August 22, 2019, 9:45 am

শিরোনাম :
র‌্যাব-৫ এর অভিযানে ৫০ বোতল বিদেশীমদসহ ০১ জন মাদক ব্যবসায়ী আটক আন্দোলন করে খালেদা জিয়াকে বের করা যাবে না – কৃষিমন্ত্রী ড.মো: আব্দুর রাজ্জাক এমপি ঈদের ১০ দিন পেরিয়ে গেলেও চিলমারীতে কমছে না বাস ভাড়া ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় জড়িতদের শাস্তি নিশ্চিত করা হবে – প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে ব্যবসায়ীর স্ত্রী-শিশুকন্যা ৩ দিন ধরে নিখোঁজ সিংগাইরে জাতীর পিতার ৪৪ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার প্রতিবাদে মিলাদ মাহফিল ও গনভোজের আয়োজন মানুষের কল্যাণে কাজ করতে গিয়ে বারবার মৃত্যুর সম্মুখীন হয়েছি: প্রধানমন্ত্রী গ্রেনেড হামলার দায় খালেদা জিয়া এড়াতে পারেন না: তথ্যমন্ত্রী জন্মাষ্টমী ঘিরে কঠোর নিরাপত্তা পরিকল্পনা ডিএমপি’র একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলায় নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা

অস্ট্রেলিয়াকে হারাল ভারত

Spread the love

অস্ট্রেলিয়াকে হারাল ভারত

ডিটেকটিভ স্পোর্টস ডেস্ক

টপ অর্ডার দুর্দান্ত ভিত গড়ে দেওয়ার পর বাকিরা জ¦লে ওঠায় বিশাল সংগ্রহ গড়েছিল ভারত। সম্মিলিত প্রচেষ্টায় প্রাণপণে লড়াই করল অস্ট্রেলিয়া, কিন্তু তা রান তাড়ার রেকর্ড গড়ার জন্য যথেষ্ট হয়নি। বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের সহজেই হারিয়ে বিশ্বকাপে টানা দ্বিতীয় জয় পেল বিরাট কোহলির দল।

লন্ডনের দা ওভালে রোববার ৩৬ রানে জিতেছে ভারত। ৩৫২ রান তাড়ায় ৩১৬ রানে অলআউট হয়ে গেছে অস্ট্রেলিয়া।

বিশ্বকাপে নিজের তৃতীয় সেঞ্চুরিতে ভারতকে দৃঢ় ভিতের ওপর দাঁড় করান শিখর ধাওয়ান। দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে দলকে টানেন বিরাট কোহলি। আর মহেন্দ্র সিং ধোনি ও হার্দিক পান্ডিয়ার শেষের ঝড়ে বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে কোনো দলের সর্বোচ্চ সংগ্রহ গড়ে দুবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা।

জিততে প্রথম দল হিসেবে বিশ্বকাপে সাড়ে তিনশ ছাড়ানো রান তাড়ার রেকর্ড গড়তে হতো অস্ট্রেলিয়ার। কদিন আগে অবশ্য এর চেয়েও বড় লক্ষ্য তাড়ায় ভারতকে হারিয়েছিল পাঁচবারের বিশ্বকাপ জয়ীরা; মোহালিতে স্বাগতিকদের বিপক্ষে জিতেছিল ৩৫৮ রান তাড়া করে। তবে এবার আর পারেনি তারা। ডেভিড ওয়ার্নার, স্টিভেন স্মিথ ও অ্যালেক্স কেয়ারি লড়াই করলেও হয়নি সেই ম্যাচের পুনরাবৃত্তি।

অস্ট্রেলিয়াকে অনেকবার ভোগানো ধাওয়ান ও রোহিত শর্মার উদ্বোধনী জুটি এদিন শুরু থেকে ছিল সাবধানী। আক্রমণ থেকে দুই গতিময় পেসার মিচেল স্টার্ক ও প্যাট কামিন্স সরে যাওয়ার পর বাড়ে রানের গতি। ন্যাথান কোল্টার-নাইলকে সপ্তম ওভারে টানা তিনটি বাউন্ডারি হাঁকিয়ে ডানা মেলেন ধাওয়ান। রানের গতিতে দম দেওয়ার কাজটা করেন বাঁহাতি এই ওপেনার।

ধীরে ধীরে নিজেকে ফিরে পান আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান রোহিত। জমে যায় জুটি। ১৯তম ওভারে তিন অঙ্ক স্পর্শ করে জুটি ও দলের রান। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে রোহিত-ধাওয়ানের এটি ষষ্ঠ শতরানের জুটি।

শুরুতে রোহিতের কঠিন একটি ক্যাচ হাতছাড়া করেছিলেন কোল্টার-নাইল। এই পেসারই শেষ পর্যন্ত থামান ডানহাতি ওপেনারকে। ৭০ বলে তিন চার ও এক ছক্কায় ৫৭ রান করেন রোহিত।

কোহলির সঙ্গে ৯৭ রানের আরেকটি ভালো জুটি উপহার দেন বিশ্বকাপে নিজের তৃতীয় সেঞ্চুরি তুলে নেওয়া ধাওয়ান। স্টার্কের বলে সীমানায় ক্যাচ দিয়ে শেষ হয় তার ১১৭ রানের ইনিংস। ওয়ানডেতে ১৭তম সেঞ্চুরি পাওয়া বাঁহাতি এই ওপেনারের ১০৯ বলের ইনিংস গড়া ১৬ চারে।

রানের গতি বাড়াতে প্রমোশন পেয়ে চার নম্বরে নামা হার্দিক পান্ডিয়া প্রথম বলেই ক্যাচ দিয়েছিলেন। গ্লাভসে বল জমাতে পারেননি অ্যালেক্স কেয়ারি। সুযোগ দারুণভাবে কাজে লাগান এই অলরাউন্ডার। ২৭ বলে তিন ছক্কা ও চারটি চারে খেলেন ৪৮ রানের এক ইনিংস।

পান্ডিয়ার সঙ্গে ৮১ রানের জুটি উপহার দেওয়া কোহলি ওয়ানডেতে তুলে নেন পঞ্চাশতম ফিফটি। বিশ্বকাপে মাত্র দ্বিতীয়বারের মতো কোনো ম্যাচে পঞ্চাশ ছোঁয়া ইনিংস খেললেন ভারতের টপ অর্ডারের তিন ব্যাটসম্যান।

ক্রিজে গিয়েই শট খেলতে শুরু করেন মহেন্দ্র সিং ধোনি। এই সময় কোহলি কমই পেয়েছেন স্ট্রাইক। ১৪ বলে খেলা ধোনির ২৭ রানের ঝড়ো ইনিংস শেষ হয় মার্কাস স্টয়নিসের দুর্দান্ত এক ফিরতি ক্যাচে। শেষ ওভারে ছক্কার চেষ্টায় শেষ হয় কোহলির ৮২ রানের ইনিংস।

শেষ বলে চার হাঁকিয়ে বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষ প্রথম সাড়ে তিনশ ছোঁয়া সংগ্রহ এনে দেন লোকেশ রাহুল। পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের বিপক্ষে বিশ্বকাপে আগের সর্বোচ্চ ছিল গত আসরে শ্রীলঙ্কার করা ৩১২। ভারতের আগের সেরা ছিল ১৯৮৭ আসরে ৬ উইকেটে ২৮৯।

বড় রান তাড়ায় অস্ট্রেলিয়ার শুরুটা ছিল সাবধানী। সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে  শট খেলতে শুরু করেন অধিনায়ক ফিঞ্চ। তার রান আউটে ভাঙে ৬১ রানের শুরুর জুটি।

শুরু থেকে টাইমিং করতে ভুগছিলেন অন্য ওপেনার ওয়ার্নার। ৭৭ বলে পঞ্চাশ স্পর্শ করেন বাঁহাতি এই ওপেনার- ওয়ানডেতে তার মন্থরতম। যুজবেন্দ্র চেহেলের বলে ক্যাচ দিয়ে শেষ হয় তার ৫৬ রানের ইনিংস।

দ্রুত রান তোলার চেষ্টায় থাকা ওসমান খাওয়াজাকে বোল্ড করে থামান জাসপ্রিত বুমরাহ। তখনও ম্যাচে ছিল অস্ট্রেলিয়া। তিন বলের মধ্যে স্মিথ ও মার্কাস স্টয়নিসকে ফিরিয়ে লাগাম ভারতের মুঠোয় নিয়ে আসেন ভুবনেশ্বর কুমার। ৭০ বলে ৬৯ রান করে ফিরেন স্মিথ, রানের খাতা খুলতে পারেননি স্টয়নিস।

শেষের দিকে বোলারদের ওপর চড়াও হয়ে ২৫ বলে ফিফটি তুলে নেন উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান কেয়ারি। ৩৫ বলে তার অপরাজিত ৫৫ রানের ইনিংস টুর্নামেন্টে অস্ট্রেলিয়ার প্রথম হার এড়াতে পারেনি।

ভুবনেশ্বর ৩ উইকেট নেন ৫০ রানে। বুমরাহ ৬১ রানে নেন ৩ উইকেট।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

ভারত: ৫০ ওভারে ৩৫২/৫ (রোহিত ৫৭, ধাওয়ান ১১৭, কোহলি ৮২, পান্ডিয়া ৪৮, ধোনি ২৭, রাহুল ১১*, কেদার ০*; কামিন্স ১০-০-৫৫-১, স্টার্ক ১০-০-৭৪-১, কোল্টার-নাইল ১০-১-৬৩-১, ম্যাক্সওয়েল ৭-০-৪৫-০, জ্যাম্পা ৬-০-৫০-০, স্টয়নিস ৭-০-৬২-২)

অস্ট্রেলিয়া: ৫০ ওভারে ৩১৬ (ওয়ার্নার ৫৬, ফিঞ্চ ৩৬, স্মিথ ৬৯, খাওয়াজা ৪২, ম্যাক্সওয়েল ২৮, স্টয়নিস ০, কেয়ারি ৫৫*, কোল্টার-নাইল ৪, কামিন্স ৮, স্টার্ক ৩, জ্যাম্পা ১; ভুবনেশ্বর ১০-০-৫০-৩, বুমরাহ ১০-১-৬১-৩, পান্ডিয়া ১০-০৬৮-০, কুলদীপ ৯-০-৫৫-০, চেহেল ১০-০-৬২-২, কেদার ১-০-১৪-০)

ফল: ভারত ৩৬ রানে জয়ী

ম্যান অব দা ম্যাচ: শিখর ধাওয়ান

Facebook Comments
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ