May 29, 2020, 2:05 am

শিরোনাম :
১ দিনে শরীয়তপুর জেলায় নতুন করে করোনা সনাক্ত ৩৬ জন রংপুরের গঙ্গাচড়া উন্নয়ন পরিষদের কার্যনির্বাহী কমিটি গঠন হামরকোনা বয়েজ ক্লাবের সার্বিক সহায়তায়” লোটন ইউ.কে প্রবাসীদের পক্ষ থেকে খাদ্য সামগ্রী বিতরন আম্ফানে ক্ষতিগ্রস্থ্যদের পাশে সেনাবাহিনী মাঠ পরিক্রমা বিশ্বব্যাপী করোনা মহামারিতে নিরবে মানবতার সেবায় কাজ করে যাচ্ছেন নৌকার সর্মথক গোষ্ঠীর সদস্য সচিব হারুনুর রশীদ রবি কুয়াকাটায় মেয়েকে বাল্যবিয়ে দিতে বাবার চাপ সৃষ্টি বোয়ালমারীতে আ’লীগের মধ্যে পৃথক ৫টি সংঘর্ষে ভাংচুর লুটপাট আহত ৫০ আটক ১০ “জাগো মানবতা” ফাউন্ডেশনের সভাপতি মোঃ হাছান ও সাধারন সম্পাদক মোঃ ফয়সাল নির্বাচিত চৌদ্দগ্রামের এক ব্যক্তির করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু স্বামীর নির্যাতনের শিকার হয়ে স্ত্রী হাসপাতালে ভর্তি,অভিযোগ যৌতুকের দাবী !
প্রতিকি ছবি

উপকুলে করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় মাঠে নেই এনজিও সংস্থা গুলো

Spread the love

আনু আনোয়ার,পটুয়াখালী প্রতিনিধিঃ

প্রতিকি ছবি

পটুয়াখালীর কুয়াকাটা সহ সমুদ্র উপকুলীয় জনপদে করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় মাঠে নেই এনজিও সংস্থা গুলো। লকডাউনে থাকা হ্জাার হাজার মানুষকে যখন সরকার খাদ্য সহায়তা দিয়ে আসছে। তখন এনজিও গুলোর নিরবতা সাধারন মানুষকে ভাবিয়ে তুলেছে। কুয়াকাটা সমুদ্র এলাকা সহ কলাপাড়া উপজেলায় প্রায় অর্ধশতাধিক এনজিও সুদের ব্যবসা সহ নানা কার্যক্রম চালিয়ে আসলেও হতদরিদ্র মানুষের পাশে কেউ নেই এখন। গনতন্ত্র, উন্নয়ন, সুশাসন, ভোট ও ভাতের অধিকার নিয়ে একাধিক রাজনৈতিক দল নির্বাচনের সময় শ্রমজীবী এসকল মানুষের দ্বারে দ্বারে প্রতিশ্রæতির ডালি নিয়ে ঘুরলেও এখন অসময়ে একমাত্র সরকার ছাড়া শ্রমজীবী মানুষের পাশে কাউকেই দেখা যাচ্ছে না। করোনা পরিস্থিতির এমন দু:সময়ে দূস্থ্য,অসহায়,শ্রমজীবী ও হতদরিদ্র পরিবার গুলোর যখন দূর্দিন চলছে,তখন তাদের একমাত্র ভরসা সরকারী সহায়তা। এনজিও গুলোর এমন নিরবতায় প্রশ্ন উঠেছে তাহলে তারা কি শুধুই সুদের ব্যবসার জন্য গরীব মানুষদের ব্যবহার করছে?।
হত দরিদ্র রিকশা-ভ্যান ও অটো চালক, প্রান্তিক জেলে-কৃষক, সবজি বিক্রেতা, বাস-ট্রাক শ্রমিক, নরসুন্দর শ্রমিক, হোটেল শ্রমিক, মৎস্য শ্রমিক, কৃষি শ্রমিক, বিধবা, প্রতিবন্ধী ও বয়স্কদের জন্য সরকারের একাধিক সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচী থাকলেও এসকল কর্মসূচীর যথাযথ বাস্তবায়ন নিয়ে নানা গুঞ্জন রয়েছে। সরকারের ভিজিডি, ভিজিএফ, টিসিবি সহ বিধবা, প্রতিবন্ধী ও বয়স্কদের ভাতা প্রাপ্তিতেও কাঠ খড় পোড়াতে হচ্ছে সুবিধাভোগীদের। করোনা পরিস্থিতির এ দু:সময়ে এ উপজেলায় ভিজিডি-ভিজিএফ ও টিসিবি নিয়ে রয়েছে নানা বিতর্ক। ইতোমধ্যে কলাপাড়া ইউএনও ভিজিএফ’র দু’তদারকি কর্মকর্তাকে শোকজ করেছেন। টিসিবি’র ডিলারদের হুঁশিয়ারী দিয়েছেন। তবুও পরিস্থিতির কোন দৃশ্যমান পরিবর্তন হয়নি। এর আগে সরকারী চাল নিয়ে কয়েকজন জনপ্রতিনিধির নামে মামলা হলেও সংশোধন হয়নি অন্যরা। করোনা পরিস্থিতিতে সরকারের দেয়া একমাত্র খাদ্য সহায়তার বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন ও ব্যক্তি নিজেদের চাঁদার টাকায় স্বল্প পরিসরে খাদ্য সহায়তা দিয়ে যাচ্ছে।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা তপন কুমার ঘোষ জানান, করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় সরকারের নির্দেশে দুর্যোগ ও ত্রান মন্ত্রনালয় থেকে উপজেলায় ৪৩ মেট্রিক টন চাল ও নগদ দু’লক্ষ টাকা বরাদ্দ পাওয়া গেছে। যা দিয়ে উপজেলার ২০০০ পরিবারকে চাল, ডাল, তেল, আলু, লবন ও সাবান সম্বলিত প্যাকেজ সহায়তা দেয়া হয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন কিছু দুস্থ্য পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিয়েছে।
কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহিদুল হক বলেন, করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় এনজিও গুলো শুধুমাত্র সচেতনতার হ্যান্ডবিল বিতরন ছাড়া দুস্থ্য মানুষের জন্য কিছু করেছে বলে আমার জানা নেই। তবে এ পরিস্থিতিতেও তারা কিস্তি আদায় কার্যক্রম পরিচালনার চেষ্টা করায় তাদের সতর্ক করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, স্থানীয় মেয়র ও সাংসদ দুস্থ্য মানুষের জন্য কিছু খাদ্য সহায়তা বিতরন করেছেন। করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী, বিত্তবান ব্যক্তি ও এনজিওদের নিয়ে আমি দু’একদিনের মধ্যে সভা ডাকছি।

প্রাইভেট ডিটেকটিভ/০৩ এপ্রিল ২০২০/ইকবাল

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ