবারই সেট নির্মাণেও আসে বৈচিত্র্য। এবারো হাওড় অঞ্চলের জীবন-জীবিকা, প্রাকৃতিক সৌন্দর্য তুলে ধরে জলে ও ডাঙায় শতাধিক নৌকা রেখে নির্মাণ করা হয় নান্দনিক মঞ্চ। সবসময় রাতের আলোকিত মঞ্চে ইত্যাদি ধারণ করা হলেও এই স্থানের নৈসর্গিক রূপ রাতের বেলায় দেখানো সম্ভব নয় বলে এবার দিনের আলোর পড়ন্ত আভায় ইত্যাদির ধারণ শুরু হয়।ফাগুন অডিও ভিশনের একজন মুখপাত্র বলেন, ‘তিন দশক পেরিয়ে চার দশকে পদার্পণ করেছে ইত্যাদি। সাধারণ মানুষের সমর্থন, সহযোগিতা, ভালোবাসার কারণেই ইত্যাদি এই দীর্ঘপথ পাড়ি দিতে পেরেছে। ইত্যাদি সব বয়সের, সব শ্রেণি-পেশার মানুষের প্রিয় অনুষ্ঠান। কারণ একটি শিশু যেমন ইত্যাদি দেখে তেমনি তার দাদুও দেখেন। ইত্যাদিতে আমরা সবার কথা বলতে চেষ্টা করি। কারণ দেশ গড়ায় সবার অবদান রয়েছে। আর তাই আমরা ইত্যাদিকে নিয়ে যাই গ্রাম-গঞ্জে, সাধারণ মানুষের কাছে। দর্শকরা সময় বের করে আমাদের অনুষ্ঠান দেখতে বসেন। স্টুডিওর বাইরে গিয়ে অনুষ্ঠান ধারণের এই ধারণাটিকে এখন অনেকেই গ্রহণ করেছেন। ফলে টেলিভিশন অনুষ্ঠান নির্মাণেও বৈচিত্র্য এসেছে। এবারে কিশোরগঞ্জের মিঠামইনের হাওড় অঞ্চলে ধারণকৃত অনুষ্ঠানটি বিষয় বৈচিত্র্য, স্থান নির্বাচন সব দিক থেকেই হয়েছে ব্যতিক্রমী ও উপভোগ্য। গণমানুষের প্রিয় অনুষ্ঠান ইত্যাদির এই মিঠামইনের পর্বটি একযোগে বিটিভি ও বিটিভি ওয়ার্ল্ডে প্রচার হবে ৪ অক্টোবর রাত ৮টার বাংলা সংবাদের পর। ইত্যাদির রচনা, পরিচালনা ও উপস্থাপনা করেছেন হানিফ সংকেত। নির্মাণ করেছে ফাগুন অডিও ভিশন।

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ