September 22, 2019, 6:07 am

এডিসের লার্ভা ধ্বংসে চিরুনি অভিযান চালানো হবে: মেয়র আতিকুল

Spread the love

এডিসের লার্ভা ধ্বংসে চিরুনি অভিযান চালানো হবে: মেয়র আতিকুল

ডিটেকটিভ নিউজ ডেস্ক

 

 

সিটি করপোরেশনের প্রতি ওয়ার্ডকে ১০ ভাগ করে এডিস মশার লার্ভা ধ্বংস করার জন্য চিরুনি অভিযান চালানো হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম। আগামী ২-৩ দিনের মধ্যে এই কার্যক্রম শুরু হবে জানিয়ে উত্তরের মেয়র বলেছেন, অভিযানের দ্বিতীয় ধাপে বাড়িতে মশার লার্ভা পাওয়া গেলে জরিমানা করা হবে। গতকাল শনিবার রাজধানীর কাকরাইলে জাতীয় স্কাউট ভবনে ‘পরিচ্ছন্ন বাংলাদেশ বিনির্মাণে ডেঙ্গু প্রতিরাধে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে’ প্রথমবারের মতো সরকারের পাঁচটি মন্ত্রণালয় ও বিভাগ এবং চারটি সংস্থার চুক্তি সই অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। মশা নিধনে তার পরিকল্পনার কথা তুলে ধরে মেয়র বলেন, প্রত্যেক ওয়ার্ডকে ১০ ভাগে ভাগ করবো, এভ্রি থিং ইজ ডান। কোরবানির জন্য সবাই ব্যস্ত ছিল, আগামি পরশু বা পরের দিন থেকেৃ রোভার স্কাউটস এবং সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের নিয়ে ১০-১৫ জনকে নিয়ে, ম্যাপিং কমপ্লিট হয়ে গিয়েছে, আমরা চিরুনি অভিযান করবো। প্রতি বাড়িতে গিয়ে দেখাবো লার্ভা পাওয়া যায় কি না? আমরা স্টিকার বানিয়েছি, যেখানে লার্ভা পাওয়া পাওয়া যাবে সেখানে মেনশন করে দেবো যে এখানে লার্ভা পাওয়া গিয়েছে। এটা হচ্ছে প্রথম ১০ দিন। এরপরে আমরা আবার যাবো দেখতে ওই বাড়িগুলোর কী অবস্থা? তারপরে যদি লার্ভা পাওয়া যায়, আমি বিনয়ের সঙ্গে বলছি আমাদের কিন্তু ফাইন (জরিমানা করা) ছাড়া অন্য কোনো গতি থাকবে না। কারণ, আমরা আপনাদের অ্যাওয়ারনেস বিল্ডাপ করেছি, জমা পানি আপনি কেন রাখবেন, যেখানে লার্ভা তৈরি করতে দেবেন, আপনি কেন আপনার আঙিনা পরিষ্কার করবেন না, আপনি কেন যত্রতত্র ময়লা ফেলে দেবেন? শুধু মশা নিধনে গুরুত্ব না দিয়ে গবেষণার ওপর জোর দিয়ে আতিক বলেন, আমরা ইন্টিগ্রেটেড ভিক্টর ম্যানেজমেন্টের ওপর জোর দিচ্ছি। নতুন মশার ওষুধ দেওয়া হচ্ছে, ফগার মেশিনের সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে। কলকাতার মেয়রের অভিজ্ঞতা নিয়ে আতিকুল ইসলাম বলেন, সচেতনতার মাধ্যমে মশা নিধন করা সম্ভব। এজন্য পলিটিক্যাল উইল (রাজনৈতিক সদিচ্ছা) থাকতে হবে, আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সেই পলিটিক্যাল উইল আছে। ৩৬৫ দিন কর্মসূচি পালন করতে হবে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকারমন্ত্রী তাজুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান, দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) এর কমিশনার ও বাংলাদেশ স্কাউটস এর প্রধান জাতীয় কমিশনার ড. মোজাম্মেল হক খান। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব ও বাংলাদেশ স্কাউটস এর সভাপতি আবুল কালাম আজাদ।

‘স্টপ ডেঙ্গু’ অ্যাপ চালু: দেশজুড়ে ছড়িয়ে পড়া ডেঙ্গুজ¦রের ছোবল থেকে মুক্তির লক্ষ্যে উন্মোচন করা হয়েছে ‘স্টপ ডেঙ্গু’ মোবাইল অ্যাপ। এই অ্যাপ ব্যবহারের মাধ্যমে দেশের যেকোনো স্থানে মশার প্রজনন স্থান স্বয়ংক্রিয়ভাবে শনাক্ত করে মশা নিধনে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া যাবে। গতকাল শনিবার সকালে রাজধানীর কাকরাইলে জাতীয় স্কাউট ভবনে ‘পরিচ্ছন্ন বাংলাদেশ’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে এই অ্যাপ উদ্বোধন করা হয়। একই অনুষ্ঠানে পরিচ্ছন্ন বাংলাদেশ বিনির্মাণে ডেঙ্গু প্রতিরোধে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রথমবারের মত চুক্তি সই করে একজোট হয়েছে সরকারের পাঁচটি মন্ত্রণালয় ও বিভাগ এবং আরো চারটি সংস্থা। চুক্তি স্বাক্ষরের পর ‘স্টপ ডেঙ্গু’ নামে একটি বিশেষায়িত অ্যাপ প্রকাশ করা হয়। ই-ক্যাব বাংলাদেশের সার্বিক তত্ত্বাবধানে অ্যাপটি তৈরিতে কারিগরি সহায়তায় দেয় ই-পোস্ট ও বিডি-ইয়ুথ। অ্যাপটির ব্যবহার ও কার্যকারিতার ওপর আলোকপাত করে অনুষ্ঠানে জানানো হয়, অ্যাপ ব্যবহারের মাধ্যমে যেকেউ সারা দেশের যেকোনো স্থানে মশার প্রজনন স্থান স্বয়ংক্রিয়ভাবে শনাক্ত করতে পারবেন। এর মাধ্যমে পুরো দেশের মশার প্রজনন স্থানের ম্যাপিং তৈরি করা হবে। ফলে সিটি করপোরেশন এবং স্থানীয় সরকার খুব সহজেই কোন এলাকায় কতজন লোক নিয়োগ করতে হবে তা মশার জন্মস্থানের ঘনত্ব দিয়ে নির্ধারণ করতে পারবে। মশা নিয়ন্ত্রণে কী পরিমাণ ওষুধ কিনতে হবে বা ব্যবহার করতে হবে সে বিষয়টিও জানা যাবে। একইসঙ্গে পরবর্তী বছরের জন্য আগে থেকে সতর্কতামূলক প্রস্তুতি নেওয়া যাবে। পাশাপাশি ডেঙ্গু আক্রান্ত ব্যক্তিকে কীভাবে কোথায় চিকিৎসা সেবা দেওয়া যাবে তা জানা যাবে বলে জানান ই-ক্যাব সভাপতি শমী কায়সার। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ স্কাউটস, ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ই-ক্যাব), ঢাকা দক্ষিণ ও উত্তর সিটি করপোরেশন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর, স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ, স্থানীয় সরকার প্রকোশল অধিদপ্তর, আইসিটি বিভাগের অধীন এটুআই প্রকল্প এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা চুক্তি সই করেছে। চুক্তি অনুযায়ী, পরিচ্ছন্ন বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে সংক্রমিত রোগ প্রতিরোধে প্রয়োজনীয় তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ, বিশ্লেষণের মাধ্যমে প্রযুক্তির সহায়তায় নাগরিক পর্যায়ে সচেতনতা সৃষ্টিতে যে যার অবস্থান থেকে দায়িত্ব পালন করবেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান, দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) এর কমিশনার ও বাংলাদেশ স্কাউটস এর প্রধান জাতীয় কমিশনার ড. মোজাম্মেল হক খান। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব ও বাংলাদেশ স্কাউটস এর সভাপতি মো. আবুল কালাম আজাদ।

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ